ঢাকা, রোববার 12 March 2017, ২৮ ফাল্গুন ১৪২৩, ১২ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ব্যাটিং ব্যর্থতায়ই গল টেস্টে আমরা হেরেছি -মুশফিক

স্পোর্টস রিপোর্টার : গল টেস্টে ভালো করতে পারেননি ব্যাটসম্যানরা। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও দলের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানরা ভুল করেছেন। শেষ দিনে গতকাল পুরো সময় ব্যাট করতে পারলে বাংলাদেশ টেস্ট ড্র করতে পারত। এ জন্য মুশফিকদের ৯৮ ওভার টিকে থাকতে হতো। কিন্তু শেষ দিন মাত্র ৪৫.২ ওভারেই অল আউট হয়। ব্যাটসম্যানরা উদারতা দেখিয়ে রঙ্গনা হেরাথকে উইকেট বিলিয়ে এসেছেন। আর হেরাথ বিশ্বরেকর্ড করলেন বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডারকে ভেঙে দিয়ে। গতকাল প্রথম ঘণ্টায় শ্রীলংকা তুলে নেয় ৩ উইকেট। শেষ দিন ১৩০ রানের মধ্যে শেষ ১০ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ফলে ১৯৭ রানে গুটিয়ে গিয়ে ২৫৯ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসা মুশফিক ব্যাটিং নিয়ে নিজের হতাশার কথাই জানালেন। মুশফিক মনে করেন ব্যাটিং ব্যর্থতায়ই গল টেস্টে হেরেছে বাংলাদেশ। মুশফিক বলেন, ‘এই টেস্টে ড্রয়ের আশা তো আমাদের ছিলই। কারণ, গতকাল উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানরা খুব ভালো ব্যাটিং করেছে। পঞ্চম দিনের প্রথম আধঘণ্টা-এক ঘণ্টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। কিন্তু দুঃখজনকভাবে সে সময়ে আমরা ভালো কিছু করতে পারিনি। প্রথম পাঁচজন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে  ফেলার পর কাজটা সম্ভব হয়নি।’ জয়ের জন্য শেষ দিনে ৩৯০ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। শ্রীলংকার প্রয়োজন ছিল ১০ উইকেট। শুরুতে সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক, তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান ও রিয়াদ ফিরে যাওয়ায় বাংলাদেশকে দারুণভাবে চেপে ধরে রঙ্গনা হেরাথ। ওই সময়ে অত উইকেট না হারালে চিত্রটা ভিন্ন রকম হতো বলে মনে করেন অধিনায়ক। মুশফিক বলেন, ‘ম্যাচ আর জেতা যাবে না, যখন এটা বোঝা যায় এবং প্রতিপক্ষ লাইন-লেংথ ঠিক রেখে বোলিং করে যায়, তখন সব কিছু আরো কঠিন হয়ে পড়ে। যদিও আমাদের আশা ছিল, কিন্তু দ্রুত কয়েকটি উইকেট হারিয়ে ফেলার কারণেই ম্যাচ হেরে আমাদের চড়া মূল্য দিতে হলো।’ প্রথম টাইগারদের থেকেই ভয় ছিল হেরাখকে নিয়ে। গল টেস্টের শেষ দিনে ৬ উইকেট নিয়েছেন হেরাথ। গড়েছেন বাঁহাতি স্পিনে সবচেয়ে বেশি উইকেট নেওয়ার রেকর্ড। তার বোলিংয়ের কাছেই হারতে হলো বাংলাদেশকে। হেরাথের বোলিং নিয়ে মুশফিক বলেন,‘ সে চ্যাম্পিয়ন বোলার। আমরা জানতাম যে, হেরাথই আমাদের অন্যতম বড় হুমকি হবে। বাঁহাতি বোলার হিসেবে দারুণ কীর্তি গড়ায় তাকে অভিনন্দন। আশা করি, শ্রীলংকান হয়ে সে আরও অনেক দিন ভালো খেলবে।’ টেস্টে হার নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘প্রতিপক্ষ যখন দেখবে আমাদের জয়ের কোনো সম্ভাবনাই নাই, তখন কিন্তু নানাভাবে আক্রমণ করবে। স্লিপে ফিল্ডার থাকবে, সিলি পয়েন্টে থাকবে, ক্যাচিংয়ে অনেকগুলো ফিল্ডার থাকবে। এই অবস্থায় ঠুকে ঠুকে সারাদিন খেলা খুব কঠিন। এ ক্ষেত্রে সহজাত খেলাটাই খেলা উচিত। তবে অবশ্যই কম ঝুঁকির শটই খেলতে হবে। সে দিক  থেকে বলব, সৌম্য গতকাল যেটি মারার বল, সেটিই মেরেছে। তবে আজ যেভাবে শুররু করেছে, সেটা হতাশাজনক। মানসিক অবস্থা ঠিকঠাক না থাকলে একটা বলেই ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যেতে পারে। দ্বিতীয় ইনিংসেও ওদের উপুল থারাঙ্গা  যে ব্যাটিং করেছে, দেখে মনেই হয়নি তার খেলতে েেকানো সমস্যা হয়েছে। অধিনায়ক হিসেবে বলবো, আমাদের ব্যাটসম্যানদের মানসকিতা আমাকে হতাশ করেছে।’ ওপেনিং জুটি নিয়ে মুশফিক বলেন,‘ আমাদের খুব ভালো আশা ছিলো। সৌম্য-তামিম দারুণ জুটি গড়েছে। আমরা ভেবেছি, প্রথম সেশনটাও যদি আমরা কম উইকেট হারাই, তাহলে ধীরে ধীরে আমরা ড্রয়ের দিকেই এগিয়ে যেতে পারব।  সেটা আমরা পরিনি। এটা আমাদের জন্য বড় একটা ব্যর্থতা। আমাদের একটা সুযোগ হাতছাড়া হলো।’ তবে এই ব্যাটিংকে ব্যতিক্রম হিসেবে দেখে সামনে চোখ রাখছেন অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘আজকের মতো খারাপ কিন্তু গত দুই সিরিজের  কোনোটাতেই হয়নি। প্রথম ইনিংসে কিন্তু আমরা খারাপ খেলেও ৩১২ করেছি। দ্বিতীয় ইনিংস নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ার কিছু নাই। খুব দ্রুত আমাদের এ অবস্থা থেকে  বের হয়ে আসতে হবে। গত দুটি সিরিজেও আমাদের ড্র বা জয়ের সুযোগ এসেছিলো। আজকেও ১০ উইকেটে ৯৮ ওভার ব্যাটিংয়ের চ্যালেঞ্জ ছিলো। এই সুযোগগুলো কাজে লাগাতে হবে। দক্ষতা থাকা এক কথা, কাজটা করা আরেক কথা। এখানটায় আমাদের উন্নতি করতে হবে।’ ব্যাটসম্যানদের ভুল নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘ভালো বল, স্টাম্পের বল শট করতে গেলে আউট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই বাইরের বল খেলে রান করতে হবে। এটা আমি বিশ্বাস করি।’ সাকিব আল হাসান লেগ স্টাম্পের বাইরের বল খেলতে গিয়ে বাজেভাবে আউট হন। দ্বিতীয় ইনিংসেও একইভাবে আউট হলেন নিজ ভুলেই বাজে শট খেলে। মুশফিক অবশ্য সাকিবের পক্ষেই কথা বললেন, ‘প্রথম ইনিংসে সাকিবের আউটটার কথা বলি, সেটা দুর্ভাগ্যজনক আউট বলব। আজকে আমার আউট নিয়েও তাই বলব। আমার  ক্ষেত্রে  লেগ স্লিপ ছিল না। শর্ট ফাইন লেগ ছিল না। আমি যদি এই বলে রান না করি, কোন বলটায় করব। এটা বলতে পারেন, আমরা যেভাবে শটটা খেলা দরকার  সেটা পারিনি। ব্যাটের যেখানে শট লাগার দরকার, সেখানে লাগেনি। আমরা চেষ্টা করব সামনে এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে।’ পরের টেস্ট নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘আমাদের আরও ভালো ব্যাটিং করা উচিত ছিল। উইকেট খেলতে না পারার মত ছিল না। আমাদের মনে হচ্ছে, টেস্টে আমাদের আরো বেশ কয়েকটি জায়গায় ভালো করার সুযোগ আছে। যদিও আমাদের হাতে সময় কম, তারপরও আমরা চেষ্টা করবো ভুলগুলো শুধরে পরের টেস্ট জিতে সিরিজে ফিরতে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ