ঢাকা, সোমবার 6 February 2017, ২৪ মাঘ ১৪২৩, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভারত টেস্টে রোমাঞ্চের অপেক্ষায় সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার : ভারতের বিপক্ষে ঐতিহাসিক টেস্টে রোমাঞ্চের অপেক্ষায় বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তবে ভারতীয় এ দলের বিপক্ষে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে খেলছেন না সাকিব। বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার গতকাল দুপুরে হায়দরাবাদ টেস্ট নিয়ে কথা বলেছেন সাংবাদিকদের সাথে। এই টেস্ট নিয়ে সাকিব বলেন, ‘আমাদের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচ। প্রথমবার ভারতের মাটিতে টেস্ট  খলতে পারা রোমাঞ্চকর। আমরা জানি, কাজটা সহজ হবে না। ভারত এই মুহূর্তে টেস্টের এক নম্বর দল। দেশের মাটিতে ওরা প্রায় অপারেজয়। আমাদের জন্য কাজটা কঠিন। তবে ছেলেরা চ্যালেঞ্জ নিতে মুখিয়ে আছে।
 এই ধরনের চ্যালেঞ্জ নিতে, ভালো করার জন্যই আমরা ক্রিকেট খেলি।’ আগামী বৃহস্পতিবার রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে একমাত্র টেস্ট। এই ম্যাচে ব্যক্তিগতভাবে কারোর জন্য আলাদা কোনো চ্যালেঞ্জ  দেখেন না সাকিব।  তার মতে সামর্থ্যের পরীক্ষা দিতে হবে গোটা দলকেই। সাকিব বলেন,‘পুরো দলের জন্যই হায়দরাবাদ টেস্ট বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের একটি দল হিসেবে খেলতে হবে। যদি সেটা পারি এবং আমাদের সামর্থ্যের সর্বোচ্চটা দিতে পারি, আমরা টেস্টে ভালো করতে পারি।’ ভারতের বিপক্ষে হায়দরাবাদ টেস্টে টানা পাঁচ দিন ধারাবাহিকভাবে ভালো ক্রিকেট খেলার তাগিদ দিয়েছেন। আর তিন বিভাগেই এক সঙ্গে ভালো করার দিকে তাদের নজর। সাকিব বলেন,‘চ্যালেঞ্জটা সবারই, শুধু ব্যাটসম্যানদের নয়। যদি আমরা ২৫০ রানেও অলআউট হই, বোলাররা ভালো করলে এই রানই অনেক।
আবার যদি ৫০০ রানও করি, বোলাররা ভালো না করলে ওই রানও কিছু না। সবারই ভূমিকা আছে। সবাই অবদান রাখলেই দল ভালো করে।’ উদাহরণ হিসেবে নিউ জিল্যান্ড সফরের কথা উঠে আসে সাকিবের কণ্ঠে।সাকিব বলেন,‘এক দিন ভালো হলো, আরেক দিন হলো না, তাহলে হবে না। নিউ জিল্যান্ডে আমরা ব্যাটিং ভালো করেছি কোনো দিন, বোলিং কোনো দিন ভালো হয়েছে। একসঙ্গে তিন বিভাগ ভালো করতে পারিনি। ম্যাচ জিততে হলে এটা করতে হবে।’ বাংলাদেশের ইনিংসে হঠাৎ ধস নেমে যায়। সাকিব মনে করেন, এখান থেকে বের হয়ে আসতে মানসিক দৃঢ়তাই সবচেয়ে বড় সহায়।
এ নিয়ে সাকিব বলেন,‘অবশ্যই মানসিক শক্তি খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। মানসিক ফিটনেস ও মানসিক শক্তি টেকনিকের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সফল টেস্ট দল হওয়ার জন্য এটিই সবচেয়ে  বেশি জরুরি।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ