ঢাকা, বুধবার 11 January 2017, ২৮ পৌষ ১৪২৩, ১২ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ডা. জোবায়দার মামলা বাতিলে রুলের রায় অপেক্ষমান

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে করা সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগের মামলা বাতিল প্রশ্নে জারি করা রুলের শুনানি শেষ হয়েছে। আদালত রুলের ওপর যে কোন দিন রায় দেয়া হবে বলে বিষয়টি অপেক্ষমান রেখেছেন। 

গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও কৃষ্ণা দেব নাথ সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ শুনানি শেষে এই আদেশ দেন।

আদালতে জোবায়দা রহমানের পক্ষে শুনানি করেন সাবেক এটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল ও ব্যারিস্টার রাগীব রউফ চৌধুরী। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

গত বছরের ২ নবেম্বর বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি জে বি এম হাসান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এই রুলের শুনানিতে বিব্রতবোধ করেন। তখন আদালত বিব্রতবোধের কোন কারণ বলেননি। আবার কোন বিচারপতি বিব্রত হয়েছেন তা জানা যায়নি। পরে আদালত মামলাটি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন।

প্রধান বিচারপতি মামলাটি বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেব নাথ সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে পাঠান। 

আইনজীবী কায়সার কামাল বলেন, শীতকালীন অবকাশের আগে গত ৯ নবেম্বর শুনানি শুরু হয়েছিল। গতকাল শুনানি শেষ হয়েছে। রায় অপেক্ষমান রেখেছেন আদালত।

জরুরি অবস্থার সরকারের সময়ে ২০০৭ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জন এবং সম্পদের তথ্য গোপন করার অভিযোগে তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমান, শাশুড়ী সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানুর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। কাফরুল থানায় দায়ের করা মামলায় ৪ কোটি ৮১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৬১ টাকার মালিক হওয়া ও সম্পদেও তথ্য গোপনের অভিযোগে আনা হয়। মামলায় অভিযোগ করা হয়, তারেক রহমান তার স্ত্রীর নামে ৩৫ লাখ টাকার দুটি এফডিআর করে দেন। এভাবে জোবাইদা রহমান তার স্বামীকে অবৈধ সম্পদ অর্জনে সহায়তা করেছেন। পরে ২০০৮ সালের ৩১ আগস্ট তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় দুদক। একইবছর ৮ এপ্রিল জোবায়দা রহমানের আবেদনের প্রেক্ষিতে মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। এর বিরুদ্ধে আপিল করলেও আপিল বিভাগ হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন। কিন্তু এ মামলায় আসামীপক্ষ দুদককে পক্ষভুক্ত করেনি। গত বছর ২ এপ্রিল দুদকের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি জে বি এম হাসান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ দুদককে পক্ষভুক্ত করার আবেদন মঞ্জুর করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ