ঢাকা, মঙ্গলবার 21 February 2017, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাষ্ট্রের সর্বত্র বাংলা ভাষার প্রচলন বৃদ্ধি করতে হবে -শিবির সেক্রেটারি জেনারেল

গতকাল সোমবার রাজধানীতে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী পশ্চিম আয়োজিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেন, বর্তমানে দেশে ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে যে নৈরাজ্য ও বিকৃতি চলছে, এর গতিরোধ করতে না পারলে বাংলা ভাষা অবক্ষয়ের মধ্য দিয়ে অবলুপ্তির পথে চলে যাবে। এ অবস্থার পরিবর্তন ও ভাষার স্থায়ী মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত করতে রাষ্ট্রের সর্বত্র বাংলা ভাষার প্রচলন বৃদ্ধি করতে হবে।
গতকাল সোমবার রাজধানীতে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী পশ্চিম আয়োজিত ২১ ফেব্রুয়ারি অন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শাখা সভাপতি ডা. মুজাহিদুল ইসলামের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, কেন্দ্রীয় দাওয়াহ সম্পাদক শাহীন আহমদ খান।
শিবির সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, বিশ্বের ইতিহাসে ভাষা আন্দোলনের বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বাংলাদেশ। এটি শুধু দাবি আদায়ই নয় বরং এ জাতির জন্য গৌরবময় অর্জন। যা বিশ্বের বুকে আমাদেরকে ব্যতিক্রমী সম্মান এনে দিয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত লজ্জার বিষয় রক্তে অর্জিত ভাষা আজ আমাদের দেশেই অবহেলিত। বাংলা ভাষার মত একটি সমৃদ্ধ ভাষাকে রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে সর্ব ক্ষেত্রে বিকৃত ও অবহেলা করা হচ্ছে। প্রতিনিয়ত বিদেশী ভাষার আমদানি ও চর্চা বৃদ্ধি পাচ্ছে। পার্শবর্তী দেশের সংস্কৃতি আমাদের দেশে প্রসার পাচ্ছে। ফলে জনগণের একটি অংশ যেমন বিদেশী ভাষায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে তেমনি নতুন প্রজন্ম গড়ে উঠছে বিদেশী ভাষাকে ধারণ করে। অন্যদিকে সংস্কৃতির নামে প্রতিনিয়ত ভাষার বিকৃতি ঘটানো হচ্ছে। বর্তমানে দেশে ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে যে নৈরাজ্য ও বিকৃতি চলছে, এর গতিরোধ করতে না পারলে বাংলা ভাষা অবক্ষয়ের মধ্য দিয়ে অবলুপ্তির পথে চলে যাবে। ভাষা আন্দোলনের এতদিন পরে এসেও রাষ্ট্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় বাংলা ভাষাকে প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে না। রক্তে অর্জিত এই গৌরবকে এভাবে অবহেলা জাতির জন্য চরম অপমানজনক।
তিনি বলেন, ভাষার মর্যাদা রক্ষায় রাষ্ট্রের ভূমিকাই প্রধান। কিন্তু এক্ষেত্রে রাষ্ট্রের অবস্থান বরাবরই প্রশ্নবিদ্ধ। যা অন্যন্য প্রতিষ্ঠান ও পক্ষকে ভাষা অবহেলা ও বিকৃতিতে উৎসাহ যুগিয়েছে। সারা বছর ভাষাকে অবহেলা করে শুধু ফেব্রুয়ারি মাসে ভাষাপ্রেম প্রতারণা ছাড়া কিছু নয়। ভাষার বিকৃতি রোধ ও মর্যাদা রক্ষায় সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষার প্রচলন আরো বৃদ্ধি করতে হবে। নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে। বিদেশী সংস্কৃতির আগ্রাসন বন্ধ করতে হবে। সর্বোপরি বাংলা ভাষা আমাদের গৌরবের সম্পদ এবং তা রক্ষায় আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ