ঢাকা, শুক্রবার 20 January 2017, ৭ মাঘ ১৪২৩, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মুশফিক-ইমরুলের পর ছিটকে গেলেন মমিনুলও

স্পোর্টস রিপোর্টার : নিউজিল্যান্ডে সফরে কঠিন বাস্তবতার মুখোমুিখ বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ওয়ানডে আর টি- টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর টেস্ট সিরিজেও একই পরিণতি হতে পারে টাইগারদের। প্রথম টেস্টে ৭ উইকেটে হারার পর আজ দ্বিতীয় টেস্টে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। ক্রাইস্টচার্চে বাংলাদেশ সময় ভোর চারটায় টেস্টটি শুরু হবে। বাংলাদেশ টেলিভিশন আর চ্যানেল নাইন ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে। প্রথম টেস্টে আশা জাগিয়েও রেকর্ড করেই পরাজিত হয় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় টেস্টে দলকে আরো কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হতে  পারে। কারণ দ্বিতীয় টেস্টে মাঠে নামার আগেই ইনজুরিতে পরে দল থেকে ছিটকে গেছেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, ওপেনার ইমরুল কায়েস আর টেস্টে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক। ফলে দ্বিতীয় টেস্টে একাদশ সাজানোই কঠিণ দলের সামনে। ফলে দ্বিতীয় টেস্টে দলে ডাকা হয়েছে মুস্তাফিজুর রহমান, নাজমুল হাসান শান্ত আর নুলুল হাসান সোহানকে। এছাড়া সৌম্য সরকারকেও নেয়া হতে পারে। সেক্ষেত্রে এদের মধ্যে একজনকে বাদ দিতে হবে। আর আজ টেস্টে দলকে নেতৃত্ব দিবেন ওপেনার তামিম ইকবাল।  গতকাল সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তামিম ইকবাল শুধু মুশফিকুর রহিম ও ইমরুল কায়েসের ছিটকে যাওয়ার কথা জানান। এর কয়েক ঘণ্টা পর আরেকটি দুঃসংবাদ এলো- বাংলাদেশের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান মমিনুল শতভাগ ফিট নয়। ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে খেলতে পারবেন না তিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও এ খবর নিশ্চিত করেছে। অর্থাৎ ওয়েলিংটন টেস্টে  খেলা দলের তিনটি পরিবর্তন নিয়ে ক্রাইস্টচার্চে নামবে সফরকারীরা।  চোটে জর্জরিত হওয়ায় এখন বাংলাদেশের সেরা একাদশ সাজানো নিয়েই বিপদে টিম ম্যানেজমেন্ট। আগেই জানা গিয়েছিল ইমরুল ও মুশফিকের জায়গায় খেলানো হবে সৌম্য সরকার ও নুরুল হাসান  সোহানকে। ইমরুলের জায়গায় প্রথমবার টেস্টে ওপেনিং করবেন সৌম্য এবং মুশফিকের অনুপস্থিতিতে উইকেটের পেছনে দাঁড়াবেন নুরুল। আর এবার মমিনুল ছিটকে যাওয়ায় তার ফাঁকা জায়গা পূরণে ডাক পেয়েছেন নাজমুল হাসান শান্তকে। তবে ইতিমধ্যে দলে ডাকা হয়েছে মুস্তাফিজুর রহমানকে।  নিউজিল্যান্ড সফরে ওয়ানডে ও টি২০ ফরম্যাটে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ দল। দুটি সিরিজেই হোয়াইটওয়াশ হয়েছে টাইগাররা। সফরের দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ নিয়ে বেশ আশাবাদী ছিল দল। প্রথম টেস্টে হারার পর আশা ছিল দ্বিতীয় টেস্ট নিয়ে। কিন্তু এই টেস্টে মাঠে নামার আগে ইনজুরিই দলকে বিপদে ফেলে দিয়েছে।  ওয়েলিংটন টেস্টের প্রথম চার দিন বাংলাদেশ আধিপত্য বিস্তার করেই খেলে এসেছিল। তবে শেষ দিনের বিপর্যয়েই হার মানতে হয়েছে দলকে। মুশফিক ও ইমুরল চোটে না পড়লে হয়তো ম্যাচের ফলাফল অন্যরকমও হতে পারত। মুশফিক টেস্টের প্রথম ইনিংসে সাকিবের সঙ্গে জুটি গড়ে ১৫৯ রানের অসাধারণ একটি ইনিংস খেলেন। আর এই ইনিংসটি খেলাকালীন ডান হাতের বুড়ো আঙুল এবং তর্জনীতে চোট পান তিনি। এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে আবারও আঘাত পান টেস্ট অধিনায়ক। তবে এবার তার মাথার পেছনে হেলমেটে বল আঘাত করে। এ আঘাত ততটা গুরুতর না হলেও হাতের ইনজুরিতেই দ্বিতীয় টেস্ট থেকে বাদ পড়লেন সাদা পোশাকের অধিনায়ক।  প্রায় এক যুগ পর মুশফিককে ছাড়া খেলতে নামবে বাংলাদেশ দল। ২০০৫ সালে টেস্টে অভিষেক হওয়ার পর টানা ৪৯ টেস্টে খেলার পর এই প্রথম দলের বাইরে থাকবেন জাতীয় দলের মিডল অর্ডারের এই ব্যাটসম্যান। শুরুর দুটি টেস্টে ও ২০১৫ সালে তিনটি টেস্টে কেবল ব্যাটসম্যান হিসেবে  খেলেন মুশফিক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ