ঢাকা, মঙ্গলবার 24 January 2017, ১১ মাঘ ১৪২৩, ২৫ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শপথগ্রহণ

দেশে বিদেশে ব্যাপক সহিংসতা, তীব্র বিতর্ক, প্রতিবাদ আর সমর্থকদের উচ্ছ্বাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে গত শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর বারোটায় ডোনাল্ড জে ট্রাম্প বাইবেলে হাত রেখে শপথ নিয়েছেন। ৩৫ শব্দের এই শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেছেন মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস।
অনেকের মতে ২০১৫ সালের ১৫ জুন কোটিপতি এই ব্যবসায়ী প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিজের যখন প্রার্থিতা ঘোষণা করেন তখন কম মানুষই মি. ট্রাম্পকে পৃথিবীর একক পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হতে পারবেন বলে বিশ্বাস করেছিলেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন অত্যন্ত যোগ্য ও শক্ত। কিন্তু তা সত্ত্বেও নারীদের শীর্ষ পদে নিয়োগ ও নির্বাচন নিয়ে মার্কিনীদের চিরাচরিত অনীহা-ঐতিহ্যের কথা স্মরণ করে অনেকেই তখন বলেছিলেন যে, শেষ পর্যন্ত ট্রাম্পই জিতবেন এবং তাই হয়েছে। মি. ট্রাম্প নারী বিদ্বেষেরও পরিচয় দিয়েছেন এবং নারীদের সম্পর্কে তার অশালীন মন্তব্য বিশ্বব্যাপী প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে। তার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের দিন এবং তার পরদিন যুক্তরাষ্ট্রসহ দুনিয়ার বিভিন্ন দেশে লাখ লাখ নারী রাস্তায় নেমে এসে ট্রাম্প বিরোধী বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন এবং স্লোগান দিয়েছেন। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে তার অবমাননাকর বক্তব্যও নানা প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে। তবে ভারতসহ কয়েকটি দেশে তার শপথ গ্রহণকে অভিনন্দন জানিয়ে মানুষ নানা উৎসবে নেমে পড়েছিলেন বলেও জানা যায়। তবে একথা সত্য যে, তিনি নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট এবং নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হিসেবে অভিনন্দন পাবার যোগ্য। আমি তাকে অভিনন্দন জানাই।
ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম প্রেসিডেন্ট যিনি নতুন কিছু ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন, যেমন : তিনি নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরাসরি বিদেশী সরকারসমূহের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণের অনুমতি দিয়েছেন, যা মার্কিন সংবিধানের পরিপন্থী। এ জন্য হোয়াইট হাউসের কয়েকজন আইনজীবী অদ্য সোমবার তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করার কথা রয়েছে। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট। গত জুন মাসে তিনি ৭০তম জন্মদিবস পালন করেছেন, ইতঃপূর্বে আরো একজন বয়স্ক প্রেসিডেন্ট সে দেশের দায়িত্ব নিয়েছিলেন, তিনি হচ্ছেন রোনাল্ড রিগ্যান। ১৯৮১ সালে দায়িত্ব নেয়ার সময় তার বয়স ছিল ৬৯ বছর। বয়স নিয়ে কথা উঠতে পারে ভেবেই তিনি ডাক্তার দিয়ে একটি সার্টিফিকেট লিখিয়ে নিয়েছিলেন যাতে ডা. হেরাল্ড বর্নস্টেইন মি. ট্রাম্পকে এ যাবৎ জয়লাভ করা প্রেসিডেন্টদের মধ্যে সবচাইতে স্বাস্থ্যবান প্রেসিডেন্ট বলে উল্লেখ করেছেন। বলাবাহুল্য যুক্তরাষ্ট্রে ইতঃপূর্বে দায়িত্ব পালন করা ৪৪ জন প্রেসিডেন্টের গড় বয়স ছিল ৫৫ বছর, সবচেয়ে কম বয়স ছিল প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্টের, ৪৩ বছর। অন্যান্য ঘটনাগুলোর মধ্যে রয়েছে :
# ট্রাম্পের শপথগ্রহণের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় প্রত্যেকটি অঙ্গরাজ্যে লাখ লাখ লোকের বিক্ষোভ, বিক্ষোভকারীরা গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে এবং লুটপাট করেছে।
# বিবিসির টুইটার হ্যাক হয়েছে এবং ট্রাম্পকে গুলীর খবর পাওয়া গেছে।
# ডোনাল্ড ট্রাম্প আমেরিকার সবচেয়ে বেশি সম্পদশালী প্রেসিডেন্ট, তার ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ ৩৭০ কোটি ডলারের বেশি। তার মা যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন একজন গৃহকর্মী হিসেবে। এর আগে ঐ দেশে অনেক ধনী প্রেসিডেন্ট ছিলেন। আজকের ডলারের মানে জর্জ ওয়াশিংটনের সম্পদের পরিমাণ ছিল প্রায় ৫০ কোটি ডলার। মি. ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে মাসে ১ ডলার বেতন নিবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।
# তিনি তার যে মন্ত্রিসভা ঘোষণা করেছেন ইতিহাসে তা সবচেয়ে ধনী মন্ত্রিসভা হিসেবে পরিগণিত হবে। ওয়াশিংটন পোস্টের হিসাব অনুযায়ী বাণিজ্যমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত মি. উইবার রসের সম্পদের পরিমাণ আড়াইশ’ কোটি ডলারের সমপরিমাণ। বলা হচ্ছে যে তার একার সম্পদই ২০০১ সালে জর্জ বুশের গঠিত মন্ত্রিসভার সকল সদস্যের সম্পদের দশ গুণ। প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী ট্রাম্প মন্ত্রিসভার সকল সদস্যের মিলিত সম্পদের পরিমাণ সাড়ে তিন হাজার কোটি ডলারের বেশি হবে।
# মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গত ৬ দশকের ইতিহাসে ট্রাম্পই হচ্ছেন সম্ভবত একমাত্র প্রেসিডেন্ট যার রাজনৈতিক কোনো অভিজ্ঞতা নেই, যিনি কোনো অঙ্গরাজ্যের গভর্নর অথবা কংগ্রেস সদস্য হিসেবে কাজ করেননি। অবশ্য এর আগে ১৯৫৩ সালে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট আইসেন হাওয়ারেরও কোনো অভিজ্ঞতা ছিল না। তবে তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে Allied Force-এর সুপ্রিম কমান্ডার ছিলেন। অপর একজন প্রেসিডেন্ট হার্বার্ট হুভার ছিলেন একজন প্রকৌশল ও মানবতাবাদী।
# মি. ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবার পর তার মেয়ের জামাই জেরেড কুশনারকে সিনিয়র উপদেষ্টা নিয়োগ করে স্বজনপ্রীতির অভূতপূর্ব দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।
# প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মুক্ত বাণিজ্যের সম্পূর্ণ বিরোধী। তার ভাষায় মুক্ত বাণিজ্যের কারণেই আমেরিকানদের এখন কোনও কাজ নেই। তার এই শ্লোগান আমেরিকানদের তার প্রতি যথেষ্ট আকৃষ্ট করেছে বলে মনে করা হয়। তিনি চীন বিরোধী। তিনি মনে করেন ‘চীন আমেরিকানদের মেরে ফেলছে।’ চীনাদের ‘খেলা বন্ধ’ করবার জন্য তিনি ১২% পর্যন্ত আমদানি শুল্ক আরোপ করতে প্রস্তুত আছেন বলে ‘ইকোনমিস্টকে’ জানিয়েছেন।
# প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মুসলিম বিদ্বেষী হিসেবে পরিচিত। তিনি সারা দুনিয়ায় ইসলামী সন্ত্রাস বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছেন। ইসলামী সন্ত্রাস বলতে তিনি কি বুঝিয়েছেন তা অবশ্য পরিষ্কার নয়। কেননা ইসলাম সন্ত্রাসে বিশ্বাস করে না। সন্ত্রাসী হিসেবে মুসলমান ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও রাষ্ট্রকে সন্দেহ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো গত কয়েক দশক ধরে যে তা-ব চালিয়েছে তার যৌক্তিকতা খুঁজে পাওয়া যায়নি। জাতিসংঘের তদন্ত রিপোর্টে পরিষ্কার নেতিবাচক তথ্য থাকা সত্ত্বেও সাদ্দাম হোসেনের কাছে মানবতা বিধ্বংসী অস্ত্র রয়েছে এই মিথ্যা ধারণার ভিত্তিতে মার্কিন যুুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে ইরাক বিজয় এবং সাদ্দামের হত্যা প্রমাণ করেছে যে, ইরাকের ৫০ ট্রিলিয়ন ডলার মূল্যের স্বর্ণ এবং তেল সম্পদ দখল করাই ছিল ইরাক আক্রমণের মূল লক্ষ্য। নাইন ইলেভেনের সাথে সাদ্দামের সম্পৃক্ততাও খুঁজে পাওয়া যায়নি। এর পর তারা আফগানিস্তান আক্রমণ করেছে, লক্ষ লক্ষ লোক হত্যা করে তাদের বাড়িঘর ও সামাজিক অর্থনৈতিক স্থাপনা ধ্বংস করেছে। উদ্দেশ্য ছিল পপি ক্ষেত ও লিথুয়াম খনি নিরাপদ রাখা। বলাবাহুল্য, তালেবানরা আগেই পপি ক্ষেত ও পপি চাষ ধ্বংস করে দিয়েছিল। আফগানিস্তান ধ্বংস করে তারা লিবিয়াকে ধ্বংস করে। উদ্দেশ্য ছিল গাদ্দাফির ২২ টনেরও বেশি স্বর্ণ এবং ৩০ ট্রিলিয়নের বেশি ডলার সমমূল্যের রিভার পাইপলাইনের দখল নেয়া, তেল হিরা জহরত ও রোপ্য সম্পদ তো আছেই। সারা দুনিয়ায় তারা স্বর্ণ, রৌপ্য, তেল, মাদক সামগ্রী এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদের জন্য যুদ্ধ করছে এবং গণহত্যা চালাচ্ছে আর সন্ত্রাসের দোষ দিচ্ছে মুসলমানদের উপর। মুসলমান মুসলমানে যুদ্ধ লাগিয়ে দিয়ে উভয়পক্ষের কাছে অস্ত্র বিক্রি করে চুটিয়ে ব্যবসা করছে। কি বিচিত্র তাদের স্বভাব! আর আমরাও একটা গ্রুপ তাদের সাথে কণ্ঠলগ্ন হয়ে নাচানাচি করছি।
আমার বিশ্বাস দায়িত্ব গ্রহণের আগে ও পরে মানুষের ধ্যান ধারণার পরিবর্তন হয়। দায়িত্বের বোঝা দায়িত্বশীল করতে তাকে সাহায্য করে। বিশ্বের একমাত্র পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এর রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা না থাকলেও বৈষয়িক অভিজ্ঞতা প্রচুর; তা না হলে তিনি শত শত কোটি ডলার সম্পত্তির মালিক হতে পারতেন না। পরাশক্তির প্রধান হিসেবে সারা দুনিয়ার প্রতি তার দায়িত্ব অপরিসীম। ইনসাফ, মানবতা ও বাস্তবতাকে সামনে রেখে তিনি সকল জাতিগোষ্ঠী ও ধর্ম সম্প্রদায়ের মানুষের প্রতি সুবিচার করবেন এবং বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখবেন বলে আমি মনে করি। তার দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা শক্তিগুলো সারা বিশ্বে মুসলমানদের উপর যে অত্যাচার নির্যাতন চালাচ্ছে ও তার ইন্ধন দিচ্ছে আমরা তার অবসান কামনা করি। ইসলাম সন্ত্রাসের ধর্ম নয় শান্তির ধর্ম, যারা সন্ত্রাস করে গণহত্যা চালায় তাদের সাথে ইসলামের সম্পর্ক নেই। তার দেশেরই সরকারি সংস্থা এফবিআই-এর সাক্ষ্য। তাদের ২০১৪ সালের এক রিপোর্টে তারা প্রকাশ করেছেন যে, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে পাঁচ বছরে যত সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটেছে তার পাঁচ শতাংশের কম ঘটনার জন্য দায়ী মুসলমানরা। এর মধ্যে মাত্র তিন শতাংশ ঘটনা আছে যার জন্য দায়ী সোমালিয়া, ফিলিস্তিন, কাশ্মীরসহ বিভিন্ন মুসলিম অধ্যুষিত এলাকার নির্যাতিত ব্যক্তিরা যারা তাদের অবস্থাকে দুনিয়ার সামনে হাইলাইট করার জন্য এই জঘন্য কাজ করেছে। আবার দুই শতাংশের কম ব্যক্তি আছে যারা সন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত ছিল সন্ত্রাসী হিসেবে, ধর্মীয় কারণে নয়।
আর কে না জানে যে, আইএস বা ইসলামিক স্টেট নামে যে প্রতিষ্ঠান সিরিয়াসহ দুনিয়ার বিভিন্ন দেশে সন্ত্রাস করছে তার আর্কিট্যাক্ট মুসলমানরা নয়, ইহুদী খৃস্টানরা। এই সত্য কথাটি বিশ্বের শক্তিধর দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টকে অবশ্যই জানতে হবে। যুক্তরাষ্ট্র অভিবাসীদের দেশ, এটাও তাকে জানতে হবে। আমরা তার কাছ থেকে অনেক কিছু প্রত্যাশা করি। তিনি যদি অজ্ঞতা নিয়ে দেশ চালান তাহলে সোভিয়েত রাশিয়ার ভাগ্য যুক্তরাষ্ট্রকেও বরণ করতে হবে। তার অভিষেক উপলক্ষে এর অনেক লক্ষণ পরিলক্ষিত হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ