ঢাকা, মঙ্গলবার 31 January 2017, ১৮ মাঘ ১৪২৩, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আন্তর্জাতিক আরচারিতে বাংলাদেশ দলের শ্রেষ্ঠত্ব

স্বর্ণজয়ী আরচ্যারি

স্পোর্টস রিপোর্টার : আইএসএসএফ ইন্টারন্যাশনাল সলিডারিটি আরচারি চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরে মোট নয়টি স্বর্ণ পদকের ছয়টিই জিতে নিয়ে শ্রেষ্ঠত্ব দেখালো স্বাগতিক বাংলাদেশ। একটি রিকার্ভ মহিলা এককে এবং বাকি পাঁচটি দলগত ইভেন্টে।দিনের প্রথম ইভেন্ট রিকার্ভ ছেলেদের এককে সৌদি আরবের ফারেস আলোতাইবি ভূটানের নিমা ওয়াংদীকে ৬-৪ সেট পয়েন্টে পরাজিত করে স্বর্ণ পদক পান। এর পর এই ইভেন্টে মেয়েদের এককে বাংলাদেশের হীরা মনি ৬-৪ সেট পয়েন্টে আজারবাইজানের রামোজানোভা ইয়ালাগুলকে হারিয়ে দেশকে প্রথম সোনা উপহার দেন। রিকার্ভ ও কম্পাউন্ড বিভাগের এককের চারটি ইভেন্টে স্বাগতিকদের হয়ে একমাত্র স্বর্ণপদক জিতেছেন  বিকেএসপির হিরামনি। ক্যারিয়ারে প্রথমবার বড় আসরে স্বর্ণ জেতার পর বেশ উচ্ছ্বসিত দেখাচ্ছিল দেশের তারকা এই নারী আরচারকে।পদক জয়ের আনন্দে উল্লাসিত হিরামনির নিজের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আজারবাইজানের রামোজামোভাকে হারানোর পরই আমি বাবা-মাকে ফোন দিয়েছি। তারা খুব খুশী হয়ে আমাকে দোয়া করলেন।’ বিকেএসপির এই তীরন্দাজ যোগ করেন, ‘আন্তর্জাতিক আসরে এটা আমার প্রথম স্বর্ণপদক জয়। তবে এটা আমাকে সামনে এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে। যদিও আমার এইচএসসি পরীক্ষা সামনে। তারপরও পড়ালেখা ও খেলা দুই সামলাতে হবে আমাকে।’ এশিয়ান চ্যাম্পিয়ণশিপ নিয়ে হিরামনির কথা, ‘নভেম্বরে ঢাকায় শুরু হবে এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের আসর। তার আগে আমাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এই পদক যেমন আমাকে উৎসাহিত করবে ভবিষ্যতের আরচারদেরও সাহস যোগাবে।’
মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত রিকার্ভের মেয়েদের দলগত ইভেন্টে শ্যামলী রায়, বিউটি রায় ও রাদিয়া আক্তার শাপলাকে নিয়ে গড়া বাংলাদেশ ৬-২ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে নেপালকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেন। এই বিভাগের ছেলেদের দলগত ইভেন্টও শিরোপা জিতেছে বাংলাদেশ। মো. রুমান সানা, মো. সানোয়ার হোসেন ও মোহাম্মদ তামিমুল ইসলাম ৬-২ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে ভূটানকে হারায়।কম্পাউন্ড ছেলেদের এককে মালয়েশিয়ার মোহাম্মদ ফিরদাউস বিন ইসা ১৪১-১৪০ স্কোরে স্বদেশী নিক আহমদ ডেনিয়াল বিন মোহাম্মদ কামারুলজামানকে হারান। মেয়েদের এককে ইরাকের ফাতিমাহ আল মাসহাদানী ১৩৫-১৩৩ স্কোরে ব্যবধানে বাংলাদেশের বন্যা আকতারকে হারিয়েছেন। মিশ্র দলগত ইভেন্টেও বাংলাদেশের মো. রুমান সানা ও বিউটি রায় ভূটান আরচারি দলের কিনলি টি-সিরিং ও কারমাকে ৬-২ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে হারিয়ে বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠত্বের তুলে ধরেন। ছেলেদের দলগত ইভেন্টে মো: আবুল কাশেম, মো: নাজমুল হুদা ও মো. মিলন মোল্লার বাংলাদেশ ২১৪-২০৭ স্কোরে মালয়েশিয়াকে হারায়। কম্পাউন্ড মিশ্র দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশের মো. আবুল কাশেম মামুন ও সুস্মিতা বনিক ইরাকের আল-দাঘমান এশাক ও ফাতিমাহ আল মাসহাদানীকে ১৪৯-১৪১ স্কোরের ব্যবধানে হারিয়ে জিতে নেন শেষ স্বর্ণ পদকটি।
বাংলাদেশ দলের শ্রেষ্ঠত্বের পর স্বাগতিক দলের ভারতীয় কোচ নিশীথ দাস বললেন, ‘আমরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম ছয়টি স্বর্ণ জিতবো। আমাদের প্রত্যাশা বাস্তবে রূপ দেয়ায় ছেলে মেয়েদের নিয়ে আমি গর্বিত। তবে এখন আমাদের প্রত্যাশা আরও বেড়ে গেলো। ভবিষ্যতে যাতে নয়টির ইভেন্টের সবগুলোতেই আমরা যেন স্বর্ণ জিততে পারি, সেটাই চেষ্টা করবো।’ তিনি যোগ করেন, ‘তবে আমাদের লক্ষ্য নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ। তার আগে আরো দুটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে খেলবে আরচাররা। আগামী মার্চে থাইল্যান্ডে এশিয়ান কাপ এবং জুলাইয়ে মেক্সিকোতে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে খেলাবে বাংলাদেশ। তাছাড়া ভাল প্রস্তুতির জন্য নভেম্বরের আগে কাউকেই ছুটি দেয়া হবে না। আরচারদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প চলবে। সবাইকে নিয়ে টঙ্গীতে দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষন ক্যাম্প চলবে। প্রয়োজনে আমরা বিভিন্ন জেলাগুলোতে অনুশীলন করবো। বান্দরবানের কোয়ান্টাম হিলেও অনুশীলন করাবো। তীরন্দাজদের যোগাসন করানো হবে নার্ভকে শক্ত করার জন্য।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ