ঢাকা, সোমবার 6 February 2017, ২৪ মাঘ ১৪২৩, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সময়ের অনিবার্য প্রয়োজনেই ছাত্রশিবিরের প্রতিষ্ঠা

গতকাল রোববার রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর কর্তৃক আয়োজিত ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত বলেন, কোন প্রেক্ষাপট ছাড়া যেমন কোন ঐতিহাসিক ঘটনা জন্ম নেয় না তেমনি কোন প্রয়োজন ছাড়া সংগঠনেরও জন্ম হয় না। ছাত্রশিবিরের প্রতিষ্ঠা ছিল তৎকালীন সময়ের এক অনিবার্য দাবি। আর সময়ের অনিবার্য প্রয়োজনেই ছাত্রশিবির জন্মলাভ করেছে। 

গতকাল রোববার রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর কর্তৃক আয়োজিত ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আলোচনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় কেন্দ্রীয় অফিস সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় সাহিত্য সম্পাদক শাহ মাহফুজুল হক, শাখা সভাপতি জামিল মাহমুদ ও সেক্রেটারি আজিজুল ইসলাম সজিব উপস্থিত ছিলেন। 

শিবির সভাপতি বলেন, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব যাদের ওপর অর্পিত হয়েছিল, তাদের অগণতান্ত্রিক আচরণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা, বাকশালের নামে একনায়কতন্ত্র, নতজানু পররাষ্ট্রনীতি, ধর্মীয় রাজনীতি বন্ধের মাধ্যমে দেশকে ধর্মহীন করাসহ নানামুখী ষড়যন্ত্রের বেড়াজালে আবদ্ধ হয়ে দেশকে পরিণত করেছে তলাবিহীন ঝুড়িতে। মেধা, নৈতিকতা হারিয়ে ছাত্ররা গা ভাসিয়ে দেয় চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি এবং মাদকের সয়লাবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছিলনা শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ। ছাত্ররাই দেশ পরিচালনার আশা ভরসার স্থল হলেও তাদেরকে লেলিয়ে দেয়া হয় এক ধরনের নষ্ট রাজনীতি ও লেজুড়বৃত্তির পিছনে। ফলে চতুর্দিকেই অশান্তি পরিলক্ষিত হয়। ঠিক সেই মুহূর্তে দেশ, জাতি ও সমাজ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে মেধা ও নৈতিকতার সমন্বয়ে ১৯৭৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ থেকে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। ছাত্রশিবিরের অনুপম কর্মসূচি, আল্লাহর পথে সাধারণ ছাত্রসমাজকে উদারভাবে আহবান, সীসাঢালা প্রাচীরের ন্যায় মজবুত ভ্রাতৃত্বের বন্ধনময় সংগঠন, সংগঠিত ছাত্রদের জ্ঞান-চরিত্র ও মানবীয় গুণাবলি সমৃদ্ধ মানুষে পরিণত করা, ছাত্রদের অধিকার রক্ষা ও ক্যারিয়ার গঠনে সহযোগিতা প্রদান আর যাবতীয় শোষণ, নিপীড়ন ও গোলামী থেকে তাদের মুক্তির প্রয়াসের কারণে শিবির আজ দেশের সর্ববৃহৎ ছাত্রসংগঠন। 

তিনি আরো বলেন, ছাত্রশিবিরের ৪০ বছরের পথচলা কখনই সহজ ছিল না। অনেক ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে ছাত্রশিবির তার অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখেছে। সকল বাধা অতিক্রম করে ছাত্রশিবির আজ এক বিশাল মহিরুহে পরিণত হয়েছে। অসংখ্য মানুষের আশা-আকাঙ্খা, ভালবাসা, প্রত্যাশা, স্বপ্ন আজ শুধু ছাত্রশিবিরকে ঘিরেই। ছাত্রশিবির সৎ, দক্ষ, দেশপ্রেমিক নেতৃত্ব তৈরির এক অনন্য উৎসমূল। মেধাহীন, সন্ত্রাস নির্ভর, লেজুড়ভিত্তিক ছাত্ররাজনীতির বিপরীতে সৎ, যোগ্য, খোদাভীরু ও ইতিবাচক সুস্থধারার ছাত্র রাজনীতির প্রবর্তক ছাত্রশিবির। এই পথচলায় আমরা হারিয়েছি অনেক তাজা প্রাণ। তবুও ত্যাগের এই পথ বেয়েই শিবির আরো সামনে এগিয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহর শাখা: বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শহর শাখা ছাত্রশিবিরের উদ্যোগে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকালে শহরের নতুন হাট এলাকার এক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই অভিযানের উদ্বোধন করেন ছাত্রাশিবির র্চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহর শাখার সভাপতি মোঃ রাহাত মাহমুদ। এসময় প্রতিষ্ঠানের আঙ্গিনা, শ্রেণী কক্ষ, হোস্টেলসহ বিভিন্ন জায়গা পরিষ্কার করা হয়। কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন শহর শাখার সেক্রেটারি মোঃ রেজবুল হক প্লাবনসহ প্রায় অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী। পরে অভিযান শেষে শিবির সভাপতি প্রতিষ্ঠানের অফিস কক্ষের সামনে টবে করে বিভিন্ন গাছ রেখে প্রতিষ্ঠানের শোভা বর্ধন করেন। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ