ঢাকা, রোববার 26 February 2017, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

টি-টোয়েন্টির বর্ষসেরা বোলার মুস্তাফিজ বর্ষসেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার মিরাজ

স্পোর্টস রিপোর্টার: ক্রিকেটের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশের দুই ক্রিকেটার। এরা হলেন মুস্তাফিজুর রহমান আর মেহেদী হাসান মিরাজ। টি-টোয়েন্টির বর্ষসেরা বোলার নির্বাচিত হয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। আর বর্ষসেরা অভিষিক্ত খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ২২ রানে ৫ উইকেট নিয়ে মুস্তাফিজ এ পুরস্কার জয়ের জন্য নির্বাচিত হন। তিনি পিছনে ফেলেছেন পাকিস্তানের  মোহাম্মদ আমির, শ্রীলংকার কুশান রাজিথা, নিউজিল্যান্ডের মিশেল স্যান্টনার, মিশেল ম্যাক্লেনাঘান, ভারতের রবীচন্দ্রন অশ্বিন, অস্ট্রেলিয়ার জেমস ফকনার, ইংল্যান্ডের ক্রিস জর্ডান, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ডোয়াইন ব্রাভো ও পাকিস্তানের ইমাদ ওয়াসিমের মতো বড় বড় প্রতিদ্বন্ধীকে। ২০১৬ সালে বিশ্ব টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ২২ রান খরচায় মুস্তাফিজ পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। ওই ম্যাচের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সটাই তাকে এনে দিয়েছে এই ওয়েবসাইটটির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি বোলারের পুরস্কার। দ্বিতীয় কোনো বাংলাদেশি বোলার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে মুস্তাফিজ ৫ উইকেট নিয়েছিলেন। তার আগে ২০১২ সালে ইলিয়াস সানী বেলফাস্টে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন। এই পুরস্কারের দৌড়ে মুস্তাফিজের নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী ছিলেন নিউজিল্যান্ড স্পিনার মিচেল স্যান্টনার এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের ডোয়াইন ব্রাভো। যদিও তাকে পেছনে ফেলে বিচারকদের রায়ে জয়ী হয়েছেন বাংলাদেশি পেসার।
মুস্তাফিজ টি-টোয়েন্টির বর্ষসেরা বোলার নির্বাচিত হলেও বর্ষসেরা অভিষিক্ত খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক টেস্টের পারফরম্যান্স তাকে এনে দিয়েছে এই পুরস্কার। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয়বার পুরস্কারটি এলো বাংলাদেশে। ২০১৫ সালে অভিষেকেই আলো ছড়ানো মুস্তাফিজুর রহমান জিতেছিলেন এই ওয়েবসাইটটির পুরস্কার। এবার মুস্তাফিজের পথ ধরে জিতলেন মিরাজ। ১৯ বছর বয়সী মিরাজের অভিষেক হয় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠের টেস্ট সিরিজে। অভিষেক টেস্টেই বলহাতে জাদু দেখান এই অলরাউন্ডার। ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষা নিয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্টে মিরাজ তুলে নেন ৭ উইকেট। পরের  টেস্টে মিরাজকে পাওয়া যায় আরও বিধ্বংসী রূপে। ওই ম্যাচে তার শিকার ছিল ১২ উইকেট। তার এই পারফরম্যান্সকে ‘সবার চেয়ে সেরা’ হিসেবে মূল্যায়ন করেছেন ‘ক্রিকইনফো’-এর বিচারকরা। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্টের দুর্দান্ত পারফরম্যান্স মিরাজকে এনে দিয়েছে ‘ক্রিকইনফো’র বর্ষসেরা অভিষিক্ত খেলোয়াড়ের পুরস্কার। ভারতের জসপ্রিৎ বুমরাহ, ট্রিপল সেঞ্চুরিয়ান করুণ নায়ার, দক্ষিণ আফ্রিকার স্টিফেন কুকের মতো ক্রিকেটারদের পেছনে ফেলে পুরস্কারটি জিতেছেন মিরাজ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ