ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 January 2017, ১৩ মাঘ ১৪২৩, ২৭ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

স্টার জলসা ও জি বাংলা বন্ধে রিটের রায় ২৯ জানুয়ারি

স্টাফ রিপোর্টার : অপসংস্কৃতির আগ্রাসনের অভিযোগ এনে বাংলাদেশে ভারতীয় টিভি চ্যানেল স্টার জলসা, স্টার প্লাস ও জি বাংলা বন্ধে করা রিটের রায় ঘোষণার জন্য ২৯ জানুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করেছেন হাইকোর্ট।

গতকাল বুধবার বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি জেবিএম হাসান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ রিটের চূড়ান্ত শুনানি শেষে রায়ের জন্য এই দিন নির্ধারণ করেন।

রিট আবেদনের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন রিটকারী আইনজীবী মো. একলাছ উদ্দিন ভূইয়া। স্টার জলসা, স্টার প্লাসের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী আব্দুল মতিন খসরু।

২০১৪ সালের ১৯ অক্টোবর রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানিতে ভারতীয় এই তিনটি টিভি চ্যানেল বন্ধে নির্দেশ কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্টের ওই বেঞ্চ। রুলে তথ্যসচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, বিটিআরসি চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের জবাব দিতে বলা হয়।

এর আগে ডাক ও রেজিস্ট্রিযোগে এ বিষয়ে একটি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়।

২০১৪ সালের ২ আগস্ট দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকায় ‘পাখি প্রেমে প্রাণ বিসর্জন’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘দেশের ঘরে-ঘরে বাড়ছে ভারতীয় ধারাবাহিক নাটকের জনপ্রিয়তা। এসব সিরিয়াল-প্রীতির কারণে দেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো ক্রমেই দর্শক হারাচ্ছে, দেশ হারাচ্ছে নিজস্ব সংস্কৃতি। কিশোরী-তরুণীদের ফ্যাশনেও এর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। সর্বশেষ, ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল স্টার জলসার ‘বোঝে না সে বোঝে না’ সিরিয়ালের ‘পাখি’র প্রেমে প্রাণ গেল এক যুবক ও মেয়ে শিশুর।’ ‘পাখি চরিত্রে রূপদানকারী তরুণীর পোশাকের অনুকরণে এবার ‘পাখি’ নামের একটি পোশাক দেশের ঈদবাজারে জমজমাট ব্যবসা করেছে। ঈদে চড়া মূল্যের এ জামা নতুন স্ত্রীকে কিনে দিতে না পারার ব্যর্থতায় আত্মহত্যা করেছে প্রান্তিক শ্রেণির এক যুবক। ঈদের আগের দিন বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের নন্দতেঘরী গ্রামে শাহীন নামের ওই যুবক আত্মঘাতী হয়।

পাখির মরণকামড় থেকে ছাড় পায়নি দশ বছরের শিশুও। পাখি নামের পোশাক না পেয়ে অভিমানে ঈদের দু’দিন আগে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে নূরজাহান নামে দ্বিতীয় শ্রেণীর এক স্কুল শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। এ কারণেই সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে জনস্বার্থে ভারতীয় চ্যানেল বন্ধ চেয়ে রিট করা হয় বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ