ঢাকা, রোববার 05 March 2017, ২১ ফাল্গুন ১৪২৩, ০৫ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

তাড়াশে এনথ্রাক্সে আক্রান্ত গরুর গোশত খেয়ে অনেক পরিবার দিশেহারা 

 

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা : সিরাজগঞ্জের তাড়াশের তালম ইউনিয়নের রানীদিঘী গ্রামে এনথ্যাক্স আক্রান্ত গরুর গোশত খেয়ে সারা এলাকা তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায় তাড়াশের তালম ইউনিয়নের রানী দিঘি গ্রামের শরিফুল ইলামের বড় গাভীন গরু ৭-৮ দিন আগে একটা বাছুর প্রসব করে। তারপরই তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ঘা দেখা যায়। আস্তে আস্তে সারা শরীরের পচন ছড়িয়ে পড়লে গরুটি নিস্তেজ হয়ে পড়ে। তখন এই অবস্থা লক্ষ্য করে গরুটিকে জবাই করে অন্যত্র বিক্রি করে দেয়া হয়। এলাকাবাসিরা জানান, নিজ গ্রামে এই গরুর গোশত বিক্রি করতে না পেরে গাবর গাড়ীর গরুর কসাই সন্তোসের কাছে বিক্রি করে দেয়। গত শুক্রবার বিকালে গাবর গাড়ী বাজারে এই গরুর গোশত বিক্রি করা হয়। এ ব্যাপারে রানীদিঘি ওয়াডের ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম জানান গাভীটির বাচ্চা প্রসবের পর বাটে বাশের খোচা দিলে গরুর দুধে পচন ধরে রোগাক্রান্ত হয়ে পড়ে। সেই গরু বিক্রি করা হয়। এই গরুর গোশত খেয়ে অনেকে এন্থ্যাক্স ভয়ে দিন কাটাচ্ছেন। এভাবে পরীক্ষা না করে তাড়াশের বিভিন্ন হাট বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে গরুর গোশত। এ ব্যাপারে তাড়াশ উপজেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা আবু হানিফ বলেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, এন্থ্যাক্স হোক আর যেকোন রোগই হোক অসুস্থ হলে সে পশুর গোশত খাওয়া যাবে না।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ