ঢাকা, মঙ্গলবার 07 March 2017, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৩, ০৭ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন বাতিলে সরকারকে নোটিশ

স্টাফ রিপোর্টার : ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন’ বাতিল চেয়ে সরকারের প্রতি লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়েছে। সংসদ সচিবালয়ের সচিব, আইন সচিব, মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাবর এই নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এ আইনটি বাতিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হবে। সম্প্রতি সংসদে পাস হওয়া এই আইনে ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে’ শর্তসাপেক্ষে কমবয়সী ছেলে-মেয়েদের বিয়ের বিধান রয়েছে।
গতকাল সোমবার দুপুরে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিশটি পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড.ইউনুছ আলী আকন্দ।
গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭’ পাস করে সরকার। আইনের কয়েকটি বিধান সংবিধানের ৭, ১১, ১৫, ২৬, ২৭ ও ৩১ ধারারগুলোর পরিপন্থী উল্লেখ করে নোটিশে বলা হয়েছে, এটি মুসলিম বিবাহ আইন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের পরিপন্থী। এ আইনের ফলে দেশে বাল্য বিয়ের সংখ্যা আরও বাড়বে। এমনিতেই বাল্য বিয়ের দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম সারিতে।
নতুন এ আইনে জনগণ এটি অপব্যবহার করবে বলেও উল্লেখ করা হয়। এতে চরম আকারে নারীদের মানবাধিকার লঙ্ঘন হবে।
মানবাধিকার সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠনের সমালোচনার মধ্যেই বিশেষ বিধান রেখে ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ বিল-২০১৭’ জাতীয় সংসদে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি পাস হয়। এ বিল পাসের পাশাপাশি ব্রিটিশ আমলে প্রণীত চাইল্ড ম্যারেজ রেসট্রেইন্ট অ্যাক্ট ১৯২৯ রহিত করা হয়।
বিলটি পাসের জন্য মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ সংসদে উত্থাপন করলে তা সর্বোচ্চ কণ্ঠভোটে পাস হয়। এতে মেয়ে ও ছেলেদের বিয়ের ন্যূনতম বয়স ১৮ ও ২১ বছর রাখা হলেও ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে’ তারচেয়ে কম বয়সেও বিয়ের বিধান রাখা হয়েছে।
গত বছর ২৪ নবেম্বর মন্ত্রিসভা আলোচিত এ বিলটির অনুমোদন দেয়। বিলের ১৯ ধারায় বিশেষ বিধান এনে বলা হয়েছে, এই আইনের অন্যান্য বিধানে যা কিছু থাকুক না কেন, বিধি দ্বারা নির্ধারিত কোনো বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্তবয়স্কের সর্বোত্তম স্বার্থে, আদালতের নির্দেশ এবং মাতা-পিতা বা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে অভিভাবকের সম্মতিক্রমে, বিধি দ্বারা নির্ধারিত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বিয়ে সম্পাদিত হলে তা এই আইনের অধীন অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ