ঢাকা, শুক্রবার 17 February 2017, ০৫ ফাল্গুন ১৪২৩, ১৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কেসিসিতে যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি

খুলনা অফিস: কেসিসির ৫নং ওয়ার্ড অফিসে সিসি ক্যামেরা ও এলইডি টিভি সরবরাহ এবং স্থাপনের টেন্ডার জমাকে কেন্দ্র করে যুবলীগের দু’পক্ষের হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় খুলনা সিটি করপোরেশনের (কেসিসি) বিদ্যুৎ বিভাগের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় যুবলীগ নেতা ও ঠিকাদার জাহাঙ্গীর আহত হয়। এই দরপত্রটি নিয়ে টানা তৃতীয়বার হাতাহাতির ঘটনা ঘটলো।
বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে জানা গেছে, কেসিসির ৫নং ওয়ার্ড অফিসে সিসি ক্যামেরা ও এলইডি টিভি সরবরাহ এবং স্থাপনের সিডিউল জমা দেওয়ার শেষদিন ছিল বুধবার। এ সময় সাধারণ ঠিকাদাররা সিডিউল জমা দিতে এক যুবলীগ নেতা সবাইকে বাধা দেয়। সাড়ে ১২টার দিকে জাহাঙ্গীরের ওপর এক ঠিকাদার সিডিউল জমা দিতে গেলে যুবলীগ কর্মীদের সঙ্গে তার হাতাহাতি হয়। পরে অন্যরা এসে তাদের নিয়ন্ত্রণ করেন।
কেসিসির নির্বাহি প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) জাহিদ হোসেন বলেন, গত ২০১৬ সালের ২১ নবেম্বর প্রথম ওই কাজের জন্য দরপত্র আহবান করা হয়। কিন্তু নানা কারণে সেটি বাতিল হয়। পরবর্তীতে ২০১৭ সালের ১৬ জানুয়ারি পুনরায় দরপত্র আহ্বান করা হলে পত্রিকায় বিভিন্ন লেখালেখির কারণে সেটিও বাতিল হয়। সর্বশেষ গত ৬ ফেব্রুয়ারি তৃতীয়বার দরপত্র আহ্বান করা হয়। ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকার কাজের জন্য মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৭টি সিডিউল বিক্রি হয়েছে বলেও জানান তিনি। তবে সিডিউল ড্রপের শেষ সময় পর্যন্ত মোট তিনটি সিডিউল জমা হয়। সেগুলো হচ্ছে জিহান ট্রেডার্স, তন্নী কন্সট্রাকশন ও চৌধুরী আজিজ অ্যান্ড কোং। তিনি আরো বলেন, যেহেতু এ কাজের টেন্ডার ড্রপ নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। সেহেতু টেন্ডার বাতিল হওয়ার আশংকা রয়েছে। তারপরও টেন্ডার কমিটির সভায় বিষয়টির চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে বলে তিনি জানান।
মহানগর যুবলীগ নেতা জাহিদুল খলীফা জানান, টেন্ডারের কাজটি সমঝোতার ভিত্তিতে একজন ঠিকাদারকে দেয়া হয়েছে। কয়েকবার রি-টেন্ডার হওয়ায় ঝামেলা বেড়েছে। তবে কোনো হাতাহাতি হয়নি বলে দাবি করেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ