ঢাকা, সোমবার 14 October 2019, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

মাদ্রিদের ড্রয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠে এলো বার্সেলোনা

অনলাইন ডেস্ক : ঘরের মাঠে লাস পালমাসের সাথে নাটকীয় ম্যাচে ৩-৩ গোলে ড্র করে কোনরকমে পয়েন্ট বাঁচিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। আর সেই সুযোগে স্পোর্র্টিং গিওনকে ৬-১ গোলে উড়িয়ে দিয়ে লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে এসেছে বার্সেলোনা। এই জয়ে এক পয়েন্ট এগিয়ে রিয়ালকে হঠিয়ে উপরে উঠে এলো বার্সেলোনা। যদিও গ্যালাকটিকোরা এক ম্যাচ কম খেলেছে। 

তবে ম্যাচগুলো ছিল সবই ছিল ঘটনাবহুল। মাদ্রিদের ম্যাচে গ্যারেথ বেলের লাল কার্ড নিয়ে ম্যাচে উত্তেজনা দেখা দেয়। অন্যদিকে বার্সেলোনার ম্যাচের পরে কোচ লুইস এনরিকে নিশ্চিত করেছেন আগামী মৌসুমে তিনি আর কাতালানদের দায়িত্বে থাকছেন না। 

মাদ্রিদের জার্সি গায়ে বেলের প্রথম লাল কার্ডের কারনে ৪৭ মিনিটের পর থেকে রিয়াল ১০জনের দলে পরিণত হয়। আর সেই সুযোগে লাস পালমাস ৩-১ গোলে এগিয়ে যায়। ম্যাচের তিন মিনিট বাকি থাকতে ত্রাতা হিসেবে আবির্ভূত হন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। মাদ্রিদের এই ড্রয়ে অনেকদিন পরে টেবিলের শীর্ষে ওঠা বার্সেলোনা কিছুটা স্বস্তি পেতেই পারে। এনরিকের অধীনে এই নিয়ে তৃতীয় শিরোপার পথে বেশ ভালভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে কাতালানরা। এপ্রিলে মৌসুমের দ্বিতীয় এল ক্ল্যাসিকোতে মুখোমুখি হবার আগে অবশ্য এনরিকের এই ঘোষনা দলের ওপর কতটা প্রভাব ফেলে তা নিয়ে অনেকেই চিন্তিত। 

তবে এই সিদ্ধান্তের পিছনে ক্যাম্প ন্যুতে অতিরিক্ত চাপকেই সামনে নিয়ে এসেছেন এনরিকে, যার থেকে এখন তিনি বিশ্রাম চান। এ সম্পর্কে এনরিকে বলেছেন, ‘আগামী মৌসুমে আমি আর বার্সেলোনার কোচ থাকছি না। এটা একটি কঠিন সিদ্ধান্ত। কিন্তু সবকিছু বিবেচনা করে আমি মনে করছি সিদ্ধান্তটা যথার্থ।’

দিনের শুরুতে লিয়নেল মেসি, লুইস সুয়ারেজ, নেইমারদের দাপটে বার্সেলোনা যখন বড় জয় নিশ্চিত করে ফেলেছে তারপরপরই রিয়ালের জন্যও বার্নাব্যুতে একটি সহজ রাত অপেক্ষা করছিল। তার প্রমানও মিলে মাত্র আট মিনিটেই। ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার মাতেও কোভাচিচের সহায়তায় ইসকো স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন। যদিও এই লিড মাত্র দুই মিনিট স্থায়ী ছিল। সার্জিও রামোসকে বক্সের ভিতর কাটিয়ে রিয়াল গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে পরাস্ত করতে একটুও ভুল করেননি লাস পালমাসের স্ট্রাইকার টানা। 

বিরতির মিনিট তিনেক পরে জোনাথন ভিয়েরার একটি চ্যালেঞ্জে বেল মাথা ঠান্ডা রাখতে পারেননি। ওয়েলশম্যান ভিয়েরাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দিলে সাথে সাথে তাকে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়। ঘটনাটিতে অবশ্য পরবর্তীতে তিনি দু:খ প্রকাশ করেছেন, কিন্তু লাল কার্ডের ব্যপারে মোটেও খুশী হতে পারেননি বলে মাদ্রিদ বস জিনেদিন জিদান জানিয়েছেন। পরের ১০ মিনিটে স্বাগতিকদের অবস্থা আরো শোচনীয় হয়ে পড়ে। বক্সের ভিতর রামোসের হাতে বল লাগলে সেখান থেকে প্রাপ্ত পেনাল্টিতে সফরকারীদের এগিয়ে দেন ভিয়েরা। এরপর নাভাসের বড় একটি ভুলে কেভিন-প্রিন্স বোয়াটেং বল জালে জড়ালে হারের শঙ্কায় পড়ে রিয়াল। পিছিয়ে পড়ে অবশ্য রিয়াল আক্রমনের গতি বাড়িয়ে দেয়। তার ফলও পায় শেষ তিন মিনিটে। ডানি কাস্টেলানোর হ্যান্ডবলের সুবাদে প্রাপ্ত পেনাল্টি থেকে রোনাল্ডো ৮৬ মিনিটে নিজের প্রথম গোল করেন। এরপর শেষ মিনিটে হামেস রদ্রিগেজের কর্ণার থেকে দুর্দান্ত এক হেডে সমতা এনে রিয়ালকে এক পয়েন্ট উপহার দেন বিশ্বসেরা এই খেলোয়াড়। ম্যাচ শেষে জিদান বলেছেন, আমরা শীর্ষে নই, কিন্তু লীগ এখনো উন্মুক্ত আছে। আমরা এখনই আশা ছেড়ে দিচ্ছিনা। 

এদিকে দিনের শুরুতে এখনো রেলিগেশন খড়ায় থাকা স্পোর্টিং এর বিপক্ষে বার্সা যেন একটু বেশীই নির্দয় ছিল। ৯ মিনিটে লিয়নেল মেসির গোলেই এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। চলতি মৌসুমে আর্জেন্টাইন তারকার এটি ৩৬তম গোল। দুই মিনিট পরে হুয়ান রড্রিগুয়েজের আত্মঘাতি গোলে ব্যবধান দ্বিগুন হয়। ২১ মিনিটে সফরকারীদের পক্ষে একটি গোল শোধ করেন কার্লোস ক্যাস্ট্রো। তবে ২৭ মিনিটে সুয়ারেজের দুর্দান্ত ভলিতে দুই গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। দ্বিতীয়ার্ধে সুয়ারেজের পরিবর্তে মাঠে নামা পাকো আলকাসার নিজেকে প্রমানের সুযোগ হাতছাড়া করেননি। মেসির সহায়তায় ৪৯ মিনিটে বার্সেলোনর পক্ষে চতুর্থ গোল করেন এই স্প্যানিশ স্ট্রাইকার। ৬১ মিনিটে আন্দ্রে গোমেজের জন্য জায়গা ছেড়ে দেবার আগে নিজের ট্রেডমার্ক ফ্রি-কিক দিয়ে দ্বিতীয় গোল প্রায় করেই ফেলেছিলেন। কিন্তু বাঁধ সাধে ক্রসবার। মেসির অনুপস্থিতিতে ফ্রি-কিকের দায়িত্ব নেন নেইমার। আর সেই ফ্রি-কিক দিয়েই ৬৫ মিনিটে ক্যাম্প ন্যুতে এবারের মৌসুমে প্রথম গোল করেন এই ব্রাজিলিয়ান। ম্যাচ শেষের তিন মিনিট আগে দলের পক্ষে ষষ্ঠ গোলটি করেন ইভান রাকিটিচ। সূত্র: বাসস। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ