ঢাকা, বুধবার 25 January 2017, ১২ মাঘ ১৪২৩, ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

এমপি লিটন হত্যা সন্দেহে আরও গ্রেফতার ৭ 

গাইবান্ধা সংবাদদাতা : সুন্দরগঞ্জের এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ অভিযান চালিয়ে জামাত-বিএনপির ৭ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করেছে। এ নিয়ে গত ৫ দিনে পুলিশী অভিযানে ৬০ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। এদিকে এমপি লিটন হত্যা মামলার আসামী ঘনিষ্ঠ সহচর ইমামগঞ্জ ফাজিল মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডিএম মাসুদার রহমান মুকুল ওরফে মিসকিন মুকুল এবং উপজেলা জামাতের আমীর ইউনুস আলীর বড় ছেলে সাইফুল ইসলামের ৩ দিনের রিমান্ড নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আশরাফুজ্জামান। অপরদিকে এমপির গাড়ি চালক ফোরকান এবং কাজের ছেলে ইউসুফ আলীকে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে। ১৬ জানুয়ারি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদেরকে থানায় নিয়ে আসে। তদন্তের স্বার্থে তথ্য প্রকাশ করছে না পুলিশ।

 সোমবার সন্ধ্যা হতে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ জামাত-বিএনপির ৭ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-মধ্য বেলকা গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে নুরুল আমিন, পৌর সভার ৩নং ওয়ার্ডের আব্দুস সামাদ মুন্সির ছেলে নুর আমিন, খামার পাঁচগাছি গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে হায়দার আলী, পশ্চিম বৈদ্যনাথ গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে হারুন অর রশিদ, সতিরজান গ্রামের নায়েব উদ্দিনের ছেলে হাসেন আলী, পশ্চিম মনমথ গ্রামের হেসাব উদ্দিনের ছেলে সাখাওয়াত হোসেন, মধ্য শান্তিরাম গ্রামের আজিম উদ্দিনের ছেলে আমিনুল ইসলাম। এদিকে পুলিশের বিশেষ অভিযান অব্যাহত থাকায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় জামায়াত-শিবির ও বিএনপির নেতা-কর্মী শূন্য হয়ে পড়েছে। এমপি লিটন হত্যা মামলায় পুলিশ আজ পর্যন্ত কোন প্রকার তথ্য প্রকাশ করেনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ