ঢাকা, বুধবার 15 February 2017, ০৩ ফাল্গুন ১৪২৩, ১৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিলীন হওয়ার পথে নাঙ্গলকোটের গাগৈর খালের মুখ!

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের অন্যতম খাল হিসেবে পরিচিত গাগৈর খালটির সাথে সংযোগকারী নাঙ্গলকোট বাজার থেকে ধান-পাট ব্যাপারীদের সুযোগ সুবিধা যাতায়াতের জন্য ত্রিপুরা রাজাদের সময়ে খনন করা হয়। এই খালটি দিয়ে যুগের পর যুগ নাঙ্গলকোট থেকে কৃষকদের লালিত পালিত ধান-পাটসহ ফসল রপ্তানি আমদানি করা হতো। সর্বশেষ এই জমিদারির জমিদার ছিলেন ইংরেজ ডেলনী। তার ছেলে ফকসি সাহেব তখন থেকেই এই খাল অগ্রনী ভূমিকা নিয়ে কৃষকদের বহুদিক আর্থিকমূলক সাহায্য দান করেছিল। এরপর আরো একটি খাল নাঙ্গলকোট গ্রামের হাজী আলী আকবরের বাড়ির পূর্ব পাশ দিয়ে মূর্তি বাড়ির পশ্চিম অংশ দিয়ে নাঙ্গলকোটের বুক চিরে সেই নাঙ্গলকোটের খালের সাথে এক হয়। এই খালটিকে পূর্বে গোত্রশাল দীঘির মুখ বা জান হিসেবে পরিচিত ছিল। আজ নাঙ্গলকোট উপজেলা ও পৌরশহর হওয়াতে এই দুটি খাল এই উপশহরের প্রাণ  হয়ে দাড়িয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বর্তমান নাঙ্গলকোট হাসান মেমোরিয়াল সরকারি কলেজের সামনে থেকে মক্রবপুর সাবেক স্ট্রীলব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার সড়কটির পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া গাগৈর খালের সাথে যোগ হয়ে হরিপুর, নতুন হরিপুর, গোত্রশাল, নাঙ্গলকোট গ্রাম, মক্রবপুর, নাঙ্গলকোট বাজারের পানি পয়:নিষ্কাশন হতো। মৎসজীবী ভেয়ালরা একসময় এই খালে মাছ ধরে জীবিকা নিবার্হ করতো। অথচ কালের বির্বতনে এটি এখন নাঙ্গলকোটবাসীর জন্য স্মৃতি হয়ে থাকবে। বর্তমানে সাম্প্রতিক সময়ে লাকসাম-নাঙ্গলকোটের গুরুত্বপূর্ণ সড়কটিতে পরিকল্পিতভাবে সরকারিভাবে গার্ডওয়াল নির্মাণও ঐতিহ্যবাহী খালটি বিলুপ্তি হওয়ার পথে।
এছাড়া দীর্ঘদিন যাবত পানির নিষ্কাশনে বাধাঁ, পলিমাটি জমে নাব্যতা হারিয়েছে। খালটি দীর্ঘদিন খনন না হওয়ায় পানি নিষ্কাশনে বাধাঁগ্রস্থ হচ্ছে। এতে করে কোন কারনে খালটিতে পানি চলাচলের ব্যবস্থা না হলে  অদূর ভবিষ্যতে নাঙ্গলকোট বাজারসহ আশেপাশের এলাকার জন্য ভয়াবহ আশংকা হবে এবং দূর্গন্ধ দূর্বাসের জন্য ছাত্রছাত্রী শিক্ষক শিক্ষিকার এবং সেই সাথে সরকারি-বেসরকারি চাকরীজীবীদের চলাচলে বিশেষ বাঁধাগ্রস্থ হবে। সেই সাথে সংক্রামক ব্যাধি ও রোগ জীবানু ছড়িয়ে পড়ে অগণিত লোক আক্রান্ত হতে পারে। পৌরমেয়র আবদুল মালেক জানান- অল্প কিছুদিনের মধ্যে ড্রেজার দিয়ে খালটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার জন্য সরকারি ও আমাদের পৌরসভার পক্ষ থেকে মাননীয় মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল (লোটাস)  এর সহযোগিতা নিয়ে কাজ শুরু করবো।
এস এম আবুল বাশার, আজিম উল্যাহ হানিফ, নাঙ্গলকোট,কুমিল্লা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ