ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 January 2017, ১৩ মাঘ ১৪২৩, ২৭ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কবর থেকে শিশুর লাশ উত্তোলন

আতাইকুলা (পাবনা) সংবাদদাতা: ১৪ মাস পর ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কায়ছারুল ইসলাম এর নেতৃত্বে একটি টিম সাফিউল্লাহ(৪) নামে একটি শিশুর লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়। ঘটনাটি গতকাল সোমবার দুপুরের দিকে। পারিবারিক ও থানা সূত্রে জানা যায় সোমবার দুপুরের দিকে পাবনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কায়ছারুল ইসলাম, ডাক্তার শারমীন শবনম, পাবনা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও আতাইকুলা থানা পুলিশের উপস্থিতিতে আলোকচর গ্রামের  কেন্দ্রীয় কবর স্থান থেকে সাফিউল্লাহ(৪) নামের একটি শিশুর লাশ উত্তোলন করা হয়। সে আলোকচর গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায় ১৪ মাস পূর্বে প্রতিবেশী খোরশেদ আলম মাস্টারের বাড়ীর পিছনের পুকুর থেকে শিশু সাফিউল্লাহর লাশ ভাসমান অবস্থায় দেখতে এলাকাবাসী। ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করা হয়। কিছুদিন পরেই খোরশেদ আলম মাস্টারের পুকুর পারে বাঁশ ঝারে মাটিতে পুঁতে রাখা শিশু সাফিউল্লাহ ব্যবহার করা স্যান্ডেল পাওয়া যায়। এতে সফিউল্লাহকে হত্যা করা হয়েছিল বলে সন্দেহ ঘণীভূত হয়। এ ব্যাপারে চাচা মিজানুর রহমান বাদী হয়ে প্রতিবেশী মোখলেছুর রহমানকে প্রধান আসামী করে আতাইকুলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর-০৩ তারিখ-০৯/১০/২০১৬ ইং। ধারা ৩৬৪/৩০২/৩৪ দ-বিধি। এ ব্যাপারে পাবনা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি পরিদর্শক ইসলাম মোবাইল ফোনে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শিশু সাফিউল্লাহর লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে ডিএনএ টেস্টের জন্য ঢাকা পাঠানো হবে। তাকে হত্যা করা হয়েছে নাকি সে পানিতে ডুবে মারা গেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ