ঢাকা, বৃহস্পতিবার 12 January 2017, ২৯ পৌষ ১৪২৩, ১৩ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মার্কিন গণতন্ত্র হুমকির মুখে

১১ জানুয়ারি, বিবিসি/আল জাজিরা : মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা শিকাগো শহরে দেয়া তার বিদায়ী ভাষণে ‘গণতন্ত্র হুমকির মুখে’ বলে উল্লেখ করেছেন। তিনি জনগণের প্রতি ‘গণতন্ত্র রক্ষার’ আহ্বানও জানিয়েছেন। তবে তার আট বছরের প্রশাসনে যুক্তরাষ্ট্র আরও ‘উত্তম ও শক্তিশালী’ হয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন।
ওবামা জনগণকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘আমরা স্বীকার করি বা না করি, গণতন্ত্র হুমকির সম্মুখীন হয়েছে।’ তিনি মার্কিন গণতন্ত্রের জন্য তিনটি হুমকির দিকে নির্দেশ করেছেন অর্থনৈতিক বৈষম্য, বর্ণবাদ এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরের বিভক্তি। জনগণকে ‘গণতন্ত্র রক্ষার’ আহ্বান জানান ওবামা।
‘আশা ও পরিবর্তনের’ অঙ্গীকার নিয়ে ২০০৮ সালে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন বারাক ওবামা। তবে ওবামার করা অনেক কাজ পরিবর্তন করার কথা আগেই ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত ডোনাল্ড ট্রাম্প। চলতি মাসের ২০ তারিখ আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করবেন ট্রাম্প।
বিদায়ী ভাষণে ওবামা এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে এক প্রেসিডেন্ট থেকে অপর প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমতার বদল হওয়াটা মার্কিন গণতন্ত্রের এক বিশেষ দিক। তবে সকলকে সমান অর্থনৈতিক সুযোগ না দিয়ে আমাদের গণতন্ত্র কার্যকর থাকতে পারে না।’

বিদায়ী প্রেসিডেন্ট দেশটির সর্বস্তরের মানুষদের একে-অপরের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, ‘আমাদের একে-অপরের প্রতি মনোযোগ দিতে হবে এবং শুনতে হবে।’
তবে ওবামা দাবি করেন, ‘যে কোনও ক্ষেত্রেই যুক্তরাষ্ট্র আট বছর আগের অবস্থান থেকে আরও উত্তম ও শক্তিশালী হয়েছে।’
তিনি তরুণ মার্কিনীদের প্রশংসা করে বলেন, ‘একটি ন্যায়, স্বচ্ছ ও সামষ্টিক সমাজ গঠনের ক্ষেত্রে ২০০৮ সালে আমি যেখান থেকে শুরু করেছিলাম, তার চেয়ে এখন অনেক বেশি আশাবাদী।’
উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে নির্বাচনে জয়ের পর শিকাগোতেই প্রথম ভাষণ দিয়েছিলেন ওবামা। এবার সেখানেই প্রেসিডেন্ট হিসেবে সর্বশেষ ভাষণ দিলেন তিনি।
স্ত্রীকে ‘সবচেয়ে কাছের
বন্ধু’ বলে কাঁদলেন
এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা শিকাগো শহরে দেয়া তার বিদায়ী ভাষণে স্ত্রীর কথা বলতে গিয়ে কেঁদেছেন। তিনি মিশেল ওবামাকে তার ‘সবচেয়ে কাছের বন্ধু’ বলেও উল্লেখ করেছেন।
ওই ভাষণের সময় ওবামার পাশে ছিলেন তার স্ত্রী মিশেল, মেয়ে মালিয়া, ভাইস-প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং তার স্ত্রী জিল।
স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতে দেয়া ভাষণের এক পর্যায়ে স্ত্রীর কথা বলতে গিয়ে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন ওবামা। তিনি মিশেলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘তুমি আমাকে যেমন গর্বিত করেছ, তেমনি দেশকেও গর্বিত করেছ। তুমি শুধু আমার স্ত্রী নও, আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধুও। যাকে সুখে-দুঃখে সব সময় পাশে পেয়েছি। হোয়াইট হাউসে থাকা অবস্থায় তোমাকে কোনও কাজের জন্য কখনও বলতে হয়নি। সব সময় নিজ দায়িত্বে যত্ন নিয়ে সব কাজ করেছ।’
স্ত্রীর কথা বলার অশ্রুভারাক্রান্ত হয়ে পড়েন ওবামা। তাকে একটি সাদা রুমাল বের করে চোখের পানি মুছতে দেখা যায়।
এর আগে ওবামা মার্কিন জনগণকে তার দুই মেয়াদে আট বছরের প্রশাসনে অর্জন ও মার্কিন গণতন্ত্রের বিপদ সম্পর্কে বলেন।
ওবামা জনগণকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘আমরা স্বীকার করি বা না করি, গণতন্ত্র হুমকি সম্মুখীন হয়েছে।’ তিনি মার্কিন গণতন্ত্রের জন্য তিনটি হুমকির দিকে নির্দেশ করেছেন  অর্থনৈতিক বৈষম্য, বর্ণবাদ এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরের বিভক্তি। জনগণকে ‘গণতন্ত্র রক্ষার’ আহ্বান জানান ওবামা।
‘আশা ও পরিবর্তনের’ অঙ্গীকার নিয়ে ২০০৮ সালে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন বারাক ওবামা। তবে ওবামার করা অনেক কাজ পরিবর্তন করার কথা আগেই ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত ডোনাল্ড ট্রাম্প। চলতি মাসের ২০ তারিখ আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করবেন ট্রাম্প।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ