ঢাকা, শুক্রবার 20 January 2017, ৭ মাঘ ১৪২৩, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

এসএমই খাতের ঋণ প্রদানে কেন্দ্রীয় বাংকের নির্দেশনা মানছে না ব্যাংকগুলো

স্টাফ রিপোর্টার : কম সুদে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) লোন উদ্যোক্তাদের প্রদান করতে বাংলাদেশ বাংকের নির্দেশনা থাকলেও এখনো অনেক ব্যাংক উচ্চ হারে সুদ নিচ্ছে এসএমই লোনে। এসএমই খাতের ঋণ প্রদানে কেন্দ্রীয় বাংকের নির্দেশনা মানছে না ব্যাংকগুলো। এসএমই খাতের উদ্যোক্তাদের ব্যবসা শুরুর প্রথম পাঁচ বছর ভ্যাট অর্ধেক করার দাবি করেছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই)।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে মতিঝিল ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) ও স্টান্ডিং কমিটি অন এসএমই ফাইন্যান্সিং-এর আায়োজনে এফবিসিসিআই মিলনায়তনে ‘এসএমই খাতে অর্থায়ন : সমস্যা ও উত্তরণ’ শীর্ষক সেমিনার এ অভিযোগ করেন দেশের বিভিন্ন জেলার উদ্যোক্তারা। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর ফজলে কবির। এ সময় এফবিসিসিআইর সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ, সহ-সভাপতি, পরিচালক, বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মকর্তাসহ এসএমই খাতের উদ্যোক্তারা উপস্থিত ছিলেন।
উদ্যোক্তারা বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক সাম্প্রতিক এক সার্কুলারে এসএমই খাতে ঋণের সুদ হারের স্প্রেড সর্বোচ্চ ৫ শতাংশের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার কথা বললেও বেশির ভাগ ব্যাংক এখন পর্যন্ত এসএমই লোন দেয়ার ক্ষেত্রে অনেক বেশি সুদ (১২ থেকে ১৩ শতাংশ) গ্রহণ করছে। যার মধ্যে রাষ্ট্রয়াত্ত সোনালী ব্যাংকও রয়েছে।
গবর্নর ফজলে কবির বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মূল ভূমিকা হলো অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির হারকে সমর্থন করা এবং জিডিপি হারকে বৃদ্ধি করা। তবে এখানে এসে আমার মনে হলো, বাংলাদেশ ব্যাংকের দ্বিতীয় কাজ হবে এসএমই খাতে উন্নয়ন নিশ্চিত করা। তাই আমাদের এখন কাজ হচ্ছে এসএমই খাতকে সামনের দিকে আরো এগিয়ে নেয়ার জন্য এ খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া।
তিনি বলেন, ২০১২ সালে ব্যাংক কেলেঙ্কারি হয়েছে। সে সময় তারা (ব্যাংক) ঋণ দিতে ভয় পেত। কিন্তু আমি তখন বলেছি গ্রহীতাদের ঋণ দেবেন এ ক্ষেত্রে আপনাদের মনিটরিংও বাড়াতে হবে। ব্যাংকগুলোকে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে আরো সাহসী হতে হবে। এ খাতে সাহসিকতার বিকল্প নেই।
ফজলে কবির আরো বলেন, ঋণ নেয়ার যে নিয়ম-কানুন আছে সে সম্পর্কে গ্রহীতাদের ঋণ গ্রহণের প্রক্রিয়া জানতে হবে। প্রয়োজনে তাদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা করা হবে।
মাতলুব আহমাদ বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে এসএমই খাতকে। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তাই এনবিআর-এর কাছে এফবিসিসিআইর পক্ষ থেকে আমি দাবি করছি এ খাতে ব্যবসা শুরুর প্রথম পাঁচ বছর অর্ধেক (৫০%) ভ্যাট আদায় করা।
তিনি বলেন, জামানত দিয়ে ঋণ গ্রহণ করা এসএমই খাতের উদ্যোক্তাদের প্রধান সমস্যা। এজন্য দেশের বীমা খাতকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। বীমা কোম্পানিগুলো যদি প্রিমিয়াম করে উদ্যোক্তাদের ঋণের জামানতের নিশ্চয়তা দেয়। তাহলে ব্যাংকগুলোর ঋণ দিতে সমস্যা হবে না।
ঋণের উচ্চ সুদহার, বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার অভাব ও নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে এসএমই খাতের উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা পিছিয়ে আছে। তাই এ খাতে নতুন নতুন সুযোগ সৃষ্টির পাশাপাশি সিঙ্গেল ডিজিটে সুদ প্রদানের আহ্বান জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ