ঢাকা, সোমবার 06 March 2017, ২২ ফাল্গুন ১৪২৩, ০৬ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভবিষ্যতে গ্যাসের দাম আরো বাড়ানোর ইঙ্গিত

স্টাফ রিপোর্টার : আমদানিকৃত তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস এলএনজি বিক্রি হবে বেশি দামে। সরকারের সেই টার্গেট পূরণ করতেই সম্প্রতি গৃহস্থালীতে প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে সরকার। গতকাল রোববার জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ পরোক্ষভাবে এ কথা স্বীকারও করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, আগামীতে আরো বেশি দামে প্রাকৃতিক গ্যাস গ্রাহককে কিনতে হবে। একই সাথে এলএনজি গ্যাসও বেশি দামে কিনতে হবে। তাই তারই প্রস্তুতি হিসেবে গত সপ্তাহ থেকে আবাসিকে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। 

গতকাল রোববার মন্ত্রণালয়ের হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও আইপিএজি’র যৌথ উদ্যোগে এক আলোচনা অনুষ্ঠান আয়োজন করে। তিন পর্বের প্রথম পর্বে ইন্টারন্যাশনাল বেস্ট প্রাক্টিস ইন এনার্জি ইফিসিয়েন্সি ইমপ্লিমেন্টেশন’ শিরোনামে আলোচনায় অংশ নেন আইপিএজির চেয়ারম্যান সাঈদ মুনির খসরু, বিদ্যুত বিভাগের যুগ্ম সচিব সিদ্দিক জোবায়েরসহ বেশ কয়েকজন। এছাড়া বুয়েটের শিক্ষক অধ্যাপক মোহাম্মদ আরিফ হাসান মামুন, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর ফয়জুল্লাহ, পেট্রোবাংলার জিএম লুৎফুর রহমানসহ জ্বালানি সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জানান, গৃহস্থালিতে গ্যাসের দাম বাড়ানোর কারণ হচ্ছে এলএনজির দামের সঙ্গে সমন্বয় করা। সেই সঙ্গে ভর্তুকির চাপ কমাতেও এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) গৃহস্থালিতে ও গাড়িতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম বাড়ায়। আবাসিক গ্রাহকদের গত ১ মার্চ থেকে এক চুলার জন্য মাসে ৭৫০ টাকা এবং দুই চুলার জন্য ৮০০ টাকা দিতে হবে। 

পাশাপাশি যানবাহনে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাসের (সিএনজি) দাম ১ মার্চ থেকে প্রতি ঘনমিটারে ৩৮ টাকা দিতে হবে। পাশাপাশি বিদ্যুৎ উৎপাদন, সার, শিল্প ও বাণিজ্যক খাতেও গ্যাসের দাম দুই ধাপে ৫ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানোর ঘোষণা দেয় বিইআরসি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গ্যাসে একটা বিশাল জায়গাতে সরকার ভর্তুকি দিচ্ছে। এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে গিয়ে দাম বাড়াতে হয়েছে। যদিও সমস্যাগুলো সাধারণ জনগণের ওপরই বর্তায়। আরেক কারণের বিষয়ে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে আমদানির মাধ্যমে যে এলএনজি আসবে সেটার প্রাইস কিন্তু অনেক বেশি। সেটার মূল্য এডজাস্টমেন্টের জন্য আমাদেরকে গ্যাসের দাম বাড়াতে হয়েছে।

ভবিষ্যতে গ্যাসের দাম আরো বাড়তে পারে এমন ইঙ্গিত দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন বিদ্যুৎ এবং কারখানায় যারা বড় গ্রাহক তাদেরকে আগে থেকেই বলে দিয়েছি যে, আপনাদেরকে প্রস্তুতি নিতে হবে। আগামী দুই বছরের মধ্যে আপনারা নিরবিচ্ছিন্ন জ্বালানি পাবেন। তবে এলএনজি আসলে, এটা মিক্সড করলেও কিন্তু এটার মূল্যটা অনেক বেশি হবে। বঙ্গোপসাগরে গ্যাস অনুসন্ধানে নতুন করে উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আগামী কিছু দিনের মধ্যে কয়েকটি কোম্পানিকে গ্যাস অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেওয়া হবে।

খুব দ্রুততার সাথে গভীর সমুদ্রে মাল্টিপ্লান সার্ভে শুরু করতে যাচ্ছে সরকার। এর আগেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, কোনো কারণে প্রায় দুই বছর পিছিয়ে গেছি। এখন আবার চাচ্ছি যাতে সার্ভেটা শুরু করা হয়। ইতোমধ্যেই ১০৮ টা ড্রিলিংয়ের জন্য টেন্ডার করে দিয়েছি, ইভাল্যুশন চলছে। আমরা অনশোরে চলে যাব কাজগুলো শুরু করার জন্য। ইতোমধ্যে মিয়ানমার সীমান্তে একটি কোম্পানিকে কাজ দেওয়া হয়েছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ