ঢাকা, বুধবার 22 February 2017, ১০ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়নের বর্ণনা

স্টাফ রিপোর্টার : জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংহি লি কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করছেন। গতকাল মঙ্গলবার বেলা দেড়টার দিকে তিনি বালুখালীর পাহাড়ি এলাকায় নতুন করে গড়ে ওঠা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবিরে যান বলে উখিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুরুদ্দিন মো. শিবলী নোমান জানিয়েছেন।

শিবলী নোমান বলেন, বালুখালীতে পৌঁছার পর ইয়াংহি লি নতুন করে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং খোঁজ-খবর নেন। তিন ঘণ্টার বেশি সময় তিনি ওই শরণার্থী শিবিরে অবস্থান করেন। এ সময় মিয়ানমারে চালানো নির্যাতন-নিপীড়নের কথা রোহিঙ্গারা তার কাছে তুলে ধরেন। 

রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলো পরিদর্শন ও বাংলাদেশ সফর শেষে ফিরে গিয়ে জাতিসংঘে ইয়াংহি লি প্রতিবেদন জমা দেবেন বলে জানিয়েছেন। বালুখালীর শিবিরে আশ্রয় নেওয়া ৪০ জন নারী ও পুরুষের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। নোমান জানান, লি বুধবারও টেকনাফের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবেন। সেখান থেকে ফিরে বুধবার বিকালেই ঢাকা ফিরে যাবেন। তবে শরণার্থী শিবির পরিদর্শনের সময় তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।

জীবন বাঁচাতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা আকিয়াব জেলার মংডু থানার শিলখালী এলাকার মৃত সাব্বির আহমদের স্ত্রী আনোয়ারা বেগমের (৩০) সঙ্গে ইয়াংহি লি কথা বলেন। তিনি মিয়ানমারে চালানো নির্যাতন ও নিপীড়নের বর্ণনা দেন লির কাছে। আনোয়ারা বেগম সাংবাদিকদের বলেন, জাতিসংঘের বিশেষ দূতের কাছে আমাদের উপর চালানো নির্যাতনের কথা তুলে ধরেছি। পাশাপাশি তিনি মিয়ানমারের পরিস্থিতি সম্পর্কেও খোঁজ-খবর নিয়েছেন। কী রকম পরিস্থিতিতে পাঁচ সন্তান নিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছি তার বর্ণনা দিয়েছি। আনোয়ারার মতো মিয়ানমারের শিলখালী এলাকা থেকে পালিয়ে এসেছেন তৈয়বা বেগম (২৬), ছমুদা বেগম (২২) ও নজুমিয়া বেগম (৫০)। তাদের সঙ্গে কথা বলেন এই দূত। তাদের দেওয়া নির্যাতনের বিবরণ শোনেন। 

রোববার পাঁচ দিনের সফরে বাংলাদেশ আসেন ইয়াংহি লি। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি বিমানযোগে কক্সবাজার পৌঁছেন। সেখান থেকে গাড়িযোগে সরাসরি বালুখালী পৌঁছেন। বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে বালুখালী শরণার্থী শিবির পরিদর্শন শেষে ইয়াংহি লি কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা দেন। রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব মো. বাকী বিল্লাহ, উখিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুরুদ্দিন মো. শিবলী নোমান, পুলিশ প্রশাসন, ইউএনএইচসিআর ও আইওএমসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ