ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 September 2019, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

৬ ফেব্রুয়ারি চূড়ান্ত পতে পারে সার্চ কমিটির ১০ জনের তালিকা

সার্চ কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার : নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করতে গঠিত সার্চ কমিটি তৃতীয়বারের মতো নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছে। রাজনৈতিক দলের দেয়া তালিকা থেকে বাছাই করা ২০ জনের মধ্য থেকে নাম চুড়ান্ত করতে এই বৈঠক করেছে সার্চ কমিটি। বৈঠকে ২০ জনের যোগ্যতা, সততা ও নিরপেক্ষতা বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। তাদের বতর্মান, অতীত ও রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতাও পর্যালোচনা করা হয়েছে। নাগরিক সমাজের ১৬ বিশিষ্টজনের পরামর্শ সামনে রেখে সার্চ কমিটি সম্ভাব্যদের বাছাইয়ে কাজ করছেন। আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি কমিটি আবার বৈঠকে বসবেন। সেদিনই চুড়ান্ত হতে পারে আগামী নির্বাচন কমিশনের সম্ভাব্যদের নাম।

যাচাই-বাছাইয়ের পর ২০ জনের তালিকা থেকে দশজনকে চূড়ান্ত করবে সার্চ কমিটি। সেই দশজনের নাম ৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রস্তাব করা হবে রাষ্ট্রপতির কাছে। সার্চ কমিটির ওই সুপারিশের মধ্য থেকে একজন প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যূন পাঁচ সদস্যের নতুন নির্বাচন কমিশন নিয়োগ দেবেন রাষ্ট্রপতি।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জে কমিটির ছয় সদস্য বৈঠকে বসেন। রাজনৈতিক দলগুলোর কাছ থেকে নির্বাচন কমিশনারের নাম পাওয়ার পর এই প্রথমবারের মতো নিজেদের মধ্যে বৈঠকে বসল সার্চ কমিটি। সার্চ কমিটির কাজকর্মে সাচিবিক দায়িত্ব পালন করছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

মন্ত্রী পরিষদের অতিরিক্ত সচিব আব্দুল ওয়াদুদ জানিয়েছেন, ২০ জনের নামের তালিকা নিয়ে করা বৈঠকে এখনও কারো নাম চূড়ান্ত করা হয়নি। পরবর্তী বৈঠক আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি বিকাল পাঁচটায় অনুষ্ঠিত হবে এবং ৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নির্বাচন কমিশনার নামের তালিকা রাষ্ট্রপতির দপ্তরে পাঠানো হবে। সন্ধ্যায় সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জে সার্চ কমিটির ছয় সদস্যদের সাথে বৈঠক শেষে তিনি এসব কথা জানান।

আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, যে ২০ জনের নামের তালিকা দেয়া হয়েছে তাদের বিভিন্ন মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে কোনো গোয়েন্দা সংস্থার সাহায্য নেওয়া হচ্ছে না। এছাড়া নির্বাচন কমিশনার গঠনে যাদের তালিকা দেয়া হয়েছে তাদের কর্ম দক্ষতা সততা নিরপেক্ষতা বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। 

গত ২৫ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটি গঠন করে দেন। আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন সার্চ কমিটিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড.মোহাম্মদ সাদিক, মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (সিএজি) মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি ড.শিরীণ আখতার।

এর আগে গত বুধবার জাজেস লাউঞ্জে চার বিশিষ্ট নাগরিক সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবু হেনা, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ, ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার’র সম্পাদক মাহফুজ আনাম এবং সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের সঙ্গে বৈঠক করে সার্চ কমিটি। চার বিশিষ্ট নাগরিক চাপ ও প্রভাবমুক্ত হয়ে কাজ করতে সক্ষমদের নির্বাচন কমিশনে দেখতে মত দেন। তাদের আশা দলনিরপেক্ষ, বিবেকবান, সাহসী, প্রজ্ঞাবান ব্যক্তিদের নিয়ে ইসি গঠন করা হবে। সার্চ কমিটির সুপারিশ করা নাম ও প্রস্তাব জনসম্মুখে প্রকাশেরও পরমার্শ দিয়েছেন তারা। রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটির সুপারিশে আস্থা রাখবেন। তারা বলেছেন, সার্চ কমিটির সুপারিশের ওপর এ দেশের গণতন্ত্র ও আগামী নির্বাচন নির্ভর করবে। সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করাই হবে আগামী নির্বাচন কমিশনের একটা চ্যালেঞ্জ।

গত মঙ্গলবার ২৫টি রাজনৈতিক দলগুলোর কাছ থেকে পাওয়া ১২৫ টি নাম থেকে বাছাই করে ২০ জনের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করে সার্চ কমিটি। নামের তালিকা জমা দেয়নি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, বিকল্পধারা বাংলাদেশ, বাংলাদেশ খেলাফর মজলিশ এবং গণফোরাম। বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টি (সিপিবি) ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ((রব) চিঠি দিয়ে নাম না দেয়া কারণ উল্লেখ করেছে। 

তারও আগে গত সোমবার ১২ বিশিষ্ট নাগরিকের সঙ্গে বসে সার্চ কমিটির সদস্যরা নির্বাচন কমিশ গঠনের বিষয়ে মত বিনিময় করেন। বৈঠকে অংশ নেয়া ১২জন বিশিষ্ট ব্যক্তি হলেন-হাইকোর্টের সাবেক বিচারপতি আব্দুর রশীদ, সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড.এটিএম শামসুল হুদা, সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন, সাবেক নির্বাচন কমিশনার ছহুল হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি এস এম ফায়েজ, প্রফেসর ড.সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, বিশ্ব বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও ঢাবির সাবেক ভিসি ড.এ কে আজাদ চৌধুরী, ঢাবির বাংলা বিভাগের সংখ্যাতিরিক্তি অধ্যাপক ড.আবুল কাশেম ফজলুল হক, টিআইবির ট্রাস্ট্রি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক এডভোকেট সুলতানা কামাল, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ ও পুলিশের সাবেক আইজি নুরুল হুদা, সুজনের সাধারণ সম্পাদক ড.বদিউল আলম মজুমদার। ১২ বিশিষ্ট ব্যক্তি সৎ, নিরপেক্ষ ও যোগ্য ব্যক্তিদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে সার্চ কমিটিকে তাগিদ দিয়েছিলেন। এ ক্ষেত্রে কমযোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের দিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন না করতেও পরামর্শ দেন তারা।

 

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ