ঢাকা, শুক্রবার 24 May 2019, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৮ রমযান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিডিআর বিদ্রোহ হত্যা মামলার শুনানি ২ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি

 

স্টাফ রিপোর্টার : আলোচিত পিলখানার বিডিআর বিদ্রোহ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১৫২ আসামির ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিলের শুনানি হবে আগামী ২ এপ্রিল। সরকার পক্ষের সময় আবেদনের প্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের নেতৃত্বে হাইকোর্টের তিন সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চ এ দিন ধার্য করেন। বেঞ্চের অপর দুই সদস্য হলেন বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার। 

আদালতে সরকার পক্ষে শুনানি করেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। অন্যদিকে আসামিপক্ষে ছিলেন জোষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন, এসএম শাহজাহান ও আমিনুল ইসলাম।

এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেছেন, ২০০৯ সালে পিলখানায় সংঘটিত বিডিআর (বর্তমান বিজিবি) বিদ্রোহের ঘটনায় করা হত্যা মামলা চলতি বছরের মধ্যে নিষ্পত্তি হবে। মামলাটিতে একই সাক্ষ্যে একজনের মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে। আসামিপক্ষের আইনজীবীরা এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এ নিয়ে একটু জটিলতা তৈরি হয়েছে। যা নিষ্পত্তিতে আরো সময় প্রয়োজন।

পিলখানা হত্যাকাণ্ড মামলায় বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানির জন্য ২০১৫ সালে বৃহত্তর বেঞ্চ গঠন করা হয়। এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি পিলখানা হত্যাকাণ্ডের মামলার যুক্তিতর্ক চলতি মাসের ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ করতে উভয় পক্ষকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

ডেপুটি এটর্নি জেনারেল জাহিদ সারোয়ার কাজল বলেছেন, আদালত উভয় পক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শেষ করতে বলেছিলেন। আসামিপক্ষের যুক্তিতর্কও প্রায় শেষ। আইনি বিষয়ে যুক্তিতর্ক কিছু বাকি আছে, সেগুলো শেষ হলে পাল্টা যুক্তি উপস্থাপন করবেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

কিন্তু আগামী মাসে আরও দুটি গুরুত্বপূর্ণ মামলায় প্রস্তুতি নিতে হবে। তাছাড়া ল’ পয়েন্টে যুক্তি উপস্থাপনে প্রস্তুতির জন্যও সময় প্রয়োজন। এ দুটি বিষয় উল্লেখ করে আদালত তা ২ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি করেছেন বলেন তিনি। একই সঙ্গে ওই দিন যুক্তিতর্ক শেষ হলে আদালত মামলার রায়ের তারিখ ধার্য করে দিতে পারেন।

এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি বলেছিলেন, ৩৫৬ কার্যদিবস ধরে এ মামলার কার্যক্রম চলছে। ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিল নিয়ে ৩৫ হাজার পৃষ্ঠার পেপারবুক পাঠ করা হয়েছে ১২৪ কার্যদিবসে। বাকি ২৩২ কার্যদিবস সরকার ও আসামি পক্ষ যুক্তি উপস্থাপন করেছে।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ