ঢাকা, শুক্রবার 10 March 2017, ২৬ ফাল্গুন ১৪২৩, ১০ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নড়িয়ার ডগ্রী বাজারে অগ্নিকান্ডে বিস্কুট ফ্যাক্টরি পুড়ে ছাই

 

শরীয়তপুর সংবাদদাতা: নড়িয়ার ডগ্রী বাজারে এক ভয়াবহ অগ্নিকা-ে ব্রাদার্স ফুড প্রোডাক্স নামের একটি বিস্কুট ফ্যাক্টরি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ডগ্রী বাজারে এই অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ১ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। কিভাবে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে তা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারেনি। তবে স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিসের ধারণা, চুলা থেকে অথবা বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে।

শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার নশাসন ইউনিয়নের শরীয়তপুর-ঢাকা মহাসড়কের পার্শ্বে ডগ্রী বাজারের ব্রাদার্স ফুড প্রোডাক্স নামের একটি বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৪টার সময় স্থানীয়রা আগুন দেখতে পেয়ে শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়। খবর পেয়ে শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ও স্থানীয়রা ১ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ততক্ষণে ব্রাদার্স ফুড প্রোডাক্স পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী হেলাল মাদবর। ফ্যাক্টরির চুলা থেকে অথবা বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে ধারণা করছেন ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। 

ব্রাদার্স ফুড প্রোডাক্স বিস্কুট ফ্যাক্টরির কর্মচারী মোবারক হোসেন বলেন, রাত ২টার সময় আমরা কাজ শেষ করে ঘুমিয়ে পড়ি। রাত ৪টার দিকে ফ্যাক্টরির উত্তর পার্শ্বের বাড়ির তাহের মাদবর ফ্যাক্টরির উত্তর কর্নারে আগুন দেখে চিৎকার দেয়। পরে আমরা ঘর থেকে তাড়াহুড়ো করে বের হই। কিভাবে আগুন লেগেছে আমরা বলতে পারছি না। ফ্যাক্টরির চুলার আগুন থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়নি। কারণ পাকা করা চুলার মুখ বন্ধ ছিল। 

শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন মাস্টার মো. আব্দুর রহমান বলেন, আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি বিদ্যুতের শর্টসার্কিট অথবা ফ্যাক্টরির চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে। আগুন লাগার সংবাদ পেয়ে আমরা তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হই। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি আগুনে পুড়ে প্রায় ৩ থেকে ৪ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে তদন্ত শেষে প্রকৃত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ