ঢাকা, রোববার 12 March 2017, ২৮ ফাল্গুন ১৪২৩, ১২ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

হকিতে শ্রীলঙ্কাকে গোলবন্যায় ভাসালো বাংলাদেশ

স্পোর্টস রিপোর্টার : ওয়ার্ল্ড হকি লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডের স্থান নির্ধারণী ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ।  শ্রীলঙ্কাকে ৯-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে বিশ্ব হকি লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডের পঞ্চম নির্ধারণী খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে স্বাগতিকরা।  ওমান ও মিসরের বিপক্ষে হারের পর লঙ্কা বধ দিয়ে জয়ে ফিরেছে জিমি-চয়নরা। গতকাল শনিবার মাওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে জয় তুলে নেয়ায় আজ রোববার (১২ মার্চ) সকাল সাড়ে ১১টায় ঘানার বিপক্ষে খেলবে লাল-সবুজরা।  ম্যাচের প্রথম থেকে আক্রমণ শুরু করে বাংলাদেশ।  শেষ পর্যন্ত সেই আক্রমণ অব্যাহত রেখেছে।
 নিয়মিত বিরতিতে গোল দিয়েছে।  বিশেষ করে সারোয়ারের বিচরণ ছিল সারা মাঠ জুড়ে।  মইনুল ইসলাম কৌশিকও চমৎকার খেলেছেন।  খেলার ৫০ সেকেন্ডে প্রথম পেনাল্টি কর্নারেই গোলের মুখ দেখে বাংলাদেশ।  জিমির পুশ, সারোয়ারের স্টপের পর চয়নের ড্র্যাগ শ্রীলঙ্কান গোলরক্ষক তুসিত রত্নাসিরিকে কোনো সুযোগ না দিয়ে ঠাঁই নেয় জালে। ফরোয়ার্ড মিলন ১১ মিনিটে বাংলাদেশকে ২-০ গোলে এগিয়ে নেন।  জিমির চমৎকার স্টিওয়ার্কে পরাস্ত হয় শ্রীলঙ্কান ডিফেন্স, তার কোনাকুনি হিটে ফ্লিক করে দ্বিতীয় গোলটি করেন মিলন।  পরের মিনিটে শ্রীলঙ্কর ফরোয়ার্ড রাজিত কুলাতুঙ্গা একাই বল নিয়ে ঢুকে পড়েন বাংলাদেরে ডি-বক্সে, তার পুশ গোলরক্ষক জাহিদ ফিরিয়ে দিলেও রিবাউন্ডটিতে আবার হিট নেন কুলাতুঙ্গা, চয়ন সেটিকে বিপদমুক্ত করেন। ২৪ মিনিটে চয়ন পেনাল্টি কর্নারে নিজের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় গোল করলে ম্যাচে বাংলাদেশের আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হয়।  জিমি-রানার পুশ স্টপের পর চয়ন এবার ড্র্যাগ করেননি, নীচু হিটে গোলটি করেন।  শেষ কোয়ার্টারে ৫টি গোল করে লাল-সবুজরা।  ৪৬ মিনিটে জিমি কৌশিককে বল ঠেলে দিলে কোনো ভুলই করেননি তিনি।  ৪৯ মিনিটে আরশাদ দলের ষষ্ঠ, ৫৬ মিনিটে পঞ্চম পিসি থেকে শুয়ে পড়ে কানেক্ট করে জিমি সপ্তম, ৫৮ মিনিটে আরশাদ অষ্টম ও ৫৯ মিনিটে মিলন নিজের তৃতীয় ও দলের নবম গোলটি গোল করেন।  শ্রীলঙ্কা যে সুযোগ পায়নি, তেমনটি নয়।  তবে বারবারই বাধাগ্রস্থ হয়েছে চয়ন, পিন্টু, খোরশেদ ও আশরাফুলদের সামনে।  কীপার জাহিদ ১৪ ও ২৪ মিনিটে দুটি গোল সেভ করেন। এর আগে পুল ‘এ’তে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে হেরে আসর শুরু করে বাংলাদেশ।  পরের ম্যাচে ফিজির বিপক্ষে ৫-১ ব্যবধানে জয় পায়।  কিন্তু, নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ওমানের কাছে ৩-২ ও চতুর্থ ম্যাচে কোয়ার্টার-ফাইনালে মিশরের বিপক্ষে ৫-১ গোলে হেরে বসে জিমি-চয়নরা।  ফলে, সেমি-ফাইনালে খেলার আশা শেষ হয় বাংলাদেশের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ