ঢাকা, শুক্রবার 10 March 2017, ২৬ ফাল্গুন ১৪২৩, ১০ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বগুড়ার শেরপুরে চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের দ্বন্দ্বে অতিদরিদ্ররা ১৫ লাখ টাকা থেকে বঞ্চিত!

শেরপুর (বগুড়া) সংবাদদাতা: বগুড়ার শেরপুর উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের দ্বন্দ্বের কারণে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির আওতায় প্রথম পর্যায়ের ৪০ দিনের ১৫ লাখ টাকা ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রকল্প তৈরি করে সঠিক সময়ে কাজ না করায় উপজেলা প্রশাসন এমন উদ্যোগ নিয়েছে। 

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবাায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) কার্যালয় সূত্র জানায়, অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির আওতায় মোট ১ হাজার ৮শ’ ৩০জন উপকারভোগীর বিপরীতে শেরপুরে উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে ১ কোটি ৩০ লাখ ১৬ হাজার টাকা বরাদ্দ আসে।  

এর মধ্যে ১শ’ ৭৩ জন উপকারভোগীর অনুকূলে ১৫ লাখ ৯ হাজার ২০ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয় শাহবন্দেগী ইউনিয়নে। প্রকল্পের শর্তানুযায়ী গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে চলতি মার্চ মাসের ১০ তারিখের মধ্যে ৪০ দিনের প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ করার কথা। কিন্তু  শাহবন্দেগী ইউনিয়নে এখনো প্রকল্প তৈরি করতে পারেনি। তাই নিয়ম মেনে উক্ত প্রকল্পের টাকা ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। 

চেয়ারম্যান আল আমিন মন্ডল জানান, মেম্বারদের অসযোগিতার কারণে অনেক উন্নয়নকাজ বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে না। তাদের কাছে ধনী-গরীব বলে কিছুই নেই। সবকিছুতেই ভাগ বসাতে চান তারা। এসব কারণে সময়মতো উক্ত প্রকল্প তৈরি করা যায়নি। শাহবন্দেগী ইউনিয়নের মেম্বার মাহমুদুল হাসান লিটন জানান, তিনিসহ অন্য মেম্বাররা কোনো অনিয়ম বা দুর্নীতির সাথে নেই। চেয়ারম্যান নিয়মিতভাবে পরিষদে আসেন না। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে স্বাক্ষর করেন না।  এতে বিভিন্ন ধরনের সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষজনও ক্ষিপ্ত। সবকিছুই চলে তার মর্জিমাফিক। এ কারণে প্রকল্প তৈরি করা যায়নি। 

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) শামছুন্নাহার শিউলি  জানান, প্রকল্প তৈরি করে দেয়ার জন্য বারবার চেয়ারম্যানসহ মেম্বারদের বলা হয়েছে। কিন্তু নিজেদের মধ্যে বিরোধের কারণে তারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজটি করতে পারেননি। তাই উপকারভোগীদের নামে আসা বরাদ্দকৃত টাকা ফেরত পাঠানো ছাড়া আপতত কোনো পথ খোলা নেই বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ