ঢাকা, শনিবার 21 January 2017, ৮ মাঘ ১৪২৩, ২২ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

স্কোরটা আরও বড় করতে পারলে ভালো লাগতো -সৌম্য সরকার

সৌম্য সরকার ৮৬

স্পোর্টস রিপোর্টার : নিউজিল্যান্ডে বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে প্রথম দিনেই ২৮৯ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। আর টেস্টে প্রথম ওপেন করতে নেমেই দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৬ রানে ইনিংস খেলেন সৌম্য সরকার। তার ৮৬ রানের উপর নির্ভর করেই বাংলাদেশ ২৮৯ রান করতে পারে। তবে দলের পক্ষে নিজের স্কোরটা আরো বড় করতে না পারার আক্ষেপ করলেন সৌম্য। গতকাল দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে সৌম্য সরকার নিজের ইনিংস নিয়ে আক্ষেপ করে বলেন,‘আরও যদি রান করতে পারতাম, আরেকটু সময় যদি টিকে থাকতে পারতাম। তাহলে দলের রান, নিজের রান দুটিই বাড়তো।’ তামিম ইকবাল বলেছিলেন সৌম্যর কাছে তিনি তার স্বাভাবিক খেলাটা আশা করেন। সে বিষয়টি উঠলে সৌম্য বলেন, ‘আমি আমার স্বাভাবিক খেলাটা খেলারই চেষ্টা করেছি। আরও রান যদি করতে পারতাম ভালো লাগতো।’ দলে নিজের সুযোগ পাওয়া নিয়ে সৌম্য বলেন, ‘টেস্টে যখন সুযোগ পেলাম, মনে করলাম এটি নিজেকে মেলে ধরার একটি সুযোগ। আমি আমার পক্ষে যা করা সম্ভব এর শতভাগ দলকে  দেওয়ার চেষ্টা করেছি। কিন্তু যা করেছি তাতে আমি সন্তুষ্ট না। আরেকটু সতর্ক হলে হয়তো আরও ভালো করতে পারতাম। তাতে দলের জন্যে ভালো হতো।’ গতকাল শেষের দিকে কনুইয়ে আঘাত পান পেসার রুবেল। রুবেলের আঘাত সম্পর্কে সৌম্য বলেন, ‘ওই সময়ে ড্রেসিং রুমে আমরা চিন্তিত হয়ে পড়েছিলাম। কারণ দলে তিনজন মাত্র পেস বোলার। এর একজন যদি চোটের শিকার হন তাহলেতো সর্বনাশ। তার প্রকৃত অবস্থা এখনও জানিনা। কিন্তু তিনি যেহেতু আবার উঠে দাঁড়িয়ে ব্যাট করেছেন, আশা করি তার সমস্যা বড় কিছু না।’ উইকেট সম্পর্কে সৌম্য বলেন, ‘সকালে উইকেট পুরোটা সবুজ ছিল। তখন বেশ কঠিন ছিল নতুন বলে খেলা। কিন্তু আস্তে আস্তে তা ব্যাটসম্যানকে সহায়তা দিতে শুরু করে। তাই আমার মনে হয়েছে উইকেটে যদি কেউ আঁকড়ে টিকে থাকে একটু কষ্ট করলে তাহলে এখানে রান করা সম্ভব।’ বোলারদের কী করতে হবে এমন প্রশ্নে সৌম্য বলেন, ‘এমনভাবে বল করতে হবে যাতে দশটা উইকেট নেওয়া যায়। উইকেটে ঠিকমতো বল ফেলতে হবে। উইকেটের এমন একটি জায়গা আছে যেখানে বল করলে বল খুব টার্ন করে। সেখানে বল ফেলতে হবে।’ এর আগে কখনো টেস্টে ওপেন করেননি সৌম্য সরকার। গতকাল ওপেন করেছেন তামিমেসর সাথে। এ নিয়ে সৌম্য বলেন, ‘ওপেনিংয়ে বরাবরই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি। কিন্তু যেহেতু তামিম ভাই, ইমরুল ভাই অনেক দিন ধরে ওপেন করছেন, তারা ভালো করছেন। তাই এখানে অন্যকিছু ভাবা হয়নি। ইচ্ছা ছিল যদি কোনও দিন সুযোগ পাই, তাহলে সুযোগটা কাজে লাগিয়ে নিজেকে প্রমাণ করার চেষ্টা করবো। আজ চোট বা যে কারণেই হোক দেশের বাইরের মাঠে যখন সুযোগ পেয়েছি নিজেকে প্রমাণের। তখন টিমকে কিছু দেওয়ার চেষ্টা করেছি। যতটুকু সম্ভব ইমরুল ভাইয়ের জায়গাটা পূরণের চেষ্টা করেছি।’ দুই অভিষিক্ত নুরুল হাসান সোহান, নাজমুল হাসান শান্ত’র ব্যাপাওে সৌম্য বলেন, ‘ওরা ভালো করেছে। ওদের সঙ্গে সিনিয়র  কেউ থাকলে আরও ভালো হতো। আর শেষ দিকে কামরুল ইসলাম রাব্বী যেভাবে উইকেটে পড়েছিল অপর প্রান্তে আমি থাকলে হয়তো আরও কিছু রান করতে পারতাম। সংবাদ সম্মেলনে আসার আগে তাকে আমি এ কথাটাই বলে এসেছি।’ প্রথম ইনিংসে কত রানের লক্ষ ছিল জানতে চাইলে দল সৌম্য বলেন, ‘লক্ষ্য নির্ধারণ করে কেউ মাঠে নামে না। আমাদের সবার ইচ্ছা ছিল বোর্ডে যত বেশি রান দেওয়া যায়। প্রথম দুটি উইকেট পড়ে যাওয়ার পর আমি আর সাকিব ভাই জুটিটা বড় করার চেষ্টা করেছি। আমি আউট হওয়ার পর দ্রুত কয়েকটি উইকেট পড়ে যায়। এভাবে আমরা কিছুটা ব্যাকফুটে চলে যাই। ওই সময় যারা এসেছেন তারা আরও কিছু রান দিলে বোর্ডের অবস্থা আরও ভালো হতো।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ