ঢাকা, শনিবার 11 March 2017, ২৭ ফাল্গুন ১৪২৩, ১১ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চুক্তির ২০ বছর পরও থামেনি ভূমিমাইনের ব্যবহার

১০ মার্চ, ডেইলি মেইল: অবিস্ফোরতি ভূমিমাইন সম্পর্কে সচেতনা তৈরি করতে মাইন পোঁতা জমির ওপর হেঁটেছিলেন প্রিন্সেস ডায়না। তখন প্রিন্সেস ডায়ানার জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। ১৯৯৭ সালে দক্ষিণ পশ্চিম আফ্রিকার যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ অ্যাঙ্গোলা সফরকালে এ কাজ করেছিলেন। এটি না ব্যবহার করতে ২০ বছর আগে চুক্তিও হয়েছিল। তারপরও থামেনি।
তবে এমন ঝুঁকিপূর্ণ কাজে ডায়ানা যাওয়ায় ব্যাপক বিতর্কেরই সৃষ্টি হয়। ব্রিটেনের কিছু রাজনীতিককে তার এই পদক্ষেপ ক্ষুব্ধ করেছিল। তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ডায়ানা ফিরে এলে বিষয়টি নিয়ে তারা তার সঙ্গে কথা বলবেন।
মাইন প্রতিরোধে সক্রিয় ব্রিটিশ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘হ্যালো ট্রাস্ট’ এর পল হেসলপ। পল বলেন, ‘হঠাৎ করেই জানতে পারেন প্রিন্সেস ডায়ানা মাইন সরানোর কাজ দেখতে অ্যাঙ্গোলা যাচ্ছেন। কথাটা শুনে প্রথমে অবাক হয়েছিলাম। জানুয়ারির ৩ বা ৪ তারিখে খুব সকালে আমার মা ফোন করে বললেন প্রিন্সেস ডায়ানা হ্যালো ট্রাস্টের কাজ দেখতে অ্যাঙ্গোলা যাচ্ছেন। জবাবে মাকে বললাম, ডায়ানা এখানে আসলে আমি নিশ্চয়ই জানতাম। এক ঘণ্টা পর মা ফোন করে বললেন, তার কথাটা সত্য। বিবিসিতে খবরটা দেখাচ্ছে।’
পল বলেন, ‘ডায়নার মতো বিখ্যাত কাউকে দেখানো এই একটা সুযোগ। ১১ ঘণ্টার বিমানযাত্রা শেষে তিনি পৌঁছালেন তপ্ত লুয়ান্ডা শহরে। ২০ বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধে বিধ্বস্ত অ্যাঙ্গোলা আসেন তিনি ভূমিমাইন দিয়ে সচেতনা বড়াতে। তিনি যখন এসেছিলেন কখনও শহরতলীর বিভিন্ন স্থানে পোঁতা রয়েছে দেড় কোটির বেশি মাইন। বিপদ জেনেও তিনি এ কাজ করতে এসেছিলেন।’
ডায়না বলেছিলেন, ‘আমার মতে এ সচেতনার কাজ তৈরির জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত দেশ অ্যাঙ্গোলা। কারণ মাইনের আঘাতে আহত মানুষের সংখ্যা এখানেই সবচেয়ে বেশি।’
তবে ব্রিটেনের সরকারি নীতিকে অগ্রাহ্য করে ডায়নার এ পদক্ষেপ বড় ধরনের বিতর্ক তৈরি করেছিলেন। কিন্তু সব কিছু উপেক্ষা করেই তিনি তার কাজ করে গিয়েছিলেন।
১৯৯৭ সালে ডায়ানা মারা যাওয়ার পর ভূমিমাইন নিষিদ্ধ করে কানাডায় একটি আন্তর্জাতিক প্রস্তাবে প্রতিশ্রুতি দেন তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টোনি ব্লেয়ার। তিনি জানিয়েছিলেন, ডায়ানার মৃত্যুর প্রথম বার্ষিকী আসার আগেই ব্রিটেন এই চুক্তিতে সই করবে। ওই সময় ডিসেম্বরে ১২২টি দেশের সরকার ভূমিমাইন নিষিদ্ধ করার চুক্তিতে সই করে। তবে এ চুক্তিতে এখনও সই করেনি যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও চীন।
পল বলেন, দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য ২০ বছর পরও এ সমস্যাটা সমাধান হয়নি। ডায়ানা এতই জনপ্রিয় ছিলেন যে অনেকের ধারণা, তার জড়িত থাকার কারণে এই সমস্যার পুরো সমাধান হয়ে গেছে। আসলে তা নয়। এখনো ভূমিমাইন ব্যবহৃত হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ