ঢাকা, বুধবার 11 January 2017, ২৮ পৌষ ১৪২৩, ১২ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সোনাইমুড়িতে সন্ত্রাসী হামলা ঘরবাড়ি ভাঙচুরের ১৫ দিন পরও পুলিশ ব্যবস্থা নেয়নি

চাটখিল (নোয়াখালী) সংবাদদাতা : সোনাইমুড়ি উপজেলার পতিশ গ্রামের মান্দার বাড়ির বিধবা নুরজাহানের ঘরে ১৫ দিন আগে, সন্ত্রাসী হামলা, ভাঙচুর হলে থানায় অভিযোগ করা হয়। কিন্তু পুলিশ এখন পর্যন্ত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পতিশ গ্রামের মান্দার বাড়ির বিধবা নুরজাহানের ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে। ঘরের বেড়া, দরজা, জানালা, টিভি, ফ্রিজ, সুকেইছ, আলমারী  ভেঙে ফেলে। এ প্রতিবেদকের কাছে কান্নারত কণ্ঠে বিধবা নুরজাহান জানান, আমি আর আমার স্বামী একসময় হিন্দু ছিলাম, মুসলমান হওয়ার পর আমরা এখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করি। আমার ছেলে সুজন পতিশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে চায়ের দোকান দিতো। দোকান ঘরের ভাড়া ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই গ্রামের সন্ত্রাসী ফারুক, রাকিব, জামাল, ইসমাইল, নূর নবী সহ ১০/১৫ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী দল গত ২৬ ডিসেম্বর সোমবার রাতে হঠাৎ করে আমাদের বসত ঘরে হামলা করে, ঘরের সব তছনছ করে ফেলে। আমি ও আমার ছেলেরা বউ সহ বাধা দিতে এগিয়ে আসলে, আমাদেরকেও এলোপাতাড়ি পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। আমাদের কানে গলায় থাকা স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয় এবং আমাদের শ্লীলতাহানি করে। স্বর্ণালংকার সহ আমাদের প্রায় নগদ তিন লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। আমাদের  চিৎকারে মানুষজন এগিয়ে এসে আমাদেরকে চাটখিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। থানায় অভিযোগ করলে এস আই আবদুল আলী ঘটনার তদন্ত করেন। খবর পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন সাকিল এসে আমাদেরকে ঘর দরজা মেরামতের ব্যবস্থা ও ন্যায় বিচারের আশ্বাস দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ