ঢাকা, শনিবার 11 March 2017, ২৭ ফাল্গুন ১৪২৩, ১১ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সোনারগাঁয়ে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ পৌরসভার ষোলপাড়া গ্রামের মসজিদ কমিটির সদস্যদের মিথ্যা মামলা দায়ের করার প্রতিবাদে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন গ্রামবাসীরা। গতকাল শুক্রবার দুপুরে সোনারগাঁ পৌর ভবনের সামনে তিন গ্রামের শতশত নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেন। 

জানা যায়, সোনারগাঁ পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের উত্তর ষোলপাড়া গ্রামের শাহী মসজিদের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া সরকারি খালের উপর ওই গ্রামের জহিরুল ইসলাম বাবুল মসজিদের একাংশ ভেঙ্গে সেতু নির্মাণ করছেন। স্থানীয় মুসল্লিরা মসজিদের অজুখানা ভেঙ্গে সেতু নির্মাণ কাজ বন্ধ করার জন্য জহিরুল ইসলামকে বাধা দেওয়ায় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ভূমিদস্যু জহিরুল ইসলাম মসজিদ কমিটির সদস্য সহ গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। গতকাল শুক্রবার জুমার নামাযের পর ষোলপাড়া, লাহাপাড়া ও ভট্টপুর গ্রামের কয়েক শত নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেন। 

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া সোনারগাঁ পৌরসভার কাউন্সিলর দুলাল মিয়া ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর জায়েদা আক্তার মনি জানান, ভূমিদস্যু জহিরুল ইসলাম বাবুল মসজিদ কমিটির সদস্য ও গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান তারা। 

উত্তর ষোলপাড়া শাহী মসজিদের সভাপতি মঞ্জুর হোসেন ও সাধারন সম্পাদক ইউসুফ মজুমদার জানান, জহিরুল ইসলাম বাবুল মসজিদের অযুখানার একাংশ ভেঙ্গে ব্যক্তি মালিকানায় সেতু নির্মাণ করছেন। মসজিদের মুসল্লিরা তাকে নিষেধ করার পরও সে তার লালিত সন্ত্রাসী পৌরসভা ছাত্রলীগের সহসভাপতি নবনুর হাসান সাবিদ তার বাহিনী দিয়ে সেতু নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। গ্রামবাসীরা বাধা দেওয়ায় সে গ্রামবাসী ও মসজিদ কমিটির সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করা না হলে বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে বলে জানান তারা। তারা আরো জানান, মানববন্ধন শেষে গ্রামবাসীরা বাড়ি ফেরার পথে সন্ত্রাসী সাবিদ তাদের প্রাণনাশের হুমকি দেয়। 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত জহিরুল ইসলাম বাবুল হোসেন বলেন, আমার নির্মাণাধীন কাজে বাধা দিয়ে কিছু লোক চাঁদা দাবি করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছি। আমি কোনো মসজিদ কমিটির সদস্য ও নিরপরাধ কাউকে আসামী করে মামলা দায়ের করিনি। 

সোনারগাঁ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম ওবায়দুল হক বলেন, মামলায় নিরপরাধ কোনো ব্যক্তির নাম উল্লেখ থাকলে সঠিক তদন্ত করে তাদের নাম বাদ দিয়ে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ