ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 January 2017, ১৩ মাঘ ১৪২৩, ২৭ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

টাঙ্গাইলে অদ্ভূত শিশুর জন্ম

দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা : টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে ভয়ঙ্কর আকৃতির এক অদ্ভূত শিশুর জন্ম নিয়েছে। শিশুটি দেখতে অনেকটাই বাঘের আকৃতির মতো। দুই হাত পা বিশিষ্ট শিশুর মনিবিহীন লাল গোলাকার বড় বড় চোখ রয়েছে। মুখমন্ডল গোলাকৃতি ও তার খাওয়ার মুখ অনেকটাই বড়। ঠোঁট দুটি মোটা এবং মুখের ভেতর দুইটি বড় দাঁত লক্ষ্য করা গেছে। পুরো শরীরে লাল রেখাকৃতি রয়েছে দেখলে যেনো মনেহয় রক্তাক্ত কাটা চিহ্ন। 

গত মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে মাঈন উদ্দিন ও আজিরনের কোলে আসে যমজ দুই সন্তান। একটি ছেলে আরেকটি মেয়ে। ছেলে শিশুটি সুস্থ হলেও মেয়ে সন্তানটি জন্মেছে বিকৃত চেহারা নিয়ে। শিশুটির বাবা মাঈন উদ্দিনের বাড়ি দেলদুয়ার উপজেলার চন্ডী গ্রামে। জন্মের পরই সুস্থ শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে অসুস্থ শিশুটিকে ফেরৎ পাঠিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসকরা। এরপর বিকৃত শিশুটি মা-বাবার কোলের আদর থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়ে আছে ঘরের মেঝেতে। তাকে সেবা যতœ করছেন প্রতিবেশীরা। চিকিৎসক ও প্রতিবেশীদের ধারণা শিশুটিকে হয়তো বাঁচানো যাবে না। প্রতিবেশীরা শিশুটির মুখে দুধ তুলে দিলেও পান করতে পারছে না বিকৃত শিশুটি। তবে বিকাল সাড়ে চারটার দিকে চন্ডী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় শিশুটি বেঁচে আছে।

টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ও সেবিকারা বলেন, শিশুটিকে হয়তো বাঁচানো যাবে না। অপর শিশুটিকে বাঁচানোর জন্য চিকিৎসা দিতে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে।  অদ্ভূত এই শিশুটির ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পরলে শিশুটিকে দেখার জন্য অসংখ্য মানুষের ভিড় পরে যায় দেলদুয়ার উপজেলার চন্ডী গ্রামে। তবে শিশুটির পাশে নেই তার মা-বাবা। সুস্থ শিশুটিকে বাঁচাতে ব্যস্ত মা-বাবা। শিশুটি জন্মের পর কাছে পাচ্ছে না তার মা-বাবাকে। আদর কী জিনিস বুঝে উঠছে না শিশুটি। নিষ্পাপ শিশুটির অপরাধ সে বিকৃত চেহারা নিয়ে জন্মেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ