ঢাকা, সোমবার 30 January 2017, ১৭ মাঘ ১৪২৩, ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

তিন বছরে সাড়ে ৪০ লাখ মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে -আইনমন্ত্রী

সংসদ রিপোর্টার : বর্তমান সরকার ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিদায়ী ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সারাদেশের আদালতে মোট ৪০ লাখ ৬৪ হাজার ৫৩৭টি মামলার নিষ্পত্তি হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।
জাতীয় সংসদে রোববার বিকেলে ফিরোজা বেগম চিনু (মহিলা আসন-৩৩) ও স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজীর (পিরোজপুর-৩) প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এ তথ্য জানিয়েছেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন  চৌধুরীর সভাপতিত্বে এদিন বিকেল সাড়ে ৪টায় সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।
দেশের বিভিন্ন আদালতে বিচারাধীন মামলাসমূহ নিষ্পত্তিকরণে দীর্ঘসূত্রিতা হ্রাসকল্পে বর্তমান সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের কথা জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেছেন, ‘অতিসম্প্রতি ৯ম জুডিসিয়াল সার্ভিস পরীক্ষার মাধ্যমে ৭৯ জন সহকারি জজ/সমপর্যায়ের কর্মকর্তাকে নিয়োগক্রমে পদায়ন করা হয়েছে। এ ছাড়াও ১০ জুডিসিয়াল সার্ভিস পরীক্ষার মাধ্যমে আরও ১১৫জন সহকারী জজ/সমপর্যায়ের কর্মকর্তা নিয়োগের জন্য বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস কমিশন কর্তৃক ইতোমধ্যে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষা চলমান রয়েছে।’
এ ছাড়া, বিভিন্ন আদালতে বিচারক নিয়োগ, বিচারকদের দক্ষতা বৃদ্ধি ও মানোন্নয়ন, জনবল নিয়োগসহ নানা উদ্যোগের কথা উল্লেখ করেছেন মন্ত্রী।
আইনমন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে অধস্তন আদালতগুলোর কাজকর্মের গতিশীলতা বৃদ্ধির জন্য সরকার ই-জুডিশিয়ারী নামক একটি প্রকল্প গ্রহণের উদ্যোগ গ্রহণ নিয়েছে। এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দেশের আদালতসমূহ ডিজিটালাইজড হবে এবং আধুনিক কম্পিউটারাইজড প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিচার প্রক্রিয়া আরো সহজ, স্বচ্ছ  এবং গতিশীল হবে।
মামলার জট কমাতে নানা উদ্যোগ : রুস্তম আলী ফরাজীর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন,বর্তমান সরকার দেশের আদালতে মামলার জট কমিয়ে বিচার কাজ তরান্বিত করার লক্ষ্যে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে এবং এক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জিত হয়েছে। মামলাজট কমানোর লক্ষ্যে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে মন্ত্রী আরো জানান, পুরাতন মামলাগুলি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে প্রত্যেক আদালতে সাক্ষীর সমন জারি নিশ্চিত পূর্বক সাক্ষীগণকে হাজির করে দ্রুততম সময়ে সাক্ষ্য গ্রহণ করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
পুরাতন মামলাগুলি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে সলিসিটরের নেতত্বে মনিটরিং সেল কাজ করছে। মনিটরিং সেল গঠিত হওয়ার পর হতে দেশের বৃহত্তর জেলাগুলোতে পর্যায়ক্রমে ৫-১০ বছর এবং ১০ বছরের অধিক সময়ের পুরাতন ফৌজদারী মামলাসমূহ দ্রুদ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে মতিবিনিময় সভার আয়োজন করছে এবং মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে সুপারিশমালা প্রণয়ন করেছে। সর্বশেষ ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরে দেশের ৬টি বৃহত্তর জেলায় মনিটরিং সেল মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছে। প্রতি জেলায় কেস ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।
সরকারি খরচে আইন সহায়তা : গত ২৮ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে প্রধানমন্ত্রীর আইনী সহায়তায় জাতীয় হেল্প লাইন উদ্বোধনের কথা উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী আরো জানান, সর্বশেষ ১ জুলাই ২০১৬ হতে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত সারা দেশে সম্পূর্ণ সরকারি খরতে আইনগত সহায়তা প্রাপকের  মোট সংখ্যা ২৯ হাজার ৮১৫ জন এবং বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি সেবার মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষে অর্থ আদায়ের পরিমাণ ১ কোটি ৪৫ লাখ ৩৭ হাজার ৩৮৭ টাকা।
আইনজীবীর সংখ্যা : এ কে এম শাহজাহান কামালের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের তালিকাভুক্ত আইনজীবীর সংখ্যা ৫৪ হাজার ৬৫২ জন। বর্তমান সরকার ২০১৪ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর হতে ৩১ শে ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখ পর্যন্ত সারাদেশের আদালতে মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে ৪০ লাখ ৬৪ হাজার ৫৩৭টি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ