ঢাকা, বুধবার 01 March 2017, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৩, ০১ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ফ্যাসিবাদের কবলে পড়ে আমরা নির্যাতিত জাতিতে পরিণত হচ্ছি  ---- মির্জা ফখরুল

 

স্টাফ রিপোর্টার: দেশ একটি ফ্যাসিবাদের কবলে পড়েছে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা নিপীড়িত ও নির্যাতিত জাতিতে পরিণত হচ্ছি। আমরা একটা ফ্যাসিবাদের কবলে পড়েছি। এর থেকে মুক্ত না হতে পারলে আমাদের জাতীয় অস্তিত্ব থাকবে না। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-(জাসাস) আয়োজিত ‘একুশের চেতনা ও গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। 

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ড. মামুন আহমেদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা গাজী মাজহারুল আনোয়ার, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন আহমেদ উজ্জল এবং  দৈনিক দিনকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ড. রেজোয়ান সিদ্দিকী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন জাসাসের সাধারণ সম্পাদক হেলাল খান।

সরকার নতজানু হয়ে জাতীয় স্বার্থ বিকিয়ে দিচ্ছে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে দেশে গণতন্ত্র নেই। দুর্বিষহ অবস্থা বিরাজ করছে। এই সরকার সুপরিকল্পিতভাবে, সচেতনভাবে বাংলাদেশের সত্যিকার অর্থে যে জাতিসত্ত্বা, সেই সত্ত্বাকে ধ্বংস করে ফেলেছে। নিজেদের স্বার্থ রক্ষার জন্য সরকার নতজানু হয়ে জাতীয় স্বার্থ বিকিয়ে দিচ্ছে। আজকে সরকার চুক্তি করছে, কিন্তু কি চুক্তি হচ্ছে, কোন ধরনের চুক্তি হচ্ছে তা জনগণ জানে না।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা নিপীড়িত, নির্যাতিত জাতিতে পরিণত হচ্ছি। আমরা একটা ফ্যাসিবাদের কবলে পড়েছি। এর থেকে মুক্ত না হতে পারলে আমাদের জাতীয় অস্তিত্ব থাকবে না। তিনি বলেন, যে একুশের জন্য আমরা সংগ্রাম করেছিলাম, সেই একুশের চেতনার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে আওয়ামী লীগ। তারা দেশের গণতান্ত্রিক চেতনাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তারা একদলীয় শাসন ব্যবস্থা আমাদের উপর চাপিয়ে দিতে চায়। আর সেজন্য তারা সকল পরিকল্পনায় মিথ্যাচার দিয়ে, চাতুরতা করে হিপোক্রেসির মাধ্যমে জনগণকে বোকা বানাতে চায়। প্রতারণা করতে চায়।

ফখরুল বলেন, তারা (আওয়ামী লীগ সরকার) সাজিয়ে-গুছিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার  তৈরি করে এনেছে। দেশের সবাই বলছে বিতর্কিত ব্যক্তি, কিন্তু তাকেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার করা হয়েছে।

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি ৬ মাসের জন্য স্থগিত করায় আদালতকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির কোনো যৌক্তিকতা ছিলো না। অর্থাৎ এসবের ফলে আমাদের টিকে থাকা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, হতাশার কোনো কারণ নেই। হতাশা থাকলে চলবে না। জাসাসের কাজ হচ্ছে আবেগ সৃষ্টি করে হতাশা দূর করা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ