ঢাকা, বুধবার 08 March 2017, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৩, ০৮ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

পরস্পরের নাগরিকদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা উ.কোরিয়া-মালয়েশিয়ার

৭ মার্চ, রয়টার্স : কিম জং ন্যামের হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্রে করে বাড়তে থাকা বিরোধের জেরে পরস্পরের নাগরিকদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে উত্তর কোরিয়া ও মালয়েশিয়া।
উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সৎভাই ন্যামের হত্যাকাণ্ডের তদন্ত নিয়ে মালয়েশিয়ার ওপর ক্ষুব্ধ উত্তর কোরিয়া পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে মালয়েশিয়ার নাগরিকদের দেশটি ছাড়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলে পাল্টাপাল্টি পদক্ষেপের বিস্ময়কর এই ঘটনাটি শুরু হয়, জানিয়েছে বিবিসি।
গতকাল মঙ্গলবার উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএ বলেছে, “মালয়েশিয়ার নাগরিকদের গণতান্ত্রিক গণপ্রজাতন্ত্রী কোরিয়া ত্যাগের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে, মালয়েশিয়ার যে ঘটনা ঘটেছে তা যথাযথভাবে শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।”
মালয়েশিয়ার থাকা উত্তর কোরীয় নাগরিক ও কূটনৈতিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে কেসিএনএ। দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও উত্তর কোরিয়ায় থাকা মালয়েশীয়রা স্বাভাবিকভাবে জীবনযাপন করতে পারবে বলেও জানিয়েছে বার্তা সংস্থাটি।
এর প্রতিক্রিয়ায় ক্ষুব্ধ মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক দেশটির এ পদক্ষেপকে ‘জঘন্য আচরণ’ বলে মন্তব্য করেছেন; বলেছেন, “এই পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক আইন ও কূটনৈতিক রীতিনীতির সম্পূর্ণ বরখেলাপ।”
উত্তর কোরিয়া মালয়েশীয়দের কার্যত জিম্মি করেছে বলে এক বিবৃতিতে মন্তব্য করেছেন তিনি।
বলেন, “আমাদের নাগরিকদের সুরক্ষা দেওয়াই আমার প্রধান বিবেচ্য। তারা হুমকির মুখোমুখি হলে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নিতে দ্বিধা করবো না আমরা।”
মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী আহমদ এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাহিদ হামিদি বলেছিলেন, পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে উত্তর কোরিয়ার দূতাবাসের কর্মী ও কর্মকর্তাদের মালয়েশিয়া ত্যাগের অনুমতি দেওয়া হবে না। কিন্তু পরে প্রধানমন্ত্রী নাজিব জানিয়েছেন, মালয়েশিয়ায় থাকা উত্তর কোরিয়ার সকল নাগরিক ওই নিষেধাজ্ঞার আওতাভুক্ত হবেন।
মালয়েশিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বর্তমানে উত্তর কোরিয়ায় ১১ জন মালয়েশীয় নাগরিক আছেন বলে ধারণা করছেন তারা। এই ১১ জনের বেশিরভাগই কূটনীতিক।
তাদের হিসাবে বর্তমানে প্রায় এক হাজার উত্তর কোরীয় নাগরিক মালয়েশিয়ায় আছেন। তবে দেশটিতে ঠিক কতজন উত্তর কোরীয় আছেন তা পরিষ্কার হওয়া যায়নি।
রোববার পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় প্রবেশে উত্তর কোরীয়দের কোনো ভিসা লাগতো না, কিন্তু নতুন এক নির্দেশে গত সোমবার থেকে দেশটিতে উত্তর কোরীয়দের প্রবেশে ভিসা প্রযোজ্য হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ