ঢাকা, শনিবার 11 March 2017, ২৭ ফাল্গুন ১৪২৩, ১১ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

স্থলবন্দর চালু হলে দু’দেশের সম্পর্কের উন্নয়ন হবে

উখিয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা : নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমে স্থলবন্দর চালু হলে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সম্পর্কের আরো উন্নয়ন হবে। ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নয়নের পাশাপাশি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। বর্তমানে সরকারের পূর্ব পরিকল্পনা এ স্থলবন্দর দ্রুত চালু করার জন্য সরকার কাজ করছে। এ নিয়ে মন্ত্রণালয়ে একাধিকবার ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। যার প্রেক্ষিতে স্থল বন্দর বাস্তবায়নে আরো কোন বাধা রইলনা। নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় তার পূর্ব নির্ধারিত সফরসূচি ঘুমধুম স্থলবন্দরে সম্ভাব্য স্থানসমূহ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিংকালে তিনি আরো বলেন, বিএনপি সরকারের আমলে কাগজে কলমে ১২টি স্থলবন্দরে নাম থাকলেও কার্যকর ছিল মাত্র ২টি। বর্তমান সরকারের আমলে দেশের বিভিন্ন স্থানে ২৩টি স্থল বন্দর মধ্যে ১০টি বন্দরে পুরোদমে কাজ চলছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্ষুধা দারিদ্র্যমুক্ত একটি দেশ গঠনের যে স্বপ্ন ছিল তা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ-মিয়ানমারের সাথে স্থলবন্দর চালু করতে যাচ্ছে। ঘুমধুমে প্রস্তাবিত স্থলবন্দর চালু করা হলে অসংখ্য বেকার যুবকের কর্মসংস্থান হবে পাশাপাশি এলাকার আর্থসামাজিক উন্নয়ন হবে। তিনি আরো বলেন, আগামী ২০৩০সালে বিশে^র খাদ্য স্বয়ং সম্পূর্ণ ৩০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের স্থান করে নেবে।

 তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে আবারো ক্ষমতায় আনার লক্ষ্যে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা একটি আন্তর্জাতিক সমস্যা এ নিয়ে জাতিসংঘসহ বিশ্বের বিভিন্ন দাতা সংস্থা কাজ করছে। আমাদের সাথে মিয়ানমারের সুসম্পর্ক রয়েছে বিধায় দ্রুত স্থলবন্দর বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব অশোকপ্রদ রায়, স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কৈহ্লালা, বান্দরবান জেলা প্রশাসক দীলিপ কুমার ভৌমিক, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ আলী হোসেন, বান্দরবান পৌর মেয়র মোঃ ইসলাম বেবী, কক্সবাজার উন্নয়ন        কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান অবঃ মেজর ফোরকান, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সরওয়ার কামাল, উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাঈন উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের নেতা খাইরুল বশর, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তাহের, নাইক্ষ্যংছড়ি জঙ্গি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি শফিউল্লাহ, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সচিব ইমরান মেম্বার, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন আহবায়ক তসলিম ইকবাল চৌধুরী, ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান একে জাহাঙ্গীর আজিজ, ঘুমধুম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি খালেদ সরওয়ার হারেচ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দীপক বড়ুয়া প্রমুখ। পরে মন্ত্রী নির্মাণাধীন বাংলাদেশ-মিয়ানমার মৈত্রী সড়কের কাজ পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ