ঢাকা, শুক্রবার 24 February 2017, ১২ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

এপ্রিলের প্রথমার্ধে প্রধানমন্ত্রী ভারত সফর করবেন

স্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলতি বছরের এপ্রিলের প্রথমার্ধে সরকারি সফরে ভারত যাবেন। সফররত ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ড. সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার জাতীয় সংসদ ভবন কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে বিষয়টি জানানো হয়। 

প্রায় ৩০ মিনিটের বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে বলেন, এপ্রিলের প্রথমার্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সফরে যাবেন। বাসস জানায়, ভারতের পররাষ্ট্র সচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, এই সফরের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরো জোরদার হবে।

জয়শঙ্কর বলেন, এই সফরে প্রধানত পারস্পরিক স্বার্থ এবং ধাপে ধাপে উন্নয়ন উদ্যোগের পাশাপাশি যোগাযোগ সংযুক্তির বিষয়টিও গুরুত্ব পাবে।

স্থল সীমান্ত এবং ছিটমহল সমস্যাসহ প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন সমস্যার পারস্পরিক সমাধানের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য যদি ভালো হয়, আলোচনার মাধ্যমে আমরা যেকোনো সমস্যার সমাধান করতে পারবো।

শেখ হাসিনা এই অঞ্চলের জনগণের কল্যাণের জন্য অন্যান্য খাতে সহযোগিতা জোরদার হওয়ায় এই অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে যোগাযোগ সংযুক্তি বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

ভারতীয় পররাষ্ট্র সচিব বর্তমানে স্থবির সার্কের প্রসঙ্গ তুলে ধরায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এটি ডুবে যেতে দেবো না।

বিবিআইএন মটরভেহিকেল চুক্তির ব্যাপারে আলাপকালে শেখ হাসিনা চার দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এই উদ্যোগ কার্যকর করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, বিবিআইএন উদ্যোগ কার্যকর হবে এবং আলোচনার মাধ্যমে এই উদ্যোগের সংশ্লিষ্ট সমস্যা সমাধান করবো।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বলেন, বাংলাদেশের প্রয়োজন অনুযায়ী তার দেশ বাংলাদেশে আরো উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করবে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক এবং বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০১৫ সালের ৬-৭ জুন বাংলাদেশ সফর করেছেন।

কূটনৈতিক সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর চূড়ান্ত করতে এবং প্রস্তুতি সম্পর্কে অবহিত করতে দু’দিনের সফরে জয়শঙ্কর এখানে আসেন।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটা ২০ মিনিটের দিকে ঢাকায় এসে পৌঁছান। তিনি চীনের বেইজিং থেকে ঢাকায় আসেন। আজ শুক্রবার সকালে দিল্লীর উদ্দেশে তার ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে। সফরকালে তিনি লা মেরিডিয়ান হোটেলে অবস্থান করেন। 

দুই দফায় শেখ হাসিনার সফরটি পিছিয়ে যাওয়ার পর ঢাকায় এলেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর করার কথা ছিল ২০১৬ সালের ১৮ ডিসেম্বর। তবে অনিবার্য কারণে ওই সফর স্থগিত করা হয়। এর আগে ১০ ডিসেম্বর শনিবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের এক সৌজন্য বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে প্রধান শেখ হাসিনা ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে ভারত সফরের আগ্রহ প্রকাশ করেন। কিন্তু এবারও অনিবার্য কারণে এই সফর স্থগিত করা হয়।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে শেখ হাসিনার এবারের দিল্লী সফরে দীর্ঘদিনের অমীমাংসিত বিষয় তিস্তা চুক্তির জট খুলছে না। কয়েক সপ্তাহ ধরে ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে স্পষ্ট করেই বলা হচ্ছে, নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির লড়াইয়ে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে তিস্তা চুক্তি। এর পাশাপাশি সম্প্রতি গঙ্গা ব্যারাজ নিয়ে আলোচনা থেকে সরে আসার কথা বলছেন মমতা ব্যানার্জি। কারণ ব্যারাজটি হলে রাজ্যের কিছু এলাকা ভাঙনের কবলে পড়বে, এই আশঙ্কায় তিনি গঙ্গা ব্যারাজের বিরোধিতা করছেন। এ নিয়ে দুই দেশের একটি কারিগরি কমিটি থেকে রাজ্যের প্রতিনিধিকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন মমতা।

এছাড়া বাংলাদেশের সঙ্গে প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তার সহযোগিতাকে নতুন স্তরে নিতে রূপরেখা চুক্তি করতে চায় ভারত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ