ঢাকা, বুধবার 08 March 2017, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৩, ০৮ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

এসিডদগ্ধ রেবার ঘরে অগ্নিসংযোগ

রাজাপুর (ঝালকাঠি) সংবাদদাতা: রাজাপুরের বড়ইয়া গ্রামের মৃত রফিজ উদ্দিন হাওলাদারের মেয়ে এসিডদগ্ধ রেবা ইয়াসমিনের ঘরে পেট্রোল দিয়ে অগ্নিসংযোগ করেছে তাকে এসিডদগ্ধকারী প্রতিপক্ষরা। এমনকি যেই প্রতিপক্ষরা তাকে দেশ ছাড়ার হুমিকও দিচ্ছেন। এছাড়াও তার নামে একাধিক মামলা দিয়েও হয়রানি করছে বলে রোববার নিজ বাড়ি বড়ইয়ায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে রেবা ইয়াসমিন এসব অভিযোগ করেন। এ সময় তার স্বজন ও প্রতিবেশীরা উপস্থিত ছিলেন। তিনি সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে জানান, এসিডদগ্ধের সোলে সূত্রে পাওয়া ওই জমিতে কয়েক মাস পূর্বে ঘর উত্তোলন করলে প্রতিপক্ষরা ঘরের বাহির থেকে তালা লাগিয়ে ঘরের মধ্যে থাকা বোনের ছেলে শহীদ হোসেনকে আটক রেখে শনিবার ভোররাতে পেট্রোল দিয়ে অগ্নিসংযোগ। করে শহীদের ডাকচিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে দরজার ছিটকানী ভেঙে তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিলেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি, এমনকি পুলিশ ঘটনাস্থলেও যায়নি। সংবাদ সম্মেলনে রেবা ইয়াসমিন আরও অভিযোগ করে জানান, এইচএসসি পাস করার পর পরিবারের পক্ষ থেকে বিবাহ ঠিক করে এবং গত ১৫ মে ২০০০ ইং তারিখের বিবাহের দিন ভোররাতে একই গ্রামের মৃত মইনুদ্দিন হাওলাদারের বখাটে ছেলে সন্ত্রাসী ফারুক হাওলাদার তার সন্ত্রাসী দলবল নিয়ে রেবার বাড়িতে এসে এসিড নিক্ষেপ করে রেবার সমস্ত শরীর ঝলসে দেয়। পরে এ ঘটনায় রাজাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন এবং দীর্ঘদিন মামলার চলার পর আসামীরা সাজা নিশ্চিত জেনে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মাধ্যমে রেবার নামে ৯০ শতাংশ জমি লিখে দিয়ে মীমাংসা হয়। বর্তমানে রেবা ঢাকার একটি এনজিওতে চাকরি করেন এবং ৩ বছর পূর্বে রেবার বাবাও মারা যান। এ সুযোগে তাকে দেয়া ৯০ শতাংশ জমির ২৭ শতাংশ রেখে বাকি জমি প্রতিপক্ষ মৃত আদম আলীর ছেলে সন্ত্রাসী ফারুক, তার ভাই বেলায়েত, মান্নান ও হাতেম আলীর ছেলে মতিন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়া দখলে নেয়। বর্তমানে এ ২৭ শতাংশ জমিও দখলে নেওয়ার জন্য প্রতিপতক্ষরা রেবার নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি, দেশ ছাড়া করার হুমকি এবং গত শনিবার ভোররাতে ঘরের বাহির থেকে তালা লাগিয়ে ঘরের মধ্যে থাকা বোনের ছেলে শহীদ হোসেনকে আটক রেখে পেট্রোল দিয়ে অগ্নিসংযোগ করে পালানোর সময় প্রতিপক্ষদের চিনে ফেলে শহিদ এবং অগ্নিসংযোগে ব্যবহৃত কাপড়ও প্রতিপক্ষদের বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়। রাজাপুর থানার ওসি তদন্ত হারুন অর রশিদ জানান, অভিযোগ দিয়েছে কিনা বিষয়টি দেখতে হবে, দেখে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। সংবাদ সম্মেলনে রেবা ইয়াসমিন প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ