ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 January 2017, ১৩ মাঘ ১৪২৩, ২৭ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় ওপারে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে ৬ হাজার পণ্য বোঝাই  ট্রাক আটকা পড়ে আছে ॥ সমাধান না হলে আন্দোলন

বেনাপোল সংবাদদাতা : বেনাপোল বন্দরের প্রবেশের অপেক্ষায় ওপারে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে ৬ হাজার পণ্য বোঝাই  ট্রাক আটকা পড়ে আছে দিনের পর দিন। আমদানি রফতানি বাণিজ্যে অব্যবস্থাপনা আগামী ৭ দিনের মধ্য সমাধান না হলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোশিয়েশন। 

গতকাল বুধবার দুপুরে বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোশিয়েশন মিলনায়তনে এক সাংবাদিক সংম্মেলনে এই ঘোষণা দেন নেতৃবৃন্দ। সম্মেলনে বন্দরের অব্যবস্থাপনার ওপর বক্তব্য রাখেন এসোশিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন  এসোশিয়শনের সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক লতা। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, এসোশিয়েশনের সিনিয়র সভাপতি ও  নুরুজ্জামান , আলাহাজ্ব খাইরুজ্জামান মধু , কামাল উদ্দিন শিমুল,  মহসিন মিলন, ও জামাল হোসেন।  নেতৃবৃন্দ বলেন, বন্দরে জায়গা না থাকায় মালামাল বন্দরের বাইরে রেল লাইনের  পাশে গর্তে ফেলে রাখা হচ্ছে যত্রতত্র। বেনাপোল বন্দর দিয়ে বছরে ২০ হাজার কোটি টাকার মালামাল আমদানি হয় এবং বন্দরে থেকে বছরে ৭ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আয় হলেও বন্দর উন্নয়নে তেমন কোন মাথা ব্যাথা নেই কর্তৃপক্ষের। বন্দরে নতুন শেড নির্মান,বাইপাশ সড়ক নির্মান ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে ইনটিগ্রেটেড চেকপোস্ট ন্যায় বেনাপোল বন্দরকেও আধুনিকায়নের জোর দাবি জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। 

নেতৃবৃন্দ বলে দক্ষিন এশিয়ার মধ্যে বেনাপোল বন্দর সর্ববৃহত স্থল বন্দর হলেও এটি আজো ডিজিটালাইজড করা হয়নি , বসানো হয়নি সিসি ক্যামেরা। বন্দরে নেই বিএসটিআই অফিস। কাস্টমস ও বন্দরে রয়েছে কর্মকর্তা ও কর্মচারী সংকট ফলে  ব্যহত হচ্ছে শুল্কায়ন ও পণ্য খালাশে বিলম্ব ঘটছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ