ঢাকা, শুক্রবার 20 January 2017, ৭ মাঘ ১৪২৩, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাঙালির আলোয় দেখছে তারা

মনি খন্দকার

অহম ও আরাকানের পরিত্যক্ত আলোয় দিয়েছিল দ্রুতি,
বাঙালিরাই শিখিয়ে ছিল জীবনের আবাদ।
বৃটিশ দ্রোহে লড়েছিল তারা এবং পশু ও প্রকৃতির বিরুদ্ধে
লবণ রাতের তিক্ততায় দেখিয়েছিল আলোর পরিধি
বিভাজন ভুলে ঐক্য গড়ার রীতি, জীবন হবে জীবনের স্লোগানে
শুদ্ধ আরাধনাও শিখিয়ে ছিল তাদের অরণ্য জীবনে।
বাঙালির শিক্ষা বার্তায় শুদ্ধতায় জেগেছিল তারা
তাই, দেবতার পরেই সুস্মমানে অর্ঘ্য পেত,
বাঙালিরা ছিল সেদিন মহান শিক্ষকের আসনে।
অবুঝ বালক যৌবনে এসে ভুলে গেছে পথের পরিদর্শক
বহু শতকের প্রীতি বন্ধন আলোকিত পরিক্রমা শেষে
তারা এখন গুরু হত্যার মন্ত্রে উন্মাদ, উচ্ছৃঙ্খল, হন্তারক
বাঙালি হত্যাযজ্ঞে বড্ড নিষ্ঠুর তাদের মানব আত্মা।
স্বার্থের পুঞ্জিভূত লেলিহানে এখন বাঙালির রক্ত খায়,
রক্ষা নেই কচি শিশু নারী এবং অসুস্থ বৃদ্ধের,
তারা এখন মৃত্তিকার অধিকারী যা ছিল তাদের দুর্ভেদ্য।
বিশাব মানবতা তাকিয়ে দেখে মিয়ানমারে পশুর খঞ্জর
শিশুদের ক্ষত বিক্ষত লাশ এবং জীবন্ত মানুষ পোড়ানো,
আসামে বাঙালি তাড়ানোর দীক্ষায় হঠাৎ গর্জে উঠে অহমিয়া।
অথচ তাদের মনে নেই দুর্বিষহ কঠিন উত্তাপের কথা,
যারা আজ বাঙালির আলোয় দেখছে একটি প্রস্ফূটিত সকাল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ