ঢাকা, শুক্রবার 24 February 2017, ১২ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বগুড়ার শেরপুরে মাদরাসায় আগুন দেয়ার ঘটনায় থানায় মামলা

শেরপুর (বগুড়া) সংবাদদাতা: বগুড়ার শেরপুরে কওমী মাদরাসায় আগুন দিয়ে পোড়ানোর ঘটনায় মাদরাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম পবাদী হয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার শেরপুর থানায় দইমববিধির ৪৩৬ ও ৪২৭ ধারায় মামলা করেছেন। মামলায় ৯০টি কুরআন শরীফ, হাদিস গ্রন্থ অন্যান্য ইসলামী কেতাবসহ প্রায় ৬ লাখ টাকার ক্ষতির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। গত ২১ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা মাদরাসাটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরদিন সকালে খবর পেয়ে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একএম সরোয়ার জাহান ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

মামলার বিবরণ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পনলুয়া কবরস্থান রজব আলী সেবাতুন নেছা কওমী মাদরাসাটি ২০০৫ সালে নলুয়া গ্রামের বাসিন্দা রজব আলীর দেয়া জমিতে মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে মাদরাসাটিতে প্রায় ৬০ জন দরিদ্র শিক্ষার্থী আবাসিকভাকে পড়াশুনা করছে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা শেষে ১০ দিনের ছুটি দিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সবাই বাড়ি চলে যায়। আজ ২৪ ফেব্রয়ারি মাদরাসা খোলার কথা ছিল কিন্তু তার আগেই দুর্বৃত্তের আগুনে মাদরাসার সব কিছু আগুনে ছাই হয়ে গেছে।

আগুনে মাদরাসার অফিসসহ দু’টি কক্ষ ও রক্ষিত আলমারি, শোকেস, সোভাসেট, মাইক সেট, ৯০টি কুরআন শরীফসহ বিভিন্ন ধর্মীয় বইপুস্তক, দানে পাওয়া ২০ মণ ধান-চাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

সীমাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গৌরদাস রায় চৌধুরী জানান, সম্ভবত পেট্রোল বা ডিজেল তেল ব্যবহার করে দুর্বৃত্তরা মাদরাসাটিতে আগুন লাগিয়েছে। তাই মুর্হুতের মধ্যে আগুন সর্বত্র ছড়িয়ে যায়। একপর্যায়ে আগুনের লেলিহান শিখা দেখে স্থানীয় গ্রামবাসী ছুটে এসে দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, মাদরাসার কমিটি ও পনামের সাথে জমিদাতার নাম থাকা নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ এলাকার দু’টি পক্ষের দ্বন্দ্ব চলে আসছিল।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম সরোয়ার জাহান জানান, এই সংবাদ পাওয়ার পরপরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। পাশাপাশি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে এই কর্মকর্তা জানান। শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. এরফান জানান, ঘটনাটি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তপূর্বক জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা দাবি করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ