ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 January 2017, ১৩ মাঘ ১৪২৩, ২৭ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সরকার সমর্থক কয়েকটি সংগঠনের হরতাল বিরোধী মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার : সুন্দরবনের কাছে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প বাতিল চেয়ে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ডাকা হরতালের বিপক্ষে মানববন্ধন করেছে সরকার সমর্থক কয়েকটি সংগঠন। গতকাল বুধবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত এই মানববন্ধন থেকে গতকাল বৃহস্পতিবারের হরতাল প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। 

গতকাল সকাল সাড়ে ৯টায় মানববন্ধন করে হরতাল প্রতিরোধ কমিটি। আয়োজকদের পক্ষে আবদুল খালেক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নে সর্বোচ্চ নজর দিয়েছেন। এ সময় হরতাল করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির চেষ্টা চলছে।

বক্তারা বলেন, যারা বিজ্ঞ-জ্ঞানী তাদের বলব, ২৬ জানুয়ারি হরতাল বন্ধ করুন। যারা হরতাল চায় তারা দেশের বিরুদ্ধে, উন্নয়নের বিরুদ্ধে। সরকারকে বলব, যে কোনোভাবে হরতাল প্রতিরোধ করুন। হরতাল হতে দেয়া হবে না।

এর আগে হরতালের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে কৃষক-শ্রমিক পার্টি । মানববন্ধন সমাবেশে প্রতিরোধ কমিটির মহাসচিব শেখ হাবিবুর রহমান, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টির মহাসচিব মিজানুর রহমান মিজু, জাগো বাঙালির সহসভাপতি মিজানুর রহমান লিটন, কৃষক শ্রমিক পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল হক বশির, হাকিম আনসার আহমেদ সিদ্দিকী, আশরাফ আলী হাওলাদার বক্তব্য রাখেন।

বেলা ১১ টায় ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ন্যাপ-ভাসানীর একাংশ মানববন্ধন করে। কাজী আরেফ ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী মাসুদ আহমেদ, গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলনের সভাপতি আশরাফ আলী হাওলাদার, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টির চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু ও ভাসানী ন্যাপের চেয়ারম্যান এম এ ভাসানী এ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন।

এদিকে আজ বৃহস্পতিবারের রামপাল বিদ্যুত নির্মাণের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবারে ডাকা আধাবেলা হরতালকে জনগণের স্বার্থবিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করেছে বাংলাদেশ হরতাল প্রতিরোধ কমিটি নামের একটি সংগঠন। তারা বলেছে, বিশেষ শ্রেণির স্বার্থ রক্ষার জন্যই এই হরতাল ডাকা হয়েছে। বক্তারা বলেন, হরতাল জনগণের রোজগারের পেটে লাথি মারে। জ্বালাও-পোড়াওয়ের হরতাল জনগণ চায় না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ