ঢাকা, বুধবার 08 March 2017, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৩, ০৮ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করে-

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা: ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার মাওহা উচ্চ বিদ্যালয়ে সাময়িক বরখাস্তকৃত এক শিক্ষককে বহালের জন্য প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় জেএমবি সদস্যসহ কতিপয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে। ৪ মার্চ বেলা ১১টায় বিদ্যালয়ে ক্লাস চলাকালীন সময়ে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। গৌরীপুর থানার পুলিশ খবর পেয়ে বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ থেকে অবরুদ্ধ থাকা অবস্থায় স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষকদের উদ্ধার করে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, এই স্কুলের সহকারী শিক্ষক সাহিদা আক্তারকে ১০টি অনিয়মের অভিযোগে ম্যানেজিং কমিটির সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। সাময়িক বরখাস্তকৃত শিক্ষককে পুনর্বহালের জন্য ঘটনার দিন শনিবার ক্লাস চলাকালীন সময়ে ওই শিক্ষিকার স্বামী আব্দুল কাদির, স্থানীয় আল ফারুক ও তার ভাই জেএমবি সদস্য জাকারিয়া আলম টিপন, অপর জেএমবি সদস্য হাবিবুল্লাহ’র নেতৃত্বে ৫০/৬০ জন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বিদ্যালয়ে হামলা চালায়। এ সময় তারা আমাকে ও অন্যান্য সহকারী শিক্ষকদের বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে অবরুদ্ধ করে লাঞ্ছিত করে। অপরদিকে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে বরখাস্তকৃত শিক্ষককে পুনর্বহালের জন্য হাতে ব্যানার ধরিয়ে বিক্ষোভ করাতে থাকে।
গৌরীপুর থানার পুলিশ এসে আমাদের উদ্ধার করে। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এটিএম শামছুজ্জামান মাসুদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন বলেন, উল্লেখিত ঘটনার খবর শুনে স্কুলে যাওয়ামাত্রই তাকেও অবরুদ্ধ করে রাখে জেএমবি সদস্যরা। পরে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়।
গৌরীপুর থানার এসআই শাহজালাল জানান, খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের সাময়িক বরখাস্তকৃত শিক্ষক সাহিদা আক্তারের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। আল ফারুক ফোন রিসিভ করে কোনো কথা বলেননি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ