ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 January 2017, ১৩ মাঘ ১৪২৩, ২৭ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিএনপি নেতা ও সাবেক মন্ত্রী নুরুল হুদার ইন্তেকাল

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, সাবেক প্রতিমন্ত্রী এম নুরুল হুদা যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। চাঁদপুর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক জানান, বাংলাদেশ সময় বুধবার বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটানের কর্নেল হাসপাতালে নুরুল হুদার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। চাঁদপুর-২ আসনের এই সাবেক সংসদ সদস্য ঢাকায় বসবাস করছিলেন। সপ্তাহখানেক আগে বড় ছেলের একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে তিনি সস্ত্রীক যুক্তরাষ্ট্রে যান। মঙ্গলবার বিকেলে তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল দুপুরে তার মৃত্যুর খবর আসে। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের এই নেতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন।
বিএনপি চেয়ারপার্সনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির বলেন, নুরুল হুদার ছেলে তানভীর হুদা দুপুরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে টেলিফোন করে জানিয়েছেন, উনার বাবার লাইফ সাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়েছে। বয়সের কারণে নুরুল হুদা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছিলেন বলে তিনি জানান।
চাঁদপুর-২ আসন থেকে চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন নুরুল হুদা। ১৯৯১ সালে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি সরকার গঠন করলে নুরুল হুদা সংস্থাপন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনেও তিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন। ওই সময় তিনি বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। আর সর্বশেষ কমিটিতে ছিলেন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য। গত বছর কাউন্সিলের পর বিএনপির নতুন কমিটি গঠন করা হলে নুরুল হুদাকে উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য করে নেন বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া।
দুই ছেলের বাবা নুরুল হুদার পৈতৃক বাড়ি চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার বাগানবাড়ি ইউনিয়নের খন্দকারকান্দি গ্রামে। তার ছেলেরা সবাই যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। বিএনপি সূত্র জানায়, পারিবারিক ভাবেই তার দাফনের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
খালেদা জিয়ার শোক: সাবেক মন্ত্রী, পার্লামেন্টারিয়ান ও বিএনপি নেতা নুরুল হুদার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। গতকাল এক শোকবাণীতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, মরহুম নুরুল হুদা দেশে একজন জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ হিসেবে অত্যন্ত সুপরিচিত ছিলেন। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নীতি ও আদর্শের বলিষ্ঠ অনুসারী মরহুম নুরুল হুদা চাঁদপুরসহ সারাদেশে বিএনপি নেতাকর্মী ও জনগণের মধ্যে ছিলেন অত্যন্ত সমাদৃত। বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী দর্শণই ছিল তার রাজনৈতিক চেতনার ভিত্তি ও সকল কর্মকান্ডের প্রেরণা। তিনি ছিলেন অত্যন্ত উদার, সজ্জন ও বিনয়ী স্বভাবের মানুষ। বিএনপিকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করতে মরহুম নুরুল হুদা তার রাজনৈতিক জীবনে নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করে গেছেন। জনকল্যানের মহান ব্রত নিয়ে রাজনীতি করতেন বলেই তিনি এলাকাবাসীর নিকট ছিলেন আপনজন। মরহুম নুরুল হুদা সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করেছেন নিষ্ঠার সাথে। অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান হিসেবেও তিনি জাতীয় সংসদে তার দক্ষতার সুস্পষ্ট স্বাক্ষর রেখেছেন। বহুদলীয় গণতান্ত্রিক চেতনাকে দৃঢ়ভাবে বুকে ধারণ করে মানুষের বাক-ব্যক্তি ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার স্বপক্ষে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বিএনপি’র প্রতিটি কর্মসূচিতে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্র রক্ষার অঙ্গীকারে শহীদ জিয়া প্রবর্তিত ধারাকে অক্ষুন্ন রাখতে তিনি ছিলেন অবিচল, এক্ষেত্রে তাঁর অবদান বাংলাদেশের মানুষের মনে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। দেশের এই দূর্দিনে তাঁর মতো একজন অভিজ্ঞ ও আদর্শনিষ্ঠ রাজনীতিবিদের পৃথিবী থেকে চিরবিদায়ে আমি গভীরভাবে শোকাহত হয়েছি। আমি মরহুম নুরুল হুদার রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকার্ত পরিবারবর্গ, গুণগ্রাহী ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।
এদিকে অপর এক শোকবার্তায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নুরুল হুদা’র মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করে তার রুহের মাগফিরাত কামনা এবং শোকবিহব্বল পরিবারের সদস্যবর্গ, আত্মীয়স্বজন এবং শুভাকাঙ্খীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ