ঢাকা, শুক্রবার 20 January 2017, ৭ মাঘ ১৪২৩, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিশ্ব ইজতিমার দ্বিতীয় পর্ব আজ শুক্রবার থেকে শুরু

গাজীপুর ও টঙ্গী সংবাদদাতা : চার দিন বিরতির পর আজ শুক্রবার টঙ্গীর তুরাগ তীরে ৫২তম বিশ্ব ইজতিমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়েছে। তাবলিগ জামাতের ৫২তম বিশ্ব ইজতিমার দ্বিতীয় পর্বে যোগ দিতে বৃহস্পতিবারই ঢাকাসহ ১৬টি জেলার মুসল্লিরা ইজতিমাস্থলে আসতে শুরু করেছেন। মুসলিদের অবস্থানের জন্য তুরাগতীরের ১৬০ একর ইজতিমা ময়দানকে ২৯টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। ২২ জানুয়ারি রোবাবার দ্বিতীয় পর্বের মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতিমা।
ইজতিমা আয়োজক কমিটির অন্যতম সদস্য প্রকৌশলী মোঃ গিয়াস উদ্দিন বলেন, দ্বিতীয় পর্বে ইজতিমা ময়দান প্রস্তুতের জন্য তাবলিগ জামাতের কর্মীরা কাজ করছেন। তারা ইজতিমার প্রথম পর্বে মুসল্লিদের ফেলে রাখা ময়লা-আবর্জনা সরিয়ে পুরো ময়দানকে উপযোগী করে তুলেছেন। এছাড়া গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকেও ময়দান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করার কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।
দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেয়া জেলাওয়ারি খিত্তাগুলো হলো- ঢাকা-৫ (১নং খিত্তা),ঢাকা-১২ (২নং খিত্তা),ঢাকা-১৩(৩নং খিত্তা),ঢাকা-২০(৪নং খিত্তা), ঢাকা-২০(৫নং খিত্তা), মেহেরপুর (৬নং খিত্তা),ঢাকা-২৩ (৭নং খিত্তা), লালমনিরহাট(৮নং খিত্তা), রাজবাড়ী(৯নং খিত্তা), দিনাজপুর (১০নং খিত্তা), হবিগঞ্জ (১১নং খিত্তা), মুন্সিগঞ্জ-১ (১২নং খিত্তা), মুন্সিগঞ্জ-২ (১৩নং খিত্তা), কিশোরগঞ্জ-১(১৪নং খিত্তা), কিশোরগঞ্জ-২ (১৫নং খিত্তা), কক্সবাজার (১৬নং খিত্তা), নোয়াখালি-১ (১৭নং খিত্তা), নোয়াখালি-২ (১৮নং খিত্তা), বাগেরহাট (১৯নং খিত্তা), চাঁদপুর (২০নং খিত্তা), পাবনা-১ (২১নং খিত্তা), পাবনা-২ (২২নং খিত্তা), নওগাঁ (২৩নং খিত্তা), কুষ্টিয়া (২৪নং খিত্তা), বরগুনা (২৫নং খিত্তা), বরিশাল (২৬নং খিত্তা)।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব এজতেমা সফলভাবে সম্পন্নের লক্ষ্যে পুলিশের এক প্রেসব্রিফিং স্থানীয় শহীদ আহসান উল্লাহ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে। গাজীপুরের পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রেসব্রিফিং এ প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি এস.এম মাহফুজুল হক নুরুজ্জামানসহ পুলিশের উধ্বর্তন কর্মকর্তারা। বিশ্ব ইজতিমায় আগত মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তায়  দ্বিতীয় পর্বে  ৬হাজার ৭শ পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। তিনি আরো জানান, সার্বিক নিরাপত্তা মনিটরিং এর জন্য পুলিশের ৫টি ওয়ার্চ টাওয়ার কাজ করছে। এছাড়া মুসল্লি বেশে পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার কয়কশ সদস্য ইজতিমা ময়দানের ভিতরে খেত্তায় খেত্তায় অবস্থান করে আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখবেন।
গাজীপুর পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বলেন, দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমা উপলক্ষে ৬ হাজারের অধিক পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জেলা থেকে পুলিশ সদস্যরা এসে পৌঁছেছেন। প্রথম পর্বের ন্যায় এই পর্বেও পর্যবেক্ষণ টাওয়ার এবং সিসি টিভির মাধ্যমে নজরদারি, চেকপোস্ট পরিচালনা এবং ফুট পেট্রোলিং করছে পুলিশ সদস্যরা। এছাড়াও যেকোন ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলায় বোম্ব ডিস্পোজাল ইউনিট,স্ট্রাইকিং মোবাইল টিমের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিটি খিত্তায় প্রথম পর্বের চাইতে এই পর্বে আরোও বেশি সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছে। বিশেষ করে বিদেশী মুসল্লিদের জন্য ৮ শতাধিক সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্য নিয়োজিত করা হয়েছে। ইজতিমায় আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে ৫ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
গাজীপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমা উপলক্ষে ২০ জানুয়ারি থেকে ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত টঙ্গী ৫০শয্যা সরকারি হাসপাতালে^ সার্বক্ষণিক চিকিৎসক উপস্থিতি নিশ্চিত করে ইজতিমা ময়দানের জন্য ৫টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। ২৫ জন সেনেটারি ইন্সপেক্টর ইজতিমা ময়দানে দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়াও ১৪টি এম্বুলেন্স ইজতিমা ময়দানে আগত মুসল্লিদের সেবায় নিয়জিত থাকবে।
ইজতিমায় বিদেশী মেহমান : প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বিশ্ব ইজতিমা ময়দানে প্রায় শতাধিক দেশের বিদেশী মুসল্লি আসবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এব্যাপারে টঙ্গীর ইজতিমা আয়োজক কমিটির শীর্ষ মুরুব্বীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ইজতিমায় আগত বিদেশী মুসল্লিদের সঠিক সংখ্যা জানাতে না পারলেও দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায় বিশ্বের অন্তত শতাধিক দেশ থেকে প্রায় দশ সহস্রাধিক বিদেশী মেহমান দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায় অংশগ্রহণ করবেন। ইতোমধ্যে বিভিন্ন দেশের প্রায় কয়েক হাজার বিদেশী মুসল্লি ঢাকার কাকরাইল মসজিদ, উত্তরা, টঙ্গী ও আশপাশের এলাকার মসজিদে মসজিদে অবস্থান শেষে ইজতিমা ময়দানে জড়ো হয়েছেন। ইজতিমায় আগত বিদেশী মুসল্লিদের জন্য ইজতিমা ময়দানের পশ্চিম-উত্তর কর্ণারে বিশেষ নিবাস স্থাপন করা হয়েছে।

ইজতিমায় বিশেষ ট্রেন ও বাস সার্ভিস : ইজতিমা ময়দানে মুসল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায়ও বিআরটিসির শতাধিক স্পেশাল বাস সার্ভিস চলাচল করবে। বিআরটিসির একটি সূত্র জানায়, দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায় মুসল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে আব্দুল্লাহপুর-মতিঝিল ভায়া ইজতিমাস্থল, শিববাড়ী-মতিঝিল ভায়া ইজতিমাস্থল, টঙ্গী-মতিঝিল ভায়া ইজতিমাস্থল, গাজীপুর-চৌরাস্তা। মতিঝিল-ভায়া ইজতিমাস্থল, গাবতলী-গাজীপুর ভায়া ইজতিমাস্থল, গাবতলী-মহাখালী ভায়া ইজতিমাস্থল, গাজীপুর-মতিঝিল ভায়া ইজতিমাস্থল, মতিঝিল-বাইপাল ভায়া ইজতিমাস্থল বিআরটিসির বাস সার্ভিস চলাচল করবে।
এছাড়াও আজ শুক্রবার ঢাকা-টঙ্গী-ঢাকা দুটি জুম্মা স্পেশাল, দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতের আগের দু’দিন ঢাকা, জামালপুর ও আখাউড়া থেকে দুটি করে চারটি অতিরিক্ত ট্রেন পরিচালনা করা হবে বলে জানা গেছে।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ২৪ ঘণ্টা মুসল্লিদের সেবায়: দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতিমায়ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন আগত মুসল্লিদের ২৪ ঘণ্টা সেবাদান করবে। গাজীপুর সিটি মেয়র (ভারপ্রাপ্ত) আসাদুর রহমান কিরন জানান, সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রথম পর্বে যে সকল সেবা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে তা দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায়ও চালু থাকবে।
ডেসকো’ কর্তৃপক্ষ জানান, দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতিমায় সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহের সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। উত্তরা, টঙ্গী সুপার গ্রীড ও টঙ্গী নিউ গ্রীডকে মূল ১৩২ কেভি সোর্স হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে। যে কোন একটি গ্রীড নষ্ট হলেও সামগ্রিক বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘিœত হবে না বলে জানায় ডেসকো কর্তৃপক্ষ। ইজতিমা এলাকায় ৪টি স্ট্যান্ডবাই জেনারেটর এবং ৫টি ট্রলি-মাউন্টেড ট্রান্সফরমারও সংরক্ষণ করা হয়েছে মুসল্লিদের সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহ করার লক্ষ্যে।
দ্বিতীয় পর্বেও মুসল্লিদের জন্য সরকারি-বেসরকারি ফ্রি চিকিৎসা কার্যক্রম : দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায় আগত মুসল্লিদের ফ্রি চিকিৎসা সেবা দিতে প্রথম পর্বে প্রায় অর্ধশতাধিক সরকারি-বেসরকারি সংস্থা চিকিৎসা ক্যাম্প চালু করেছিল দ্বিতীয় পর্বের ইজতিমায়ও সেগুলো চালু থাকবে বলে জানা গেছে। ফ্রি চিকিৎসা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে-হামদর্দ ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন, ইসলামী ফাউন্ডেশন, ইবনেসিনা, টঙ্গী ঔষধ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি, হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, হোমিওপ্যাথি অনুশীলন কেন্দ্র, গাজীপুর জেলা সির্ভিল সার্জনসহ সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ইজতিমায় আগত মুসল্লিদের ফ্রি চিকিৎসা কার্যক্রম দ্বিতীয় পর্বেও চালু থাকবে বলে জানা গেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ