ঢাকা, রোববার 26 February 2017, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৩, ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়েও খালেদা জিয়াকে  নির্বাচন থেকে দূরে রাখা যাবে না   --ব্যারিস্টার মওদুদ 

 

স্টাফ রিপোর্টার :  বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়েও বিএনপি চেয়ারপার্সনকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখা যাবে না। খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দেয়া হলে তার জনপ্রিয়তা অনেক বেড়ে যাবে এবং সেই মামলায় উচ্চ আদালতে আপিল করবো ও তা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের সব ধরনের কাজে তিনি অংশ নিতে পারবেন।

গতকাল শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ২০ দলীয় জোট শরিক লেবার পার্টি ‘পিলখানা ট্র্যাজেডি : সার্বভৌমত্ব ও জাতীয় নিরাপত্তা’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে।

প্রসঙ্গত, খালেদা জিয়াকে নির্বাচনে অযোগ্য করার উদ্দেশ্যে তাকে বিভিন্ন মামলায়  সাজা দেওয়ার সরকারি ষড়যন্ত্র চলছে বলে দলীয় নেতাদের অভিযোগের মধ্যে এই আশাবাদ প্রকাশ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র এই আইনজীবী এবং সাবেক আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ।

মওদুদ বলেন, ধরে নিলাম মিথ্যা মামলায় তার (খালেদা জিয়ার) সাজা হয়ে গেল। তখন আমরা আপিল ফাইল করব, তখন আমরা তার জন্য ইনশাল্লাহ জামিন নেব। বেগম খালেদা জিয়া সরাসরি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

উনি যদি সাজাপ্রাপ্তও হয়ে যান, তাহলে উনি আগামী ৩ বছর বা ৭ বছর জেলখানায় থাকবেন, এটা হয় না। আপিল ফাইল করার পরপরই আমরা জামিনের জন্য দরখাস্ত করব। তিন বছর সাজা হলে জামিন এমনিতেই হয়, আর ৭ বছরের শাস্তি হলে আমাদেরকে হয়ত অল্প কিছু দিন ব্যবধানে আবার জামিন নিশ্চিত হবে। এতে তিনি শুধু নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাই শুধু নয়, তিনি আমাদের দলের নেতৃত্বও দিতে পারবেন, জোটের নেতৃত্ব দিতে পারবেন- এটাই হল কথা। সুতরাং এটা নিয়ে নানা রকমের জল্পনা-কল্পনা, নানা-রকমের কথা বার্তা হচ্ছে-এগুলো অপ্রাসঙ্গিক। 

 বিএনপির নীতি-নির্ধারণী ফোরামের এই সদস্য বলেন, মামলায় যদি খালেদা জিয়ার সাজা হয়, তা তার জনপ্রিয়তা আরও বাড়িয়ে দেবে। পাশাপাশি খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে নির্বাচন করার কোনো চেষ্টাও সফল হবে না বলে সরকারকে হুঁশিয়ার করেন তিনি।

একদলীয় কোনো নির্বাচন বাংলাদেশের মাটিতে আর হবে না। সেটা যদি কেউ চিন্তা করে থাকেন, সেই ধরনের কেউ যদি পরিকল্পনা করে থাকেন, আমার মনে হয়, তারা বাস্তব যে অবস্থা, সেই অবস্থা থেকে অনেক বিচ্ছিন্ন আছেন।

বিএনপি আন্দোলনের সঙ্গে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে জানিয়ে মওদুদ বলেন, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সব রাজনৈতিক দলকে ঐক্যবদ্ধ করে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

সরকার সংলাপে না এলে বিএনপির সামনে আন্দোলন ছাড়া কোনো বিকল্প থাকবে না বলে হুঁশিয়ার করেন তিনি।

মওদুদ আহমেদ বলেন, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করতে বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলো প্রত্যাহার করতে হবে।

তিনি প্রশ্ন রাখেন, লেভেল প্লেইং ফিল্ড শুধু কি নির্বাচনের একমাসের জন্য? লেভেল প্লেইং ফিল্ড সর্বত্র থাকতে হবে, এখনই থাকতে হবে। এখন থেকেই সেই ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে বুঝব দেশে একটা অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশের সম্ভাবনা আছে।

পিলখানা হত্যাকা-ের নেপথ্যের নায়কদের বিচার করা হয়নি অভিযোগ করে মওদুদ বলেন, পিলখানা হত্যাকা-ের দৃশ্যমান বিচার হলেও ঘটনার নেপথ্যের নায়কদের বিচার করা হয়নি। নেপথ্যের লোকদের বিচার হলেই নিহতদের আত্মা শান্তি পাবে।  

তিনি বলেন, কারা এর পেছনে ছিল, কী উদ্দেশ্য ছিল, কী ষড়যন্ত্র ছিল- এটা উদঘাটন করা এবং এটা জাতিকে জানানো আমাদের সকলের কর্তব্য। এই দায়িত্ব আমরা কেউ এড়াতে পারব না।

 লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, লেবার পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক রহমান, এমদাদুল হক চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম রাজু, কেন্দ্রীয় নেতা আহবান হাবিব, আনোয়ার হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ