ঢাকা, রোববার 29 January 2017, ১৬ মাঘ ১৪২৩, ৩০ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

তারেক রহমানের বিরুদ্ধে পরোয়ানা উদ্দেশ্যমূলক

স্টাফ রিপোর্টার : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সংগঠন ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইউট্যাব) ৬২৫ জন শিক্ষক। তারা অবিলম্বে পরোয়ানা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে গতকাল এক বিবৃতিতে বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষক ও বহুদলীয় রাজনীতির প্রবক্তা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের বড় ছেলে তারেক রহমান। তাকে ওয়ান ইলেভেনের সেনা সমর্থিত সরকার মিথ্যা গ্রেফতারের পর মামলায় অবর্ণনীয় নির্যাতন করেছিল। বর্তমানে উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অবস্থান করছেন। ফলে আদালতে হাজির হতে পারেননি। এমতাবস্থায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি উদ্দেশ্যমূলক বলেই আমরা মনে করি।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের জামিন বাতিল করে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। ঢাকার তিন নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক আবু আহমেদ জমাদার এই আদেশ দেন।
২০০৮ সালের মে মাসে সরকারের নির্বাহী আদেশে প্যারোলে মুক্তি পেয়ে বিদেশে চিকিৎসা করাতে যান তারেক রহমান। বর্তমানে সেখানেই আছেন তিনি।
ইউট্যাবে শিক্ষকবৃন্দ বিবৃতিতে বলেন, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে রাজনৈতিকভাবে কোনঠাসা করার অপকৌশল হিসেবেই বর্তমান সরকার তার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়েই যাচ্ছে। দলের চেয়ারপারসন থেকে শুরু করে অন্যান্য নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধেও মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তারেক রহমানের বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি তারই ধারাবাহিকতা মাত্র। আমরা মনে করি বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এ ধরনের মামলা ও পরোয়ানা গণতান্ত্রিক রীতিনীতির পরিপন্থী। এর মাধ্যমে রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধানের পরিবর্তে আরো কঠিন আকার ধারণ করবে। আমরা আহ্বান জানাবো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অবিলম্বে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে পরোয়ানা প্রত্যাহার করে তাকে নির্দোষ ঘোষণা করবেন।
বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারী ইউট্যাব নেতৃবৃন্দের মধ্যে অন্যতম হলেন- সহসভাপতি অধ্যাপক ড. আশরাফুল ইসলাম চৌধুরী, ড. খলিলুর রহমান, ড. ফরিদ আহমেদ, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম মজুমদার, অধ্যাপক সৈয়দ আবুল কালাম আযাদ, অধ্যাপক এম ফরিদ আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান, ড. গোলাম রব্বানী, ড. মাহফুজুল হক, ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, ড. আবুল হাসনাত, ড. সিদ্দিক আহমদ চৌধুরী (চবি), ড. এম এ বারি মিয়া, ড. শামসুল আলম সেলিম (জাবি), ড. সাব্বির মোস্তফা খান (বুয়েট) প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ