ঢাকা, বুধবার 25 January 2017, ১২ মাঘ ১৪২৩, ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সৈয়দপুরে যানজট নিরসনে নাকাল ট্রাফিক

সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা: নীলফামারীর বাণিজ্যিক শহর সৈয়দপুরে বর্তমানে যানজট ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। দিনের বেলা শহরে ভারী যানবাহন প্রবেশ ও ট্রেন চলাচলে ১২ বার রেলগেট ফেলার কারণসহ যত্রতন্ত্র রিকশা ভ্যান দাঁড়িয়ে থাকা ও দোকানদাররা ফুটপাথ দখলে নেওয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে ট্রাফিক পুলিশকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। অনেকটা বাধ্য হয়ে ট্রাফিক পুলিশ বাঁশির পাশাপাশি লাঠি ও সূয়া ব্যবহার করছেন।
উত্তরের প্রবেশদ্বার ও ৮ম বাণিজ্যিক শহর হিসাবে বিবেচিত সৈয়দপুর হয়ে দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, বাংলাবান্ধা, রংপুর, নীলফামারী জেলার যানবাহন চলাচল করে থাকে। সৈয়দপুরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল হয়ে রাবেয়া ফ্লাওয়ার মিলের বাইপাস সড়কে চলাচল করার কথা থাকলেও প্রায় নিয়ম ভঙ্গ করেন। শহরে দিনের বেলা ভারী যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কেউ এই নিয়ম মানেন না।
সৈয়দপুর থেকে আন্তঃনগর ট্রেনসহ লোকাল ট্রেনগুলো ১২ বার শহরের ভেতর দিয়ে চলাচল করে থাকে। এ কারণে ওই সময় রেলগেট বন্ধ রাখতে হয়। এসময় দিনের বেলায় স্কুল- কলেজগামী শিক্ষার্থীদের চাপ থাকে। ফলে সৈয়দপুরে ভয়াবহ যানজটের সৃষ্টি হয়। ইজিবাইক, রিকশা ও ভ্যানের নির্ধারিত স্ট্যান্ড থাকলেও যত্রতত্র দাঁড়িয়ে যাত্রী ওঠানামা করায় শহরে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।
শহরের দোকানপাটগুলো ফুটপাথ দখল করে পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন। বার বার উচ্ছেদ করা হলেও তারা দখল না ছাড়ায় ফুটপাথ সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় পৌরসভার সড়কগুলোতে ট্রাক দাঁড় করিয়ে মালামালা ওঠানামা করার কারণে যানজটের ভয়াবহতা সৃষ্টি হচ্ছে। এতে করে অ্যাম্বুলেন্স ও দমকল বাহিনীর গাড়িও ঘন্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকে। অপরদিকে বিমানের যাত্রীরা প্রায় বিমান মিস করছেন। “এই রাস্তায় ট্রাক প্রবেশ করা দণ্ডনীয় অপরাধ”- আদেশক্রমে সৈয়দপুর পৌরসভা। এমন সাইনবোর্ডটি দণ্ডায়মান সৈয়দপুর শহরের অন্যতম প্রধান সড়ক পৌরসভা রোডে। তবুও ঘণ্টার পর ঘণ্টা ট্রাক, পিকআপ দাঁড় করিয়ে মালামাল তোলা হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ