ঢাকা, রোববার 26 February 2017, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কাশ্মীরের তরুণরা স্বাধীনতার জন্য লড়াই করছে -ফারুক আব্দুল্লাহ

২৫ ফেব্রুয়ারি, গ্রেটার কাশ্মীর/ডন : কাশ্মীরের তরুণরা স্বাধীনতার জন্য লড়াই করছে বলে দাবি করেছেন ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স প্রধান ফারুক আবদুল্লাহ।
তিনি বলেন, ‘কাশ্মীরের তরুণরা কেউ বিধায়ক, এমপি বা মন্ত্রী হওয়ার জন্য নয়, বরং নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য কুরবানি দিচ্ছে।’
শুক্রবার শ্রীনগরে দলীয় কর্মী-সমর্থকদের সামনে বক্তব্য রাখার সময় তিনি এমন মন্তব্য করেন।
ফারুক বলেন, ‘এই ভূমি আমাদের, আমরাই এর মালিক। প্রাণ সকলের কাছেই প্রিয় কিন্তু ওই যুবকরা বিশ্বাস করেছে যে, জীবন এবং মৃত্যু আল্লাহ্র হাতে।
তারা সেই পথেই চলছে এবং দেশের স্বাধীনতার জন্য জীবন দিচ্ছে। এ কথা ভারত এবং পাকিস্তান কেউই বুঝছে না। এই লড়াই ১৯৩১ সাল থেকে অব্যাহত রয়েছে। এখন নতুন প্রজন্ম এসেছে যাদের মধ্যে মৃত্যুর কোনো ভয় নেই। এরা দেশের স্বাধীনতার জন্য ময়দানে রয়েছে। এজন্য গুলী এবং বন্দুকের ভয় তাদের ওপর কোনো প্রভাব ফেলে না।’
উপত্যাকায় শান্তি স্থাপনের জন্য ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে পুনরায় সংলাপের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বুলেটের জবাব বুলেটে হতে পারে না। ধৈর্য, ভালোবাসা এবং সংলাপের মাধ্যমে এর জবাব হতে পারে। আমরা আশা করছি, ভারত এবং পাকিস্তান আলোচনার টেবিলে বসবে এবং নতুনভাবে সংলাপ পুনর্বহাল হবে যাতে কাশ্মীর সমস্যা সমাধান হতে পারে।’ 
তিনি বলেন, মৃত্যু এবং ধ্বংস বন্ধ হওয়া উচিত যাতে কাশ্মীরের মানুষ শান্তিতে বাস করতে পারে। পর্যটন মৌসুম শুরু হতে চলেছে, যদি মৃত্যু এবং ধ্বংসের তা-ব অব্যাহত থাকে তাহলে কে এখানে আসবে? দরিদ্র মানুষেরা পর্যটনের ওপরই নির্ভরশীল।’
তিনি আরো বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদীদের সংবেদনশীলতাকে খেয়াল রাখতে হবে। তাদের হাতে অস্ত্র তুলে নেয়ার কী কারণ? যুবকদের হাতিয়ার তুলে নিতে কোন বিষয়টি বাধ্য করছে তা তদন্তের জন্য একটি উচ্চস্তরীয় তদন্ত কমটি গঠন করা উচিত।’
সন্ত্রাসবাদবিরোধী অভিযানে বাধাপ্রদানকারীদের উদ্দেশে সম্প্রতি সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত যে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তা উল্লেখ করে ফারুক বলেন, এ অভিযোগ সঠিক নয় বরং দুর্ভাগ্যপূর্ণ। যদি আপনার সমস্যা সমাধান করতে হয় তাহলে বন্দুকে নয়, সংলাপেই তা সম্ভব।
এদিকে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট মামনুল হোসাইন বলেছেন, নিজস্ব স্বার্থেই ভারতের কাশ্মীর সমস্যা সমাধান করা উচিত। জনগণের মতের মূল্য দিয়ে হলেও ভারতকে কোন অঞ্চলে বেআইনিভাবে দখল বন্ধ করতে হবে।
শুক্রবার পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর জন্মদিন উপলক্ষে দেয়া বক্ততায় তিনি বলেন, ‘ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে নিষ্ঠুরভাবে য্দ্ধুকৌশল অবলম্বন করা হয়েছে। কাশ্মীরিদের নির্যাতন করা হচ্ছে। অসহায় কাশ্মীরি ও বেসামরিক নাগরিকদের গুলীর আঘাতে ক্ষতবিক্ষত করা হচ্ছে।’
মামনুন কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য বৈশ্বিক সচেতনতার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে কাশ্মীরিদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে হবে।’ এই সময় তিনি কাশ্মীর সমস্যার সমাধান আঞ্চলিক শান্তি ধ্বংস করতে পারে বলে সতর্কতা জারি করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ