ঢাকা, বুধবার 22 February 2017, ১০ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দলে পাঁচ পেসারের ব্যাখ্যা দিলেন প্রধান নির্বাচক নান্নু

স্পোর্টস রিপোর্টার : শ্রীলংকা সফরে দুই টেস্টের জন্য ১৬ জনের দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি। গতকাল মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দল  ঘোষণা করেছেন বিসিবির প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। দল ঘোষণার পর দল নির্বাচন নিয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছেন প্রধান নির্বাচক। এই দলে ভারতের বিপক্ষে সর্বশেষ স্কোয়াডে থাকা শফিউলের জায়গায় সুযোগ পেয়েছেন রুবেল হোসেন। সেই সঙ্গে ফিরেছেন মুস্তাফিজুর রহমান। ফলে এই দলে আছেন পাঁচ পেসার। ইমরুল জায়গা হারালেও শ্রীলংকার বিপক্ষে শততম টেস্টেই তার ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে।
গতকাল এমনটাই আভাস দেন তিনি। শ্রীলংকার বিপক্ষে দলে ফিরেছেন মুস্তাফিজ ও রুবেল। আগে থেকেই দলে আছেন তাসকিন আহমেদ, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও শুভাূশীষ রায় চৌধুরী। ফলে দলে এখন আছেন পাঁচ পেসার। এ নিয়ে মিনহাজুল জানান, সব পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকতেই দলে পাঁচ পেসার। প্রধান নির্বাচক বলেন, পাঁচজন  পেসার নেয়ার একটা যুক্তি আছে। আমাদের দুইদিনের একটা প্রস্তুতি ম্যাচও আছে। আমাদের রবিউলকে (ইসলাম) নিয়ে বাজে একটি অভিজ্ঞতা ছিল। প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার পর টেস্টের প্রথমদিন থেকেই তার সমস্যা হচ্ছিল। শ্রীলংকার গলে ঘাসের উইকেট থাকতে পারে। ওরা স্পোর্টিং উইকেট দিলে হয়তো তিন সিমার নিয়ে খেলতে হতে পারে। এখান থেকে বসে বলা সম্ভব নয় আমরা কোন ধরনের উইকেট পাচ্ছি। আমরা চেষ্টা করেছি সবকিছু বিবেচনা করে দলটা বানাতে।’ মুস্তাফিজের দলে ফিরা নিয়ে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীননান্নু বলেন, ‘আগের চেয়ে মুস্তাফিজের এখন যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। বিসিএলে মুস্তাফিজকে দুটি ম্যাচ খেলানোর ফলে ফিটনেসের অবস্থা বুঝতে সুবিধা হয়েছে। প্রথম ম্যাচ থেকে দ্বিতীয় ম্যাচে তার উন্নতি ছিল যথেষ্ট ভালো। বোলিংও অনেক ভালো করেছে। আমার মনে হয়েছে তিন ফরম্যাট খেলতে মুস্তাফিজের কোনও অসুবিধা হবে না।’ ফিটনেস ফিরে পেলে দ্বিতীয়  টেস্টের দলে ফিরতে পারেন বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস। প্রধান নির্বাচক ইমরুলকে নিয়ে বলেন, ‘ইমরুল আমাদের অভিজ্ঞ একজন খেলোয়াড়। দুর্ভাগ্যবশত হায়দরাবাদ টেস্টের আগে ও চোট পেয়েছে। ফিটনেসের জন্য ওকে আমরা দুটি রাউন্ডে দেখবো। ১ মার্চ ওর দ্বিতীয় রাউন্ড  শেষ হবে। দুইদিন বিশ্রাম নেয়ার পর চার তারিখে ফিটনেস টেস্ট দেবে। ওর অবস্থা যদি ভালো থাকে সেক্ষেত্রে দ্বিতীয়  টেস্টের জন্য তাকে আমরা দলে নেব।’ প্রথম টেস্টে টেস্টে ইমরুল না থাকাতে ব্যাকআপ ওপেনার হিসেবে দলে আছেন কেবলমাত্র লিটন কুমার দাস। সেক্ষেত্রে মুশফিক কিপিং করলে লিটনের খেলার সম্ভাবনা একদমই নেই। লিটনের ব্যাপারে নান্নু বলেছেন, ‘লিটনকে ব্যাকআপ ওপেনার হিসেবে  নেওয়া হয়েছে। তবে আমার মনে হচ্ছে ইমরুল অবশ্যই ফিটনেস টেস্টে উতরে যাবে। এখন  দেখার বিষয় দ্বিতীয় ম্যাচ খেলার পর ওর অবস্থাটা কি দাঁড়ায়। ‘কিপিং নিয়ে প্রশ্ন হলে সোহান অনেক ভালো উইকেটরক্ষক। কিন্তু যদি ব্যাটিং বিষয়টি সামনে আনেন, সেক্ষেত্রে এগিয়ে লিটন। লিটনকে আমরা ভালো ব্যাটসম্যান হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেছি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে লিটন ইনজুরিতে পড়ার আগে দ্বিতীয় উইকেটরক্ষক হিসেবেই দলে ছিল। লিটনের কিপিংয়ের ব্যাপারে আমরা যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। এ জন্যই তাকে আমরা সুযোগ দিয়েছি।’ মুশফিকের কিপিং নিয়ে প্রশ্ন উঠলেও মুশফিকের পক্ষেই সাফাই গাইলেন প্রধান নির্বাচক। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে এখনও আলোচনা হয়নি। মুশফিক আমাদের নাম্বার ওয়ান উইকেটরক্ষক। আমার মনে হয় তিনটি পজিশনের কোনোটিতেই মুশফিকের অসুবিধা নেই। এখন নিজে থেকে যদি মুশফিক কিছু না বলে সেক্ষেত্রে আমাদের কিছু করার নেই।’ শফিউল ভালো খেলেই দলে সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু  কোনও ম্যাচ না খেলেই আবার বাদ পড়তে হলো অভিজ্ঞ এই পেসারকে।
এ নিয়ে প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘শফিউলের হায়দরাবাদে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার পর একটু সমস্যা হয়েছে। ওখানে ওর টেস্ট করা হয়েছে। তা ছাড়া আমরা ওর ফিটনেস নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট নই। সেই হিসেবে বিসিএলের ম্যাচের জন্য ওকে আমরা ছেড়ে দিচ্ছি। এখন ওর ফিটনেসের লেভেলটা দেখতে হবে।’ শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্টে সুযোগ দেওয়া হয়েছে অভিজ্ঞ পেসার রুবেলকে। কারণ বিসিএলের পারফরম্যান্সে খুশি নির্বাচকরা। প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘রুবেল বিসিএলে পর পর তিনটি ম্যাচ খেলেছে। সেখানে ভালো বোলিং করেছে। বিশেষকরে তৃতীয় রাউন্ডে অসাধারণ বোলিং করেছে। আমার মনে হয় ওর এখন ক্ষমতা আছে টেস্ট ক্রিকেটকে কিছু দেয়ার।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ