ঢাকা, শুক্রবার 20 January 2017, ৭ মাঘ ১৪২৩, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জামায়াত আমীরের ছেলে নিখোঁজ সাইফুল জেলে

গাইবান্ধা সংবাদদাতা : সুন্দরগঞ্জ উপজেলা জামাতের আমীর ইউনুছ আলীর বড় ছেলে সাইফুল ইসলাম নিখোঁজ হওয়ার ৯ দিন পর বৃহস্পতিবার সুন্দরগঞ্জ থানা পুলিশ এমপি হত্যা মামলায় আসামী দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে থানা পুলিশ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে।
    পুলিশের একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, ১০ জানুয়ারি দিনাজপুর সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়নের তাজপুর গ্রামের বড় বোনের বাড়ি থেকে সাইফুল ইসলামকে সুন্দরগঞ্জ থানা পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে আসে। এরপর ওই দিন রাতে গাইবান্ধা পুলিশ সুপারের মাধ্যমে সাইফুলকে ঢাকা পিআইবি হেড অফিসে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ৭ দিন ঢাকায় অবস্থানের পর মঙ্গলবার রাতে সাইফুলকে সুন্দরগঞ্জ থানায় নিয়ে আসা হয়। বৃহস্পতিবার এমপি হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। এদিকে নিখোঁজ সাইফুল ইসলামের খোঁজ না পেয়ে তার স্ত্রী হালিমা বেগম দিনাজপুর কোতোয়ালি থানায় জিডি করে এবং বুধবার সাইফুলের মা রেবেকা বেগম ছেলের সন্ধানের দাবিতে গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে। এ নিয়ে এমপি লিটন হত্যা মামলায় ১১ জন আসামীকে গ্রেফতার দেখানো হল।
২১ দিন অতিবাহিত হলেও এমপি লিটন হত্যা মামলার কোন অগ্রগতির না হওয়ায় জনমনে নানা জল্পনা-কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। এমপি হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামীদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ কি তথ্য পেয়েছে তা আজও প্রকাশ করা হয়নি। এ নিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আশরাফুজ্জামান বলেন, তদন্তের স্বার্থে আসামীদের দেয়া তথ্য প্রকাশ করা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, এমপি লিটন হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমি হলেও মামলাটি দেখভাল করছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ। যার কারণে আমি সঠিক তথ্য প্রদান করতে পারছি না। মামলার বাদী ফাহমিদা বুলবুল কাকলী বলেন, মামলা তদন্তকারী সংস্থা দীর্ঘ ২১ দিনেও আমার ভাই হত্যার কোন প্রকার তথ্য প্রকাশ করতে না পারায় আমরা আসলেই হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছি। তবে আমরা হাল ছাড়িনি। যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি লিটন হত্যার ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করেছেন। সেহেতু দেরিতে হলেও প্রকৃত খুনিদের খুঁজে বের করবেন পুলিশ।
 গ্রেফতার: পুলিশ বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ভিন্ন মামলার ৬ জন আসামীকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন চন্ডিপুর গ্রামের মহির উদ্দিনের ছেলে নজরুল ইসলাম, জেলাল উদ্দিন, নজরুল ইসলামের ছেলে আব্দুল হান্নান, ফরিদ মিয়া, ফরহাদ হোসেন ও সীচা গ্রামের আফাজ উদ্দিনের ছেলে আব্দুল কাদের মিয়া।
কর্মসূচি : এমপি লিটন হত্যার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন মাঠে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংসদের হুইপ ও গাইবান্ধা সদর আসনের এমপি মাহাবুব আরা বেগম গিনি। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম আবু, গাইবান্ধা শহর আ’লীগ সভাপতি ও মেয়র এ্যাড শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন মন্ডল, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আ’লীগ নেতা উপাধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান সরকার, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আলম রেজা, সুন্দরগঞ্জ পৌর আ’লীগ সভাপতি আহসানুল করিম চাঁন সহ-সভাপতি এটিএম মাসুদ-উল-ইসলাম চঞ্চল, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, জেলা মহিলা আ’লীগ সদস্য ও সাবেক উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজা বেগম কাকলী, ধোপাডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান রাজু প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ